ঘোষনা:
শিরোনাম :
মানিকগঞ্জে দুই মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ চট্টগ্রামে মা, মেয়ে ও ছেলের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, বাবা আটক কুমিল্লার ঘটনার সাতক্ষীরায় গণ সাংস্কৃতিক মৈত্রীর ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ মিছিলে মিছিলে প্রকম্পিত মোংলা বন্দর ডিমলায় আইন-শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত। মোংলার বিভিন্ন পূজা মন্দির ও মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন জেলা পুলিশ সুপার নীলফামারীতে ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিল । গানের জন্য শ্রোতারের অসামান্য ভালোবাসার পাশাপাশি হাবিব ওয়াহিদ পেয়েছে পুরস্কার এবং সম্মাননা আওয়ামীলীগ ও সরকারের অবৈধ বাহিনীর মদদে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করা হচ্ছে বললেন,ফখরুল ডিমলায় উপজেলা পুষ্টি বিষয়ে সভা
সরকারি কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপে নতুনরূপে ‘সরকারী নজরুল একাডেমী’।

সরকারি কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপে নতুনরূপে ‘সরকারী নজরুল একাডেমী’।

 

হুমায়ুন কবির সরকার টুটুল, ত্রিশাল প্রতিনিধি ,

১৯১৩ সালে ত্রিশালের দরিরামপুরে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘দরিরামপুর হাইস্কুল’। প্রতিষ্ঠার সময় কয়েকজন শিক্ষানুরাগী ব্যাপক অবদান রাখেন তাদের মধ্যে হাজী মেহের আলী মৃধা অন্যতম।

৬ একর ১৩ শতাংশ জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত এ বিদ্যালয়টিতে ১৯১৪ সালে ৭ম শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে প্রায় দেড় বছর লেখাপড়া করেছিলেন বাংলাদেশেরজাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম। এসময় ভারতের আসানসোলের চুরুলিয়া থেকে ১৯১৪ সালে ত্রিশালের কাজির শিমলায় তৎকালীন দারোগা কাজী রফিজ উল্লাহ তাকে এনে এখানে ভর্তি করান ‘দরিরামপুর হাইস্কুলে’। তখন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন বাবু বিপিং চন্দ্র চাকলাদার। এরই ধারাবাহিকতায় স্বাধীনতার পর নজরুল কে বাংলাদেশের জাতীয় কবি ঘোষণা করলে বিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয় কবির নামে,নাম রাখা হয় ‘নজরুল একাডেমি’। পরে সরকারের সর্বশেষ প্রজ্ঞাপনানুযায়ী প্রতিষ্ঠানটির নামকরণ হয় ‘সরকারি নজরুল একাডেমি’।

কবির বাল্যকালের স্মৃতি বিজড়িত এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার পর ভালোভাবে চলে আসলেও সময়ের পরিবর্তনে হারাতে শুরু করে শিক্ষার গুণগত ঐতিহ্যও মান। অনিয়মিত পাঠদান, নিয়ম-শৃঙ্খলার অভাবই ফলাফল বিপর্যয়ের কারণ হিসেবে মনে করেন এ বিদ্যালয়টির প্রাক্তন কৃতি শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা।

বিদ্যালয়টি জাতীয়করণের পর পদাধিকার বলে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পায় ইউএনও মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল জাকির। তিনি বিদ্যালয়টিতে মানসম্পন্ন পাঠদান, নিয়মিত এ্যাসেম্বলি, ডিজিটালায়ন, পাঠক্রম পরিবর্তন, মাসিক পরীক্ষা, বিদ্যালয়ের নামে নিজস্ব ওয়েবসাইডসহ আধুনিক ও মানসম্পন্ন একটি বিদ্যালয় গড়তে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। একই সঙ্গে শিক্ষক সংকট কাটাতে তার নির্দেশে বিদ্যালয়ে ক্লাস নিচ্ছেন সরকারি বিভিন্ন দফতরের অফিসারগণও। যার ফলে এরমধ্যেই পাল্টাতে শুরু করছে বিদ্যালয়ের সার্বিক চিত্র। যাতে খুশি শিক্ষার্থী,অভিভাবক ও স্থানীয়রা।

বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ ও ইউএনও হিসেবে মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল জাকির যোগদানের পর বিদ্যালয়টিতে প্রতিদিন এ্যাসেম্বলি, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি শতভাগ নিশ্চিত করতে ডিজিটাল হাজিরার ব্যবস্থা, বিদ্যালয়ের পাঠদান সময়সূচি পরিবর্তন করে সাড়ে ৭টায় ক্লাস, সিলেবাসের ব্যাপক পরিবর্তন, মাসিক পরীক্ষা ও এসব পরীক্ষার ফল বাৎসরিক পরীক্ষার ফলাফলে যোগ, ইংরেজী ও গণিত বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে ক্লাস টেষ্ট,শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতির বিষয়ে অভিভাবকদের অবহিত করতে সফটওয়ারের মাধ্যমে ডিজিটাল সিষ্টেম চালু, বিদ্যালয়ের নামে নিজস্ব ওয়েবসাইট করণ ও সুষ্ঠু পাঠদানে শিক্ষক সংকট মোকাবেলায় সরকারি বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তাদের দিয়েও করানোও হচ্ছে। শিক্ষক সংকটের ফলে ক্লাস নেন ইউএনও মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল জাকির, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সাজমুর রওশন সুমেল, প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. ওয়াজির আহমেদ, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এরশাদ উদ্দিনসহ অনেকে।

ইউএনও আব্দুল্লাহ আল জাকির বলেন, যোগদানের পর তিনি একদিন বিদ্যালয় পরিদর্শনে যান। নিয়মানুযায়ী পাঠ শুরু ৯টায়। তিনি গিয়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের পাননি। শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে আসেন ১১টার পর। কেউ হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে চলে যান চায়ের আড্ডায়। আবার কেউ বা বাইরে চেয়ার দুলিয়ে জমে গেছেন রাজনৈতিক আড্ডায়। এভাবে চলছিল বিদ্যালয়টি। ব্যবস্থাপনা কমিটি ছিল না। পদাধিকার বলে তিনিই সভাপতিবিদ্যালয়টির। ফলে শিক্ষকদের নিয়ে সভা করে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সমাধোনের চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু তাতে আশানুরূপ ফল না মেলায় অবশেষে বিদ্যালয় পরিচালনা ও পাঠদানে দায়িত্ব দেন কয়েকজন কর্মকর্তাকে।

স্থানীয়রা জানান, বেশ কয়েক বছর ধরে এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান নিয়ে ক্ষুদ্ধ ও হতাশায় ছিলেন অভিভাবকরা। বিভিন্ন অনিয়ম ও দিন দিন শিক্ষার মান ব্যাহত হওয়ার সময়ই ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টিকে সরকারিকরণ করা হয়। এরপরও লেখাপড়ার মানোন্নয়ন হয়নি। এরমধ্যে গত নভেম্বরে ত্রিশালের ইউএনও পরিদর্শনে গিয়ে দেখেন দুরবস্থা। শিক্ষক সমাবেশ করে সমাধানের চেষ্টা করেন। শেষে নিজেরা দায়িত্ব নেন। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থাকা জ্যেষ্ঠ শিক্ষক আতিকুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে বিদ্যালয়ের চিত্র পাল্টাতে কর্মকর্তারা নেমে পড়েন পাঠদানে।

গত জানুয়ারি থেকে বিভিন্ন ধাপে অভিভাবক ও ছাত্র সমাবেশ করে নিয়মিত উপস্থিতির উদ্যোগ নেন। একই সঙ্গে উপজেলার সব কোচিং সেন্টার বন্ধ করা হয়।

উপজেলার এসিল্যান্ড এরশাদ উদ্দিন প্রতিদিন সকাল ৭টায় অ্যাসেম্বলিতে অংশ নিয়ে শিক্ষক-ছাত্রের উপস্থিতি নিশ্চিত করেন এবং সপ্তাহে তিন দিন পাঠদানও করতে হয় তার।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নাজমুর রওশন সুমেল বলেন, অফিসিয়াল দায়িত্ব পালনের ফাঁকে আমি সপ্তাহে তিন দিন রসায়ন বিষয়ে পাঠদান করি। ইউএনও আব্দুল্লাহ আল জাকির বলেন, নিয়মিত অ্যাসেম্বলি, সফটওয়্যারের মাধ্যমে প্রতিদিনের আপডেট, ডিজিটাল হাজিরা, পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি ইংরেজিতে দক্ষ করার জন্য আলাদা ক্লাস এবং শিক্ষকদের যথাযথ উপস্থিতি নিশ্চিত করছি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST