ঘোষনা:
শিরোনাম :
জাদুঘর স্থাপনের প্রস্তাবিত জমি পরিদর্শন করেছে,প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব চট্টগ্রামে চোরাইকৃত ৭ টি সিএনজি উদ্ধারসহ ৬ জনকে আটক করেছে র্যা ব। সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার কুন্দপুকুর ইউনিয়নকে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে লালু সমর্থক গ্রূপের সাথে মতবিনিময়। সাতক্ষীরার কলারোয়ার সোনাবাড়ীয়া ইউনিয়নে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবীতে মানববন্ধন জলঢাকায় ৫২ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ইউনিয়ন উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  সিলেটের ব্যাংকের বুথে লুটপাটের ঘটনায় ৪ জনের রিমান্ড মঞ্জুর ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় ২ উপসর্গ নিয়ে ২ , মৃত্যু ৪ চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু ৩,আক্রান্ত ১৬৫
কিশোরঞ্জে আগ্রহ বাড়ছে কফি চাষে

কিশোরঞ্জে আগ্রহ বাড়ছে কফি চাষে

মোঃ মিজানুর রহমান স্টাফ রিপোর্টার,
কফির নাম শুনলে মনে আয়েশি কিছু। যে চাষাবাদের কথা এলেও আসেনা আমাদের মত দেশের নাম। কিন্ত সেদিন পেরিয়ে পশ্চিমা বিশ্ব থেকে ঊড়াল দেয়া দ্বিতীয় বৃহত্তম ঊষ্ণ কোমল পানীয় পণ্য কফি দেশের পাবত্য পাহাড়ি জনপদকে ছাপিয়ে নীলফামারী কিশারগঞ্জের কৃষি অর্থনীতিতে নতুন মাত্রায় যুক্ত হয়ে কৃষকের আগ্রহ বাড়ছে বানিজ্যিকভাবে সম্ভবনাময় ফসল কফি চাষে। স্বল্প পুঁজি আর এ ঊপজেলার মাটি কফি চাষে ঊপযোগী হওয়ায় এর চাষাবাদ এখন সময়ের দাবি । ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা থেকে কফি শিল্প গড়ে তোলার স্বপ্ন বুনছেন তারা।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারী-বেসরকারী পূষ্ঠপোষকতাসহ কফি প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্র স্থাপন করা হলে কফি দেশের চাহিদা মিটিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের হতে পারে একটি অন্যতম খ্যাত।

সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলা সদরের মুন্সিপাড়া গ্রামের বিসমিল্লাহ্ নার্সারির মালিক আঃ কুদ্দুসের স্ব উদ্যোগ ২০১৪সালে এ উপজেলায় কফি চাষের গোড়া পত্তন ঘটে। তিনি গত ৭ বছর আগে কক্সবাজারের জাহানারা গ্রীণ এগ্রো ফার্ম থেকে ১৫০টি কফির .চারা সংগ্রহ করে বাণিজ্যিকভাবে শুরু করেন এর চাষাবাদ। শুরুর দিকে তিনি উড়–ন-গাইনে বাড়িতে কফি প্রক্রিয়াজাত করে ঢাকায় সরবরাহ করে সফলতা অর্জনের পর তিনি বর্তমানে নিজের কফি বাগান থেকে বীজ সংরক্ষণ, চারা উৎপাদন বিপণনের মাধ্যমে স্থানীয় উপজেলা ছাড়াও বিভিন্ন জেলা শহর গুলোতে সরবরাহ করে বছরে ৩ থেকে ৪লাখ টাকা আয়ের মুখ দেখছেন। স্বপ্ন নয়, সফলতা সিড়ি বেয়ে হাটছেন তিনি।

উপজেলার পুটিমারী কাচারী পাড়া গ্রামের সুলতান আলী কফি চাষের সুবিধা তুলে ধরে বলেন, অন্যান্য ফসলের চেয়ে কফি চাষে অধিক লাভ। পরিচর্যাসহ রোগবালাই কম, গরু-ছাগলে খায় না এবং বেড়া দেওয়া লাগেনা।চারা রোপণের ২বছরে ফলন পাওয়া। আর স্বাদে গন্ধ অতুলনীয়। যেখানে ১ কেজি চা পাতা ৩শত টাকা সেখানে ১ কেজি কফি পাউটার বিক্রি করা যায় ৪ হাজার টাকা। তিনি ১০শতাংশ জমিতে কফি চাষ করে ভাল সফলতা পেয়েছেন।

তিনি আরো জানান, এ অঞ্চলে কফি প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্র চালু হলে কফি একটি রপ্তানি খাতে স্বর্ণময়ী ফসলে পরিণত হবে। পাশাপাশি উপজেলা কৃষি বিভাগের সার্বিক তত্বাবধানে কৃষক পর্যায়ে উদ্ধকরণের মধ্যে দিয়ে মাগুড়া, গাড়াগ্রাম, রণচন্ডীসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে ১একর জমিতে তাদের সরবরাহকৃত ভিয়েতনামের উচ্চ ফলনশীল কফিয়া রোবাষ্টা জাতের ৬টি কফি বাগান গড়ে উঠেছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার হাবিবুর রহমান জানান, এ অঞ্চল মাটি কফি চাষে খুবেই উপযোগী। তবে কফি প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্র চালু হলে কৃষক পর্যায়ে কফি চাষের আরো আগ্রহী হয়ে উঠবে। এতে কৃষি অর্থনীতি সমৃদ্ধির পাশাপাশি কর্মসংস্থান বাড়বে ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST