ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডিমলায় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন ডিমলায় অটো মালিক চালক সমবায় সমিতি লি: এর সাধারন সভা পশ্চিম তীরে ইসরাইলি সৈন্যের গুলিতে ৫ ফিলিস্তিনি নিহত যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলে ভয়াবহ বজ্রঝড়, টর্নেডোর সতর্কতা পহেলা ডিসেম্বরকে ‘মুক্তিযোদ্ধা দিবস’ ঘোষণার দাবি সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের প্রধানমন্ত্রীর জনসভা ৪ ডিসেম্বর: চট্টগ্রাম নগরজুড়ে থাকবে সাড়ে সাত হাজার পুলিশ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ হার এড়াতে মাঠে নামছে ভারত আউটডোর টিকিট কেটে চোখের চিকিৎসা নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজে এসএসসিতে শতভাগ পাশ, ক্যাম্পাস ঘিরে উল্লাস। নীলফামারীতে দুই দিন ব্যাপি তথ্য মেলার উদ্বোধন
চোখের আলো ফেরাতে হৃদয়বানদের কাছে আবেদন নীলফামারীর আশিকুরের

চোখের আলো ফেরাতে হৃদয়বানদের কাছে আবেদন নীলফামারীর আশিকুরের

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
রংপুর হাজারী মাদ্রাসার কিতাবখানা বিভাগে পড়ুয়া ১৬ বছরের শিশু নীলফামারীর আশিকুর রহমান। সে সদর উপজেলার চড়াইখোলা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের দোলাপাড়া এলাকার লিয়াকত আলীর ছেলে। ইচ্ছে ছিলো একজন বড় মাওলানা হবে। কিন্তু সপ্ন যেন আধুরাই থেকে গেলো। চোখে কেরাটোকোনাসের মতো জটিল রোগে ২০ বছরেই অন্ধ হওয়ার আশঙ্কায় প্রহর গুনছে শিক্ষার্থী সহ পরিবার। এদিকে সন্তানের চিকিৎসার জন্য ভিটে-বাড়ি করে নিঃশ্ব বাবা-মা। কিভাবে সন্তানের চিকিৎসা করাবে কূল পাচ্ছেনা তারা। এখন সমাজের বিত্ত্ববানরাই পারে তাকে অন্ধকার থেকে আলোর পথে ফেরাতে। তাই বিত্ত্ববানদের কাছে সাহায্য চেয়েছেন মাদ্রাসা শিক্ষার্থীসহ তার পরিবার।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মাত্র ৭ বছর বয়সে চোখের এ্যালার্জি থেকে রুপ নিয়েছে কেরাটোকোনাসের মতো জটিল রোগের। এই রোগের কারণে সে দিনে চশমা লাগিয়ে দেখতে পেলেও রাতে একদমই দেখতে পারেনা। তাইতো মাদ্রাসা থেকে বর্তমানে ঘরের চারদেয়ালে দিনের মধ্যেই পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছে আশিকুর। চিকিৎসকরা বলেছেন, দেশে রোগটি নতুন হওয়ায় বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা করাতে হবে। তা না হলে চোখের আলো নিভে যাবে নিমিশেই।

মাদ্রাসা শিক্ষার্থী আশিকুর রহমান বলেন, আমি বড় মাওলানা হতে চাই। কিন্তু রাতে দেখতে না পাড়ায় মাদ্রাসা থেকে বাড়িতে চলে এসেছি। চিকিৎসার পেছনে খরচ করতে গিয়ে আমার বাবা মা নিঃশ্ব হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আকুল আবেদন আমাকে চিকিৎসার জন্য সহায়তা দিলে আমি আমার লক্ষে পৌঁছাতে পারবো।

আশিকুরের পিতা লিয়াকত আলী বলেন, আমার ছেলের পিছনে নীলফামারী,রংপুর ও ঢাকায় চিকিৎসা করাতে গিয়ে আমার ভিটা-বাড়ি সব বিক্রি শেষ। এখন আমি ঢাকায় রিক্সা চালিয়ে কোন রকমে সংসার চালাই। ছেলের চিকিৎসা করবো কিভাবে কূল পাচ্ছিনা। এখনো বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার পেছনে খরচ হবে আরও পনের থেকে বিশ লাখ টাকা।

মা মোছাঃ রোজিনা বেগম বলেন, কলকাতায় ডাক্তার দেখাইছিলাম তিনি বলেছেন ছেলের চোখ ভাল করতে হলে ভ্যালোরে চোখের ডাক্তার দেখাতে হবে। হাতে টাকা না থাকায় আমরা বাড়িতে চলে আসি। কিভাবে ছেলের চিকিৎসা করাবো? স্বামী রিক্সা চালিয়ে যা পায় তাই দিয়ে কোনরকমে সংসার চলে।

১ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ লিটন সরকার বলেন, আশিকুর একজন ভালো ছাত্র। কিন্তু তার চোখের ওই রোগের কারণে ঠিকমতো পাড়াশোনা করতে পারছে না। এলাকাবাসী বিভিন্ন জায়গায় চাঁদা তুলে তার পরিবারের হাতে দিয়েছিলো। ইউনিয়ন পরিষদ থেকেও সহযোগীতা করা হয়েছিলো। তারা চিকিৎসাও করিয়েছে কিন্তু কোন কাজ হয়নি। শুনেছি ভ্যালোরে চিকিৎসা করালে চোখ ঠিক হবে। তাই প্রধানমন্ত্রী সহ সমাজের বিত্ত্ববানদের কাছে আবেদন চিকিৎসার জন্য টাকা পয়সা দিয়ে সহযোগীতা করলে তার চোখ দুটো ভালো হয়ে যাবে। সে মাওলানা হতে পারবে।

আশা নিরাশা আর অনিশ্চয়তার মধ্যে এখন ছেলেকে নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন বাবা-মা। সরকারী-বেসকারী ভাবে সহায়তা পেলে অন্ধকার থেকে আলোর দেখা পাবে বলে প্রত্যাশা বাবা-মায়ের। তাই কুরআনের এই আলোকে সাহায্য পাঠাতে পারেন এই ঠিকানায়। মোছাঃ রোজিনা বেগম, জনতা ব্যাংক, চড়াইখোলা শাখা, নীলফামারী। হিসাব নম্বর-০১০০২২৯৭৪৩৯১৫। এছাড়া বিকাশের মাধ্যমেও সাহায্য পাঠাতে পারেন। বিকাশ নম্বর- ০১৯৮৬-৬৮৪৭৮৯।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST