ঘোষনা:
শিরোনাম :
জাদুঘর স্থাপনের প্রস্তাবিত জমি পরিদর্শন করেছে,প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব চট্টগ্রামে চোরাইকৃত ৭ টি সিএনজি উদ্ধারসহ ৬ জনকে আটক করেছে র্যা ব। সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার কুন্দপুকুর ইউনিয়নকে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে লালু সমর্থক গ্রূপের সাথে মতবিনিময়। সাতক্ষীরার কলারোয়ার সোনাবাড়ীয়া ইউনিয়নে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবীতে মানববন্ধন জলঢাকায় ৫২ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ইউনিয়ন উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  সিলেটের ব্যাংকের বুথে লুটপাটের ঘটনায় ৪ জনের রিমান্ড মঞ্জুর ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় ২ উপসর্গ নিয়ে ২ , মৃত্যু ৪ চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু ৩,আক্রান্ত ১৬৫
কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাস জুড়ে শামুকখোল পাখির অভায়রণ্য

কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাস জুড়ে শামুকখোল পাখির অভায়রণ্য

মোঃ মিজানুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
জীববৈচিত্র্যের সন্নিবেশে প্রকুতির অলংকার পাখি রক্ষায় এগিয়ে এসেছেন নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দারা।সবুজ বেষ্টনীর বৃক্ষরাজিতে পাখ-পাখালির কূজন আর সুড়লহরীর মুর্ছনায় অনুরণিত হয়ে প্রকুতির এমন মোহে তাদের সখ্যতায় কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাস জুড়ে অঘোষিত শামুকখোল পাখির অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে।

বিগত কয়েক বছর থেকে ওই থানা ক্যাম্পাস জুড়ে বছরে ৪/৫ মাস দেখা মেলে শামুকখোল প্রজাতির হাজারো পাখি। আসলেই পাখিরা দেশ চেনেনা,ওরা প্রকুতি বোঝে তাই আফ্রিকা কিংবা সাইব্রেরিয়া,বাংলাদেশ,ভারত কিংবা চিন এগুলো পাখিদের কাছে অর্থহীন।বছরের বিভিন্ন সময়-ঋতুতে যখন সেখানকার পরিবেশ ও প্রকুতি তার বসবাস,খাদ্য আহরণ,স্বাচ্ছন্দ চলা ফেরা এবং বংশ বিস্তারের জন্য ভালো,সে সেখানেই ছুটে যায়।

তাই প্রকুতি বুঝে খাদ্যের সন্ধানে, অধিকতর নিরাপদ আবাসস্থল হিসেবে প্রতি বছর শীতের আগমনে এ পাখি গুলো এখানে আসে বাসা বাঁধে এবং ছানা ফুঁটিয়ে বড় করে এখানে শীত কাল কাটিয়ে তারপর বসন্তে উত্তরে উড়াল দেয়। কিন্তু এ বছর শীতের আমন্ত্রণ পাওয়ার আগেই খাদ্যের সন্ধানে প্রজননের জন্য আষাঢ় মাসেই এসেছে এ পাখিগুলো।পাখি শিকারী মুক্ত এলাকায় এভাবে দিন দিন বাড়ছে বিলুপ্ত এ অতিথি পাখির সংখ্যা।

সাধারণত সকালে আবার মধ্যে দুপুরে এ শামুকখোল পাখি উপজেলার শহরের নিকটবর্তী তিস্তা সেচ ক্যানেল, নদী, খাল-বিল,পুকুর, মজা, ডোবাসহ বিভিন্ন জলাশয়ে খাবার খেয়ে সাদা মেঘের ভেলার আলোকচ্ছাঁয় মনের সুখে দলবেঁধে বিকেলে নীড়ে ফিরে আসা এখন প্রতিদিনের দৃশ্য। আর ওই দুর-নীলিমায় যেন পাখির রাজ্য।

সরেজমিনে দেখা গেছে, থানা ক্যাম্পাসসহ বাজারের শতবর্ষী আম,শিমুল-কড়াই, তেতুল গাছে গাছে হাজারো শামুকখোল পাখির খুনসুটি, পাখার ঝাপটানির মোহনীয়তাল,আগন্তক আর দর্শনার্থীদের পদচারণায় থানাসহ যান্ত্রিক শহর যেন এক মনমুগ্ধকর শহরে পরিণত হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল আউয়াল জানান,স্থনীয়দের সহায়তায় এ উপজেলাকে পাখি শিকারী মুক্ত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।পাখি শিকারীদের কঠোর ভাবে দমন করা হয়েছে।তিনি আরো বলেন, সবুজ প্রকৃতির বুকে সুশোভিত বৃক্ষের ডালে ডালে পাখিগুলোর দ্বিধাহীন,অবাধ বিচরণে এক আনন্দঘন পরিবেশ সুষ্টি করেছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST