ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে অগ্নিকান্ডে ৫ পরিবারের ১২ টি ঘর পুড়ে ছাঁই। ফেনীতে বিএনপি ছাত্রলীগ ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত-২০ চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে এয়ারফোনে গান শুনে জীবন গেলো রেললাইনে  সরকার দেশের মানুষের পেটে লাথি মারছে,এবি পার্টির আহবায়ক সোলায়মান বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপে, দেশের ৪ বন্দরে ৩ নম্বর সংকেত অনিরাপদ আশ্রয় শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার পেয়েছেন নীলফামারীর মেয়ে দিয়া নীলফামারীতে চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীকে লাঞ্চনার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও স্মারক লিপি প্রদান। নীলফামারীতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে চড়ম ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ নীলফামারীর আর্চার দিয়া পাচ্ছেন,শেখ কামাল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ পুরস্কার
নীলফামারীতে সম্পত্তির লোভে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গৃহবধুকে গুরুতর জখম, থানায় এজাহার

নীলফামারীতে সম্পত্তির লোভে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গৃহবধুকে গুরুতর জখম, থানায় এজাহার

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারীতে সম্পত্তির লোভে হত্যার উদ্দ্যেশে বড় ভাবীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় গুরুতর জখমের অভিযোগ উঠেছে সৎ মা এবং সৎ ভাইয়ের বিরুদ্ধে। সুধু তাই নয় হামলায় বাঁধা দিতে গেলে বড় ভাই মোঃ আব্দুল মজিদকে ও পিটিয়ে আহত করেন তারা। মারপিটের এক পর্যায়ে জমিতে চাষাবাদ করতে আসলে হাত-পা ভেঙ্গে পঙ্গু করে রাখার হুমকী প্রদান করেন সৎ মা ও ভাইয়েরা।

অবস্থা গুরুতর দেখে বড় ভাবী মোছাঃ মনিরা বেগম (২৬) এবং বড় ভাই মজিদকে (৩০) আহত অবস্থায় নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করান এলাকাবাসী।

তাই জীবন রক্ষা সহ পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধারের পাশাপাশি অভিযুক্তদের উপর্যুক্ত শাস্তির দাবী নিয়ে নীলফামারী সদর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন মোঃ আব্দুল মজিদ (৩০)। তিনি নীলফামারী সদর উপজেলার দক্ষিন দোনদরী খামাত পাড়া এলাকার মশেতুল্লাহ’র (৬০) পুত্র।

লিখিত অভিযোগে আব্দুল মজিদ বলেন, পৈত্রিক সুত্রে প্রাপ্ত হয়ে বাড়ির পার্শের জমি দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছি। ভোগদখল অবস্থায় ওই জমিতে করলা ও লেবু চারা রোপন ও করি। কিন্তু উক্ত জমি বেদখল করা পায়তারা করেন পিতা মশেতুল্লাহ’র (৬০) দ্বিতীয় স্ত্রী মর্মে সৎ মা মোছাঃ মাজেয়া বেগম (৪৫), সৎ ভাই মোঃ মোসলেম (২৩), মোঃ মোরছালিন (১৯) এবং মোসলেমের স্ত্রী মোছাঃ মুক্তা বেগম (২১)। সময়ে অসময়ে বিভিন্ন ভাষায় গালিগালাজ সহ প্রাণে মারা হুমকীও প্রদান করে থাকেন তারা। গত ০৯/০৫/২০২২ ইং তারিখে সন্ধা অনুমান ০৬.০০ ঘটিকার সময় তারা সকলে হাতে লাঠি, কুড়াল,কাস্তে,দা নিয়ে বেআইনী জনতায় দলবদ্ধ হয়ে জমিতে রোপন করা লেবু ও করলা চাড়া উপড়ে ফেললে আমার স্ত্রী মোছাঃ মনিরা বেগম বাঁধা দিলে সকলে মিলে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ছোড়া দিয়ে মাথায় মারাত্বক কাটা জখম করে। আমি বিষয়টি দেখতে পেয়ে তাদের বাঁধা দিতে গিয়ে ছোট ভাই ও মা মিলে আমাকেও গুরুতর আহত করেন। মারপিটের এক পর্যায়ে জমিতে চাষাবাদ করতে আসলে হাত-পা ভেঙ্গে পঙ্গু করে রাখার হুমকী প্রদান করেন সৎ মা ও ভাইয়েরা। এসময় এলাকাবাসী ১। মোছাঃ বিজলী বেগম,স্বামী-মোঃ মঈনুল ইসলাম ২। মোছাঃ আকলিমা বেগম,স্বামী- মোঃ দুলু মিয়া ৩। মোঃ নাজমুল ইসলাম, পিতা- মশেতুল্লাহ সহ আরো অনেকে তাদের কবল থেকে আমাদের উদ্ধার করে নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করান। আমি কিছুটা সুস্থ হলে গত ১১/০৫/২০২২ ইং তারিখ রাতে থানায় এজাহার দায়ের করি।

জানতে চাইলে নীলফামারী সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রউপ বলেন, এজাহারটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST