ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ইফতার কিনতে যাওয়া হলনা শরিফুদ্দিনের । ডোমারে শিক্ষার্থীদের জন্য অভিভাবকদের মাঝে খাবার বিতরণ। যশোরের বেনাপোল কাস্টমস হাউস দেশের প্রথম ডিজিটাল কাস্টমস হাউসে উন্নীত। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান। করোনা কালীন পরিস্থিতি ও পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ। কিশোরগঞ্জে সিটিজেন চার্টার না থাকায় মৎস্য চাষীরা সেবা বঞ্চি। নীলফামারীতে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ইফতার উপহার পেলেন অসহায় ও দরিদ্র মানুষ। নীলফামারীতে ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু জাহিদুল, পরিবার বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা। চট্টগ্রামে করোনায় আরো ৫ জনের মৃত্যু ।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মাস না পেরোতেই অকেজো বাতি গুলো,জ্বলছে এলইডি বাতি । 

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মাস না পেরোতেই অকেজো বাতি গুলো,জ্বলছে এলইডি বাতি । 

নূর সিদ্দিকী ,ঢাকা ,
২০১২ সালে সৌরবাতি বসিয়েছিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মাস না পেরোতেই অকেজো হতে থাকে বাতিগুলো এখন একটি সৌরবাতিও জ্বলছে না, প্যানেলগুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে,তাই সেখানে এলইডি বাতি বসানো হয়েছে বললেন, ডিএসসিসি মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন ।
সৌরবিদ্যুতে রাতে আলোকিত হবে নগরের রাজপথ। মূল্যবান বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে। এমন ধারণা থেকে নগরের গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়কে সৌরবাতি বসিয়েছিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। প্রকল্প থেকে কোনো উপকার তো পাওয়াই যায়নি, উল্টো গচ্চা গেছে দুই কোটি টাকার বেশি। নগরের কাকরাইল মোড় থেকে নটর ডেম কলেজ পর্যন্ত সড়কে ২০১২ সালে সৌরবাতি বসিয়েছিল ডিএসসিসি। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মাস না পেরোতেই অকেজো হতে থাকে বাতিগুলো। এখন একটি সৌরবাতিও জ্বলছে না। প্যানেলগুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে। ডিএসসিসি সূত্রে জানা গেছে, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে সড়কে সৌরবাতির এ প্রকল্প শুরু হয়। প্রকল্পে বরাদ্দ ছিল ৩ কোটি ৯৪ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। তবে দরপত্রে সর্বনিম্ন ২ কোটি ২৪ লাখ ২১ হাজার ৬৫০ টাকার দরদাতা পাওয়ায় পুরো টাকার আর প্রয়োজন হয়নি। ৬১টি খুঁটিতে ১২২টি সৌর প্যানেল বসানো হয়। প্যানেলগুলোতে মাত্র ৬০ ওয়াটের বাতি বসানো। অথচ এ সড়কে আগের সোডিয়াম বাতিগুলো ছিল ১৫০ ওয়াটের। এ ছাড়া সোলার প্যানেল খুব নিম্নমানের হওয়ায় আকাশ মেঘাচ্ছন্ন বা কয়েক দিন বৃষ্টি হলে আর আলো পাওয়া যেত না। কাকরাইল থেকে নটর ডেম কলেজ পর্যন্ত সড়কের এ প্রকল্প সফল হলে আরামবাগ, বাংলামোটর, গুলশান, হাতিরঝিল, নাবিস্কো ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় তা স্থাপনের পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু ফল হতাশাব্যঞ্জক হওয়ায় প্রকল্পটি আর এগোয়নি। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, ২০১২ সালে সৌর প্যানেল বসানোর পর তা আর রক্ষণাবেক্ষণ হয়নি। পরিচ্ছন্ন করা হয়নি। ধুলোর আস্তর জমে জমে মাসখানেক না যেতেই প্যানেলগুলো অকেজো হতে শুরু করে। সড়কের বিভিন্ন অংশ অন্ধকার হয়ে থাকত রাতে। পরে সৌর প্যানেল থেকে বাতিগুলো খুলে ফেলা হয়। এলইডি বাতি বসানো হয়। ২০১২ সালে সৌরবাতি বসিয়েছিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)
রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মাস না পেরোতেই অকেজো হতে থাকে বাতিগুলো এখন একটি সৌরবাতিও জ্বলছে না, প্যানেলগুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে

ডিএসসিসির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) জাফর আহমেদ বলেন, এ প্রকল্প সফল না হওয়ার কারণ অনুসন্ধান করেছে টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (স্রেডা)। ২০১৭ সালে তৈরি করা প্রতিবেদনে স্রেডা বলছে, রাজধানীর বাস্তবতায় এ প্রকল্প কার্যকর হবে না। ইতিমধ্যে প্যানেলগুলোর বেশির ভাগই নষ্ট হয়ে গেছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলে সৌরবাতি বসালে তা কাজে লাগতে পারে। সরেজমিনে দেখা গেছে, ৬১টি খুঁটিতে ১২২টি সৌর প্যানেল পরিত্যক্ত অবস্থায় আছে। সেগুলোতে ধুলোর আস্তর পড়েছে। সেখানে বসানো এলইডি বাতিগুলো জ্বলছে। ফকিরাপুল এলাকার বাসিন্দা রুবেল হোসেন বলছেন, বাতিগুলোর বসানোর পর মাসখানেক আলো জ্বলেছিল। তবে আলো পর্যাপ্ত ছিল না। এরপর থেকে এগুলো আর জ্বলছে না। যেকোনো ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে সিটি করপোরেশনকে দ্রুত সোলার প্যানেল সরিয়ে ফেলার আহ্বান জানান তিনি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিদ্যুৎ বিভাগের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা বলেন, এসব প্যানেল বসানোর আগে বুয়েট বিশেষজ্ঞরা ইতিবাচক ছিলেন। তবে সৌরবাতিগুলো লাগানোর পর অতিরিক্ত ধুলার কারণে প্রায়ই বন্ধ হয়ে যেত। পরিষ্কার করলে দু–তিন দিন ভালো থাকত। আবার বহুতল ভবনের কারণে শীতকালে সৌর প্যানেলে যথাসময়ে আলো পড়ত না। তাই এসব বাতি এখন জ্বলছে না। স্থানীয় লোকজনের অনুরোধে সেখানে এলইডি বাতি বসানো হয়েছে।

এ প্রকল্পের পরিচালক ছিলেন ডিএসসিসির নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মাহতাব হোসেন। পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকা এসব সোলার প্যানেল অন্য কোথাও ব্যবহারের চিন্তাভাবনা আছে কি না, জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি। জানতে চাইলে ডিএসসিসি মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেন, ধুলার কারণে এগুলো কাজ করছিল না। তাই পরে সেখানে এলইডি বাতি বসানো হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST