ঘোষনা:
নীলফামারীর জলঢাকার বামনাবামনি গ্রামে হাফিজিয়া মাদ্রাসার জমি নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ।শান্তি ভঙ্গের অভিযোগ এলাকাবাসির।

নীলফামারীর জলঢাকার বামনাবামনি গ্রামে হাফিজিয়া মাদ্রাসার জমি নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ।শান্তি ভঙ্গের অভিযোগ এলাকাবাসির।

আতিকুল ইসলাম,নীলফামারী ,
নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার খুটামারা ইউনিয়নের বামনাবামনি গ্রামে মাদ্রাসার জমিতে বাঁশ কাটা নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। গত রবিবার নুরুল হক শাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসার সাথে বাড়ি আব্দুল হাকিম ওই জমি বাপদাতার আমল থেকে ভোগ দখলে থাকা নিজস্ব জমির বাঁশ কাটায় মাদ্রাসা কমিটির কিছু স্বার্ধলোভী মানুষ এলাকার শান্তি ভঙ্গের পায়তারা করছে বলে এলাকাবাসি দাবি করে।এলাকাবাসি মনসুর আলি,সাজু মিয়া,সাবুলসহ বেশ কিছু সাধারন মানুষ সকলে বলেন,ওই জমি দীর্ঘ দিন থেকে আব্দুল হাকিম ওই জমির বাঁশঝাড় তাদের আমরা জানি।বাঁশ কাটার পর হঠাৎ ওই জমি মাদ্রাসা দাবি করছে।তবে এলাকায় একটি শালিশ হওয়ার কথা ছিলো কিন্তু মাদ্রাসা কমিটির সভাপতি ও সভপতির কিছু অনুসারি বসতে রাজি হয়নি।তাই দুপক্ষের মধ্যে গরমাগরমি চলছে।গত রবিবার পুলিশ এসে আব্দুল হাকিমকে জলঢাকা থানায় ধরে নিয়ে যায়,পরে রাতে ছেড়ে দেয়।বড়লোকের ব্যাপার আমরা এর বেশী কিছু জানিনা। এ বিষয়ে আব্দুল হাকিম বলেন,দুটি দাগের জমি আছে বাঁশ বাড়িতে,৬০৩ দাগে ১৮ শতক ও ৬০২ দাগে ১৭ শতক।আমার পত্রিক জমি মাদ্রাসা জমি পাওয়ার প্রশ্নই উঠেনা ।আর জমি মাপার পর যদি মাদ্রাসা পায়,তবে অবশ্যই দিবো এ জন্য মামলা করার কিছু নাই।মুলত আমাকে বিভিন্ন মামলায় ফাসানোর হুমকি দিয়েছে খয়রাত হোসেন শাহ,সেটিই করছে তিনি।এ ব্যাপারে নুরুল হক শাহ হাফিজিয়া মাদ্রাসার সভাপতি আবুল হাই বাবু বলেন,৬০২ দাগের ১৭ শতক জমি আব্দুল হাকিম দুই/তিন দিন আগে ক্রয় করে,জমিটি দখল দিয়ে বাঁশ কেটে নেয়।ওই জমি মাদ্রাসার তাই মাদ্রাসার অভিযোগে তাকে পুলিশ নিয়ে যায়,আবার অদৃশ্য কারনে ছেড়ে দেয়।এলাকায় বসার কোন আলোচনা হয় নাই ।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST