ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডোমারে সন্ত্রাসী হামলার স্বীকার প্রতিবন্ধী পরিবার, মামলা তুলে নেওয়ার হুমকী প্রদান নীলফামারীতে জাতীয় দক্ষতামান বেসিক ট্রেড কোর্সকে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে চলমান রাখার দাবীতে মানববন্ধন। নীলফামারীতে দূর্গা পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার। ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার নবীনগে দেশের অন্যতম মূর্তি তৈরী ও বিকিকিনি নীলফামারী সার্কেল অফিস এবং পুলিশ সুপার কার্যালয় পরিদর্শন নীলফামারী কমিটির পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক খাগড়াছড়িতে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে ২ যুবক আটক নীলফামারীতে পুলিশ সুপারের সাথে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মতবিনিময় নীলফামারীতে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ হয়েছে। ডিমলায় কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভা
নীলফামারীতে গোবরের শলা বিক্রি করে ঘুড়ে দাঁড়িয়েছেন নারীরা

নীলফামারীতে গোবরের শলা বিক্রি করে ঘুড়ে দাঁড়িয়েছেন নারীরা

মো:রেজাউল করিম রঞ্জু,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে নারীরা গোবরের তৈরী শলা বিক্রি করে ঘুড়ে দাঁড়িয়েছেন। গ্যাস ও বিদ্যুতের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে গোবরের তৈরী মুইঠ্যা বা শলা।জ্বালানীর অভাব দুর করতে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে হাতের তৈরী শলা।

গ্রামের নারীরা রান্নার কাজে গোবরের তৈরী শলা ব্যবহার করলেও, দাম কম হওয়ায় এখন শহরের নারীরাও রান্নার কাজে শলা ব্যবহার করছে।পরিবেশবান্ধব গোবরের তৈরী শলা সকল শ্রেনীর নারীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

অসচ্ছল পরিবারের নারীরা রাস্তার পাশে মাঠঘাট বা গবাদীপশু বিচরনের স্থান থেকে গো বর্জ্য (গোবর) সংগ্রহ করে থাকে। আবার অনেক নারী পার্শ্ববতী সচল পরিবারের গোয়ালঘর থেকেও গো বর্জ্য সংগ্রহ করে পরিবারের সদস্যরা সহ গৃহস্থালী কাজের ফাঁকে জ্বালানীর জন্য এ শলা তৈরী করে।

পাঠকাঠি,বাঁশের কঞ্চিতে মুঠো মুঠো গোবর মাখিয়ে তৈরীকৃত শলাগুলো রোদে শুকিয়ে,পাঁচ দিন পরেই বিক্রির উপযোগি হয়।বড়ভিটা ইউনিয়নের মেলাবর গ্রামসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে নারীরা অবসর সময়ে শলা তৈরি করছেন। তৈরির উপকরণে রয়েছে পরিমাপ মতো পাটখড়ি বা বাঁশের কঞ্চিতে গোবর ও ধানের তুষ(গুড়া) মিশিয়ে পাটখড়ি বা লাঠির গায়ে মুষ্ঠিতে এঁটে রোদে শুকাতে হয়।

কিশোরগঞ্জ বড়ভিটা গ্রামের রাধিকা রাণী,পপি রাণীর সাথে কথা হলে তারা বলেন, হামরা বিভিন্ন মাঠ,আস্তার পাশত বান্দি রাখা গরুর পরিত্যক্ত গোবর সংগ্রহ করে তা দিয়ে শলাকা তৈরী করে রোদে শুকিয়া জ্বালানি হিসেবে রান্না করো ও বাজারে বেচেয়া সংসার চালাই। আগে হামার অনেক অভাব ছিল, এখন শলা বিক্রি করিয়া হামার অভাব নাই,পালে গেইছে।

চাঁদখানা ইউনিয়নের কামারপাড়ার স্বপ্না রাণী, পলি রায় বলেন, গোবর দিয়ে শলা তৈরি করিয়া ওউদত শুকানোর জন্য আস্তার পাশত সারি সারি করে সাজিয়ে আখি। ওউদত শুকালে আন্নার উপযোগী হয়। তখন সেই শলা বেচেয়া হামরা সংসারের হাল ধরি আছি।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাবিকুন্নাহারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে এর ব্যবহার গ্রামীণ দরিদ্র নারীদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। জ্বালানী সংকট বেড়ে যাওয়ায় অনেকেই এই শলা স্বল্প দামে কিনে তা রান্নার কাজে ব্যবহার করছে।তাই এই এলাকার নারীরা গোবরের শলা বিক্রি করে পরিবারের স্বচ্ছলতা ফিরিয়েছে ও নিজেরাও ঘুড়ে দাঁড়িয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST