ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্বেচ্ছাচারিতায় ১২১৭ একর জমির ফসল নষ্ট, এলাকাবাসীর মানববন্ধন। গাজীপুরের কোনাবাড়ীর পোশাক কারখানা শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সৈয়দপুরে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবায় ‘ইটস হিউম্যানিটি’ গৌরবোজ্জল সংগ্রাম ও সাফল্যের ২৭ বছর পূর্তি, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কিশোরগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জয় এর ৫০তম জন্মবার্ষিকীতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ডাক টিকেট, উদ্বোধন। কক্সবাজারের উখিয়ায় ভারী বর্ষনে পাহাড় ধসে ৫ ও পানিতে ১ শিশু নিহত সময় ও নম্বর কমিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া হবে,এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা ডোমারে করোনা সংক্রমণরোধে মাস্ক বিতরণ চট্টগ্রামে লকডাউনের চতুর্থদিনে মহানগরীতে গাড়ি চলাচল বেড়েছে
কিশোরগঞ্জে হেপাটাইটিস রোগে প্রায় ৪ শতাধিক হাঁসের মৃত্যু

কিশোরগঞ্জে হেপাটাইটিস রোগে প্রায় ৪ শতাধিক হাঁসের মৃত্যু

একটি হাঁসের খামারে হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৪শতাধিক হাঁসের মৃত্যু হয়েছে।

মিজানুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার চাঁদখানা ইউপি’র চরকবন গ্রামে একটি হাঁসের খামারে হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৪শতাধিক হাঁসের মৃত্যু হয়েছে। পশু হাসপাতাল থেকে সঠিক চিকিৎসা না পাওয়ায় খামারে হাঁসের মৃত্যু হয়েছে বলে খামারীর অভিযোগ করে।
দিলদার রহমানের ছেলে আফাজ উদ্দিন নামের এক খামারির গত ৩ দিনে হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৪শতাধিক হাঁসের মৃত্যু হয়েছে।এতে বিপাকে পড়েছেন ওই খামারী।খামারীর অভিযোগ উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে সঠিক চিকিৎসা না পেয়ে খামারের হাঁসের বাচ্চাগুলো দ্রুত মারা গেছে। এতে তার খামারে ৫০ হাজার টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান। আজ সোমবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, খামারের হাঁসের বাচ্চা গুলো মাথা ঘুরে ঘুরে উপড়ে পড়ে মারা যাচ্ছে। এসময় খামারের মালিক আফাছ উদ্দিন জানান,এনজিও থেকে লোন নিয়ে গত এক মাস আগে ৫শত হাঁসের বাচ্চা কিনে বাড়িতে একটি খামার গড়ে তুলি।বর্তমানে ওই হাঁসের বাচ্চাগুলোর বয়স ২৪ দিন। আর কিছু দিন গেলে হাঁসগুলো বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকা আয় হত। কিন্তু গত ৩ দিন ধরে হাঁসের বাচ্চা গুলো মাথা ঘুরে ঘুরে উপড়ে পড়ে কিছুক্ষণের মধ্যে মারা যাচ্ছে। তিনি আরও জানান,হাঁসের রোগ দেখা মাত্রই স্থানীয় পশু হাসপাতালের চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলেও সেখানে কোন সুচিকিৎসার না পেয়ে রংপুর, তারাগঞ্জ পশু হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নেওয়ার পরও শেষ রক্ষা হয়নি। এই করোনাকালীন সময়ে পুঁজি হারিয়ে আমি নিঃস্ব প্রায়। এই ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ভেটেরিনারি সার্জন ডাঃ মোঃ নাহিদ সুলতান জানান,তিনি এ বিষয়ে গত শুক্রবার আমাকে ফোন দিলে আমার সাথে যোগাযোগ করতে বলি।কিন্তু পরবর্তীতে তিনি আমার সাথে কোন রকম যোগাযোগ করেননি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST