ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে চোরাইকৃত ৭ টি সিএনজি উদ্ধারসহ ৬ জনকে আটক করেছে র্যা ব। সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার কুন্দপুকুর ইউনিয়নকে উন্নয়নের ধারায় ফিরিয়ে আনতে লালু সমর্থক গ্রূপের সাথে মতবিনিময়। সাতক্ষীরার কলারোয়ার সোনাবাড়ীয়া ইউনিয়নে পুনরায় ভোট গ্রহণের দাবীতে মানববন্ধন জলঢাকায় ৫২ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নীলফামারীতে ইউনিয়ন উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির দ্বি-মাসিক সভা অনুষ্ঠিত।  সিলেটের ব্যাংকের বুথে লুটপাটের ঘটনায় ৪ জনের রিমান্ড মঞ্জুর ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় ২ উপসর্গ নিয়ে ২ , মৃত্যু ৪ চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যু ৩,আক্রান্ত ১৬৫ সাতক্ষীরয় পানি নিষ্কাশন ও খাল খননের দাবীতে  পানিবন্দী মানুষের মানববন্ধন
কিশোরগঞ্জে জোড় করে গর্ভপাত ঘটানো কবিতা এখন মৃত্যুর মুখে।

কিশোরগঞ্জে জোড় করে গর্ভপাত ঘটানো কবিতা এখন মৃত্যুর মুখে।

 

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী)প্রতিনিধি ,

স্বামী ও শাশুড়ীর বিরোদ্ধে জোরপূবক গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগ করেছেন নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বৈদপাড়া গ্রামের ভুক্তভোগি কবিতা বেগমের বাবা বুদারু মামুদ। গত কাল রোববার কবিতার হঠাৎ গর্ভপাত হলে তার প্রচুর রক্তক্ষরন শুরু হয়। তাকে ওই দিনই কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে।
জানা গেছে,গাড়াগ্রাম বৈদপাড়া গ্রামের বুদারু মামুদের মেয়ে পোশাক কারখানার কর্মি কবিতা বেগমের সাথে একই ইউনিয়নের ধাইজান পাড়াগ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে মিলন মিয়া ঢাকায় পোশাক কারখানায় কাজ করার সুবাধে উভয়ের মাঝে প্রেম ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে। একপর্যায় তারা বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন। এরপর তাদের কোলজুড়ে আসে একটি ছেলে সন্তান। ওই শিশুর বয়স এখন ৩বছর। এর ফাঁকে কবিতা আবারো গর্ভবতী হয়ে পড়ে। গর্ভধারনের বয়স যখন ৬ মাস কবিতা তখন স্বামীকে নিয়ে বাড়ীতে আসে। শাশুড়ী মোতাহারা বেগম বউয়ের দ্বিতীয়বার গর্ভধারনের বিষয় জানতে পেরে তাকে গর্ভপাত ঘটানোর চাপ সৃষ্ঠি করেন। এতে কবিতা রাজী না হলে স্বামী মিলন তাকে মারপিট শুরু করে। স্বাসী ও শাশুড়ীর শারীরিক আত্যাচার সহ্য করতে না পেরে কবিতা বাধ্য হয়ে স্বামী ও শাশুড়ীর নিয়ে আসা ওষুধ খান। ফলে গত রোববার কবিতার গর্ভপাত ঘটে এবং একটি ৬ মাসের ও বেশি বষসের মৃত্ ছেলে শিশু প্রসব করে। অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরনের ফলে কেবিতা এখন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিছানায় মৃত্যু যন্ত্রনায় ছটফট করছে। চিকিৎসক বলছে তার শরীরে ৬পাউন্ড রক্ত না দিলে তাকে বাচানো সম্ভব হবে না। স্বামী মিলন মিয়ার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি ঢাকা আছি । আমার স্ত্রীকে জোর করে ওষুধ খাওয়ানো হয়নি সে নিজেই খেয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST