ঘোষনা:
শিরোনাম :
জাদুঘর স্থাপনের প্রস্তাবিত জমি পরিদর্শন করেছে,প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব চট্টগ্রামে চোরাইকৃত ৭ টি সিএনজি উদ্ধারসহ ৬ জনকে আটক করেছে র্যা ব। সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার কুন্দপুকুর ইউনিয়নকে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে লালু সমর্থক গ্রূপের সাথে মতবিনিময়। সাতক্ষীরার কলারোয়ার সোনাবাড়ীয়া ইউনিয়নে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবীতে মানববন্ধন জলঢাকায় ৫২ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ইউনিয়ন উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  সিলেটের ব্যাংকের বুথে লুটপাটের ঘটনায় ৪ জনের রিমান্ড মঞ্জুর ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় ২ উপসর্গ নিয়ে ২ , মৃত্যু ৪ চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু ৩,আক্রান্ত ১৬৫
কিশোরগঞ্জের গ্রামীণ দৃশ্যপট থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শরতের কাশফুল !

কিশোরগঞ্জের গ্রামীণ দৃশ্যপট থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শরতের কাশফুল !

মোঃ মিজানুর রহমান,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারী কিশোরগঞ্জের গ্রামীণ দৃশ্যপট থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শরতের কাশফুল।রিমঝিম বর্ষার পরেই ভাদ্র-আশ্বিন জুড়ে শরৎ কালের রাজত্ব।

বয়োজ্যেষ্ঠরা জানান,প্রাচীনকাল থেকে প্রকৃতির ইশারায় ঘাস জাতীয় ছন উদ্ভিদ শরৎকাল এলেই জেগে ওঠে গাঁয়ের নদী,ঝোপ,ঝাড়,রাস্তার আনাচে-কানাচে প্রভূতি স্থানে। তখন সাদা ধব ধবে কাশফুলের মন মাতানো হিল্লোল দোল দিয়ে যায় সবার মনে।কিন্তু কালের আয়নায় শরতের কাশফুল হারিয়ে যাচ্ছে।শরতের সুনিপুণ নীল আকাশের নিচে কাশ ফুলগুলো যখন দোল খায় একটার সঙ্গে আরেকটা,এমন মুহূর্তে কাশফুলের রোমাঞ্চকর নরম ছোঁয়ায় আবালবৃদ্ধবনিতাদের হৃদয়ের শিহরণ জাগে।

নিকট ও অতীতেও গাঁও গ্রামে বিচ্ছিন্নভাবে থাকা যে, কয়টি কাশবন চোখে পড়ে সেগুলোও প্রকৃতি থেকে হারিয়ে যাচ্ছে।সময়ের পরিক্রমায় সেখানে এখন বিভিন্ন ফসলের মাঠ,বড় বড় ইমারত,শহর বন্দর।প্রকৃতির প্রতি উদাসীন মানুষের রুচি যে, আজ অরুচিতে রূপান্তরিত হয়েছে।

তাদের নির্মম আচরণের দরুন তপ্তজলে ভরে উঠেছে শরতের দুই চোখ।মানুষ যদি প্রকৃতির অনিষ্ট সাধনে আগ্রহী হতে থাকে তাহলে একদিন হয়ত শরতের সাদা ফুলের সঙ্গে আমাদের আর দেখা হবে না। হবে না কোন কথাও। আর শরৎ কে নিয়ে কবি সাহিত্যিকগণও হারিয়ে ফেলবে তাদের কাব্যিক ভাষা। তখন শরৎকে খুঁজতে হলে উল্টাতে হবে বইয়ের পাতা।আর এতে সাধারণ মানুষের বিনোদন-প্রকৃতিতে দেখার শখ-আহ্লাদও হারিয়ে যাবে। এ ছন গোত্রীয় উদ্ভিদ কাশবন চাষে বাড়তি পরিচর্যা ও সার প্রয়োগের প্রয়োজন হয়না।

আপনা থেকে কাশবনের সৃষ্টি হয়ে থাকে।কাশফুল শুধু শুভ্রতার প্রতীকও নয়,কাশবনের চারাগাছ একটু বড় হলেই গরু-মহিষের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা যায়। কাশ দিয়ে গ্রামের বধূরা ঝাটা, ডালি, দোন তৈরি করে। কৃষকের ঘরের ছাউনি হিসেবেও এর ব্যবহারের জুড়ি নেই। এ উপজেলার কিছু নদী, সেচ ক্যানেল,সড়কের ধারে কাশবন দেখা মিলে।

তখন কাশফুলের নরম স্পর্শে মনের বাগিচায় হারিয়ে যায় অনেকে।ফিরে পায় চিরায়িত গ্রাম বাংলার অতীত ঐতিহ্য।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST