ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্বেচ্ছাচারিতায় ১২১৭ একর জমির ফসল নষ্ট, এলাকাবাসীর মানববন্ধন। গাজীপুরের কোনাবাড়ীর পোশাক কারখানা শ্রমিকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার সৈয়দপুরে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবায় ‘ইটস হিউম্যানিটি’ গৌরবোজ্জল সংগ্রাম ও সাফল্যের ২৭ বছর পূর্তি, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কিশোরগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জয় এর ৫০তম জন্মবার্ষিকীতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ডাক টিকেট, উদ্বোধন। কক্সবাজারের উখিয়ায় ভারী বর্ষনে পাহাড় ধসে ৫ ও পানিতে ১ শিশু নিহত সময় ও নম্বর কমিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া হবে,এসএসসি ও এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা ডোমারে করোনা সংক্রমণরোধে মাস্ক বিতরণ চট্টগ্রামে লকডাউনের চতুর্থদিনে মহানগরীতে গাড়ি চলাচল বেড়েছে
ডোমারে কামার পল্লীতে কোরবানির সরঞ্জাম তৈরীতে ব্যস্ত কামাররা

ডোমারে কামার পল্লীতে কোরবানির সরঞ্জাম তৈরীতে ব্যস্ত কামাররা

রতন কুমার রায়,স্টাফ রিপোর্টার:
ঈদ উল আযহা সামনে রেখে কামারশালায় ব্যস্ত সময় পার করছে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার কামার পল্লীতে কামাররা।ঈদের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে তাদের ব্যস্ততা।

কোরবানির পশু জবাইয়ের জন্য স্থানীয় ভাষায় চাপড়,ছুরি,দা,বটি,বাশিলা, কাঠারি ইত্যাদি তৈরী করতে টুং টাং শব্দে মূখরিত প্রতিটি কামারশালা। ভোর থেকে শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে পশু কোরবানীর সরঞ্জাম তৈরির কাজ। চলমান লকডাউনে হাট বাজার বন্ধ থাকায়, কামারশালায় অর্ডার নিয়ে, চাপ বাড়ছে কামারদের উপর। তাই সময়মতো মালামাল ডেলিভারি করতে সরঞ্জাম তৈরি করতে ব্যস্ত তারা।

করোনাকালীন লকডাউনে তারা গ্রাহকদের কাছ থেকে কোরবানীর পশু জবাই ও মাংস কাটার হাতিয়ার তৈরি ও মেরামতের বায়না নিয়েই হাতিয়ার ডেলিভারির তারিখ ও সময় জানিয়ে বিদায় দিচ্ছেন। অনেকের হাতে অর্ডার বেশী থাকায় নতুন করে আর কোন অর্ডার নিচ্ছেন না তারা।

উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের কামার পল্লীর প্রধান কারিগর মোমিনুর রহমান জানান, চলতি মাসের ১ তারিখ থেকে করোনা ভাইরাসের কারনে সরকার ১৪দিন কঠোর লকডাউন ঘোষনা করেছিলেন। তখন তেমন কোন কাজ ছিলো না। এখন লকডাউন সিথিল করায় হাট বাজার খোলায় আমাদের কাজের চাপ বেড়েছে।

আরেক কারিগর সমশের আলী বলেন, এবার নতুন সরঞ্জাম তৈরির সংখ্যা বেশী। প্রতিটি হাতিয়ার লোহার ওজন অনুযায়ী দাম নেয়া হচ্ছে। চাপড় ৫শত টাকা হতে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত আছে। ছোট ছুরি ১শ থেকে ১৫০টাকা, মাঝারি ছুরি ২০০ থেকে ৩০০শ টাকা, গরু জবাই করার ছুরি ৮শ থেকে ১ হাজার টাকা।

চাপড় ও ছুরি নিতে আসা আফজাল হোসেন জানান, কোরবানীর ঈদের আর মাত্র কয়েকদিন বাকি আছে। তাই পশু জবাইয়ের সরঞ্জাম কিনার কাজটি আগেই সেরে ফেলছি। গত বছরের চেয়ে এবার একটু দাম বেশী। জিনিস প্রতি ৫০ থেকে ১শত টাকার চেয়েও বেশী।

পশ্চিম বোড়াগাড়ী কামার পল্লীর কারিগর জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, বছরের অন্য দিনগুলোতে তেমন কাজ থাকে না। কিন্তু কোরবানীর ঈদ এলে কাজের চাপ বেড়ে যায়। দিন-রাত কাজ করেও অবসর পাওয়া যায় না।

তিনি আরো জানান, এবার কয়লা ও লোহার দাম গত বছরের চেয়ে অনেক বেশী। গত বছর কয়লার বস্তা ছিলো ১৪শ থেকে ১৫শ টাকা। এবছর কিনতে হচ্ছে ২২শ থেকে ২৩শ টাকা পর্যন্ত।

গত বছর লোহার কেজি ছিলো ৫৫ থেকে ৬০ টাকা এখন কিনতে হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা। তাই গত বছরের চেয়ে পশু কোরবানীর সরঞ্জামের দাম একটু বেশী নেয়া হচ্ছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST