ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে আন্তঃ উপজেলা ফুটবল প্রতিযোগীতার পুরস্কার বিতরণ ও আবাসিক ক্যাম্পের উদ্বোধন জলঢাকায় তথ্য আপা’র সেবা পেয়েছেন ১৮ হাজার নারী নীলফামারীতে আদালতের ১৪ বিচারক করোনায় আক্রান্ত নীলফামারীতে ট্রেনে কাটা পরে ৩ ইপিজেড শ্রমিক নিহত,আহত ৯, এলাকায় শোকের মাতম সৈয়দপুরে পৌর বর্জ্যে পাউবো’র জমি দখল চেয়ারম্যান এ্যাড. শক্তিমান চাকমা হত্যা মামলার আসামী রাঙ্গামাটি ৪ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গ্রেফতার নীলফামারীতে ৪৪০ টাকা ছাড়া মিলছে না টিসিবির পণ্য,ভোগান্তীতে ক্রেতারা দেশে করোনা সংক্রমণের হাড় ৩২ দশমিক ৩৭ শতাংশ বিএনপি আজ চরম দুর্দিনের ছায়ায় আচ্ছন্ন, সেতুমন্ত্রী ডিমলা উপজেলার সবচাইতে বয়স্ক ব্যক্তিটি মারা গেলেন।
কিশোরগঞ্জে জোড় করে গর্ভপাত ঘটানো কবিতা এখন মৃত্যুর মুখে।

কিশোরগঞ্জে জোড় করে গর্ভপাত ঘটানো কবিতা এখন মৃত্যুর মুখে।

 

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী)প্রতিনিধি ,

স্বামী ও শাশুড়ীর বিরোদ্ধে জোরপূবক গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগ করেছেন নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বৈদপাড়া গ্রামের ভুক্তভোগি কবিতা বেগমের বাবা বুদারু মামুদ। গত কাল রোববার কবিতার হঠাৎ গর্ভপাত হলে তার প্রচুর রক্তক্ষরন শুরু হয়। তাকে ওই দিনই কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে।
জানা গেছে,গাড়াগ্রাম বৈদপাড়া গ্রামের বুদারু মামুদের মেয়ে পোশাক কারখানার কর্মি কবিতা বেগমের সাথে একই ইউনিয়নের ধাইজান পাড়াগ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে মিলন মিয়া ঢাকায় পোশাক কারখানায় কাজ করার সুবাধে উভয়ের মাঝে প্রেম ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে। একপর্যায় তারা বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন। এরপর তাদের কোলজুড়ে আসে একটি ছেলে সন্তান। ওই শিশুর বয়স এখন ৩বছর। এর ফাঁকে কবিতা আবারো গর্ভবতী হয়ে পড়ে। গর্ভধারনের বয়স যখন ৬ মাস কবিতা তখন স্বামীকে নিয়ে বাড়ীতে আসে। শাশুড়ী মোতাহারা বেগম বউয়ের দ্বিতীয়বার গর্ভধারনের বিষয় জানতে পেরে তাকে গর্ভপাত ঘটানোর চাপ সৃষ্ঠি করেন। এতে কবিতা রাজী না হলে স্বামী মিলন তাকে মারপিট শুরু করে। স্বাসী ও শাশুড়ীর শারীরিক আত্যাচার সহ্য করতে না পেরে কবিতা বাধ্য হয়ে স্বামী ও শাশুড়ীর নিয়ে আসা ওষুধ খান। ফলে গত রোববার কবিতার গর্ভপাত ঘটে এবং একটি ৬ মাসের ও বেশি বষসের মৃত্ ছেলে শিশু প্রসব করে। অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরনের ফলে কেবিতা এখন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিছানায় মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট করছে। চিকিৎসক বলছে তার শরীরে ৬পাউন্ড রক্ত না দিলে তাকে বাচানো সম্ভব হবে না। স্বামী মিলন মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি ঢাকা আছি । আমার স্ত্রীকে জোর করে ওষুধ খাওয়ানো হয়নি সে নিজেই খেয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST