ঘোষনা:
শিরোনাম :
জাদুঘর স্থাপনের প্রস্তাবিত জমি পরিদর্শন করেছে,প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব চট্টগ্রামে চোরাইকৃত ৭ টি সিএনজি উদ্ধারসহ ৬ জনকে আটক করেছে র্যা ব। সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার কুন্দপুকুর ইউনিয়নকে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে লালু সমর্থক গ্রূপের সাথে মতবিনিময়। সাতক্ষীরার কলারোয়ার সোনাবাড়ীয়া ইউনিয়নে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবীতে মানববন্ধন জলঢাকায় ৫২ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ইউনিয়ন উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  সিলেটের ব্যাংকের বুথে লুটপাটের ঘটনায় ৪ জনের রিমান্ড মঞ্জুর ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় ২ উপসর্গ নিয়ে ২ , মৃত্যু ৪ চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু ৩,আক্রান্ত ১৬৫
যেন প্রাণ ফিরে পেলো নীলফামারীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো

যেন প্রাণ ফিরে পেলো নীলফামারীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
সরকার ঘোষিত সকল নিয়ম ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সারাদেশের ন্যায় দীর্ঘ ১৭ মাস পর নীলফামারীতেও খুলেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
রোববার (১২ সেপ্টেম্বর/২১) জেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ মিলে মোট ১ হাজার ৪ শত ৯৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে।

প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হ্যান্ড সেনিটাইজার, হাত ধোয়ার ব্যবস্থা সহ টাঙ্গানো হয়েছে সকেচতনতা মূলক ব্যানার। রয়েছে আইসোলেশন রুমও।

নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুল মতিন বলেন, বিদ্যালয় খোলার নির্দেশনা পাওয়ার পরপরই বিদ্যালয় ভবন ও প্রাঙ্গন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ শুরু করা হয়। টেবিল-চেয়ার ধোয়া-মোছার পাশাপাশি ফ্লোর জীবাণুমুক্ত করা হয়। সকালে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের প্রবেশের আগে মাস্ক ব্যবহার যেমন নিশ্চিত করা হয়েছে, তেমনি ক্লাসরুমে প্রবেশের আগে সকলের হাত সাবান দিয়ে ধোয়া ও শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হয়।

তিনি আরো বলেন, প্রথমদিনে শতভাগ না হলেও উপস্থিতির সংখ্যা অনেকটাই আশানুরুপ। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সকল শিক্ষার্থীরাই আশাকরি বিদ্যালয়ে আসতে শুরু করবে।

ওই বিদ্যালয়ের অপর এক শিক্ষক বলেন, প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়গুলো বোঝানো হয়েছে এরপর পাঠ্যপুস্তক ধরে পাঠদানও করা হয়েছে। দীর্ঘদিন বিদ্যালয়ে না আসায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে কিছুটা জড়তা থাকলেও অনলাইন ক্লাস ও বাসায় পাঠদানের কারণে সবাই মোটামুটি এগিয়ে আছে।

দীর্ঘদিন পরে হলেও বিদ্যালয়ে আসতে পেরে খুশির কথা জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। সেইসঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাই নিয়মিত ক্লাস করার প্রত্যয় ও ব্যক্ত করেন শিক্ষার্থী নাসির হোসেন, সুমিতা রায় সহ অনেকে।

এদিকে ডিমলা জনতা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল লতিফ খান বলেন, প্রধান গেটেই মাস্ক ব্যতিত কলেজে প্রবেশ নিষেধ সংবলিত ব্যানার লাগানো হয়েছে। যে শিক্ষার্থীরা মাস্ক পরেনি তাদের আমরা মাস্ক সরবরাহ করেছি, আর স্বাস্থ্যবিধি মেনেই শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো হয়েছে।

ওই কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মহামারি করোনাকালে বিদ্যালয়ে আসা যাওয়ার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করা, হাতধোয়াসহ ক্লাসে বিভিন্ন বিষয়ে অবগত করা হয়েছে। এরপর রুটিন মোতাবেক নির্ধারিত বিষয়ে পাঠদান করা হয়েছে।

এছাড়াও জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয় ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম একের অধিক ক্লাসরুমে করানো হয়েছে। প্রতিটি বেঞ্চে একজন করে এবং জেড আকৃতির মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বসানো হয়েছে। সেইসঙ্গে যেসব শিক্ষার্থী মাস্ক না নিয়ে বিদ্যালয়ে এসেছেন তাদের বিদ্যালয় থেকে মাস্ক সরবরাহ করা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST