ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার কুন্দপুকুর ইউনিয়নকে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে লালু সমর্থক গ্রূপের সাথে মতবিনিময়। সাতক্ষীরার কলারোয়ার সোনাবাড়ীয়া ইউনিয়নে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবীতে মানববন্ধন জলঢাকায় ৫২ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ইউনিয়ন উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  সিলেটের ব্যাংকের বুথে লুটপাটের ঘটনায় ৪ জনের রিমান্ড মঞ্জুর ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় ২ উপসর্গ নিয়ে ২ , মৃত্যু ৪ চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু ৩,আক্রান্ত ১৬৫ সাতক্ষীরয় পানি নিষ্কাশন ও খাল খননের দাবীতে  পানিবন্দী মানুষের মানববন্ধন শারীরিক অবস্থার উন্নতি হওয়ায় হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরলেন অভিনেতা বুলবুল আহমেদের স্ত্রী
নীলফামারীতে শ্যালো দিয়ে আমন রোপন-দিশেহারা কৃষক

নীলফামারীতে শ্যালো দিয়ে আমন রোপন-দিশেহারা কৃষক

নীলফামারীতে শ্যালো দিয়ে আমন রোপন-দিশেহারা কৃষক

মো:রেজাউল করিম রঞ্জু,স্টাফ রিপোর্টার,
আষাড় শ্রাবন বর্ষাকাল। কৃষকেরা আমন ধানের চাড়া লাগানোর সময়। কিন্তু এবার দীর্ঘদিন থেকে বৃষ্টি না হওয়ায় কৃষকেরা আমন ধানের চাড়া লাগাতে পারছে না নীলফামারীতে। কেউ কেউ ডিপ শ্যালোর সেচ দিয়ে আমন রোপন করছেন।খরার তাপে জমি ফাঁটল ধরেছে, দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষক।
কয়েকমাস থেকে বৃষ্টি না থাকায় পানির মুখ দেখতে পাারছেনা কৃষক। দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষির উপড় নির্ভরশীল মানুষজন। যাদের সেঁচ সুবিধা রয়েছে তারা সেঁচ দিয়ে আমনের চাড়া রোপন করছেন। রোপনে দেরি হওয়ায় কৃষকদের আমনের বীজ তলার চারা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
জেলা কৃষি অফিস সূএে জানা যায়, এবার নীলফামারীতে আমন ধানের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লক্ষ ১৩ হাজার ৭৫ হেক্টর। অনাবৃষ্টির কারনে লক্ষ্যমাএ পুরন হবে তবে দেরীতে রোপন হবে চারা।
সদরের লক্ষীচাপ ইউনিয়নের কৃষক মনোরঞ্জন রায় সাধুর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, এবার বৃষ্টির মুখ দেখির পাওনাই। ক্ষেত খামার শুকিয়া ফাটিয়া গেইছে। আষাড় গেলো শ্রাবন যায়ছে একদিনেও বৃষ্টি নাই। হামরা ওয়া গারিবার পাইছি না। ওয়া গারির না পাইলে হামরা বউ ছাওয়া নিয়া কেং করিয়া খামো, হামার পেটোত এবার ভাত যাইবে না। মোর বারো বিঘা জমি আছে, মুই এলাও গারীর পাও নাই।
ডোমার উপজেলার কৃষক আব্দুর রহিমের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, হামার এবার মরণ ছারা কিছু নাই। মুই এক বিঘা জমিতেও ওয়া লাগেবার পাও নাই। প্রচন্ড ওউদ ও খরার কারনে আবাদি জমিগুলাত পানি নাই। সেঁচ দিবারও মোর উপায় নাই। মুই এবার কেং করিয়া পরিবার নিয়া চলিম।
সদরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পার্থ প্রতিম রায়ের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সঠিক সময়ে বৃষ্টি না হওয়ায় আমন রোপনে কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। তাদের বীজতলার চাড়া নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কেউ কেউ সেঁচ দিয়ে চাড়া রোপন করছেন, তবে এতে কৃষকের খরচ বেশী হবে।
জেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু বক্কর সিদ্দিকের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আষাড় শ্রাবন বর্ষাকাল, তবুও বৃষ্টি নেই। জমিতে পানি না থাকায় কৃষকেরা আমন রোপনে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। অনেকে আবার সেঁচ দিয়ে চাড়া রোপন করছেন। আমরা যথেষ্ট চেষ্টা করছি কৃষকদের সহযোগিতা করার জন্য।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST