ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ইফতার কিনতে যাওয়া হলনা শরিফুদ্দিনের । ডোমারে শিক্ষার্থীদের জন্য অভিভাবকদের মাঝে খাবার বিতরণ। যশোরের বেনাপোল কাস্টমস হাউস দেশের প্রথম ডিজিটাল কাস্টমস হাউসে উন্নীত। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান। করোনা কালীন পরিস্থিতি ও পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ। কিশোরগঞ্জে সিটিজেন চার্টার না থাকায় মৎস্য চাষীরা সেবা বঞ্চি। নীলফামারীতে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ইফতার উপহার পেলেন অসহায় ও দরিদ্র মানুষ। নীলফামারীতে ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু জাহিদুল, পরিবার বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা। চট্টগ্রামে করোনায় আরো ৫ জনের মৃত্যু ।
খুলনায় সোর্সের বিরুদ্ধে সংবাদ করায় সাংবাদিককে ফেনসিডিল দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে।

খুলনায় সোর্সের বিরুদ্ধে সংবাদ করায় সাংবাদিককে ফেনসিডিল দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে।

খুলনা প্রতিবেদক ,

সোর্সের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় খুলনায় এক সাংবাদিককে ফেনসিডিল দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার সকাল নয়টার দিকে খুলনা নগরের মুসলমানপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে ওই সাংবাদিককে আটক করেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। পরে তাঁর বিরুদ্ধে সদর থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করা হয়।

ওই সাংবাদিকের নাম আবদুল জলিল। তিনি খুলনা থেকে প্রকাশিত দৈনিক খুলনাঞ্চল পত্রিকার নিজস্ব প্রতিবেদক। খুলনা প্রেসক্লাবের সহসম্পাদক ও মুসলমানপাড়া হক্কানি জামে মসজিদের সাধারণ সম্পাদকও তিনি। সেনাবাহিনীর সাবেক ওই সার্জেন্ট সদালাপি ও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায়কারী হিসেবে এলাকায় পরিচিত। তাঁকে আটকের ঘটনায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।

খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের অভিযোগ, জলিলের ঘরের পাশের নালায় তাঁরা ১০ বোতল ফেনসিডিল পেয়েছেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই অভিযান চালান তাঁরা। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে জানালা দিয়ে ওই ফেনসিডিলগুলো ফেলে দেওয়া হয়।

আটকের পর খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরে রাখা হয় জলিলকে। দুপুরের দিকে সেখানেই কথা হয় তাঁর সঙ্গে। জলিল বলেন, কয়েক দিন আগে ওই এলাকার এক মাদক ব্যবসায়ীকে নিয়ে প্রতিবেদন করেন তিনি। এরপর থেকেই তাঁর ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন ওই ব্যবসায়ী। শুধু তা–ই নয়, এলাকায় মাদকের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. রাশেদুজ্জামানকে বিষয়টি জানান জলিল। এসব কারণেই হয়ত তাঁকে ফেনসিডিল দিয়ে ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, মুসলমানপাড়া প্রধান সড়কে ঢুকে কয়েকটি বাড়ি পরেই হক্কানি জামে মসজিদ। ওই মসজিদের পাশ ঘেঁষে চলে গেছে একটি গলি। মসজিদের সীমানা পার হলেই একটি মহিলা মাদ্রাসা। মাদ্রাসার সীমানা ঘেঁষেই রয়েছে জলিলের বাড়ি। বাড়ির চারপাশে দেয়াল দেওয়া থাকলেও তা খুব বেশি উঁচু নয়। যে কেউ ওই দেয়াল টপকে ভেতরে ঢুকতে পারবেন। মূল গেট থেকে শোবার ঘর কিছুটা দূরে। মাঝখানের উঠান দিয়ে উঠে গেছে ছাদে যাওয়ার সিঁড়ি। ঘরের সীমানা আর দেয়ালের মধ্যে দূরত্ব সর্বোচ্চ এক হাতের মতো। ওই বাড়িতে শুধু স্ত্রী রুনা বেগমকে নিয়ে থাকতেন জলিল। একমাত্র মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে কয়েক মাস আগে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক পারভীন আক্তারের ভাষ্য, মাত্র একটি ঘরের জানালার সামনেই পাওয়া গেছে ফেনসিডিল। আর যখন ফেনসিডিলগুলো ছুড়ে ছুড়ে ফেলা হচ্ছিল, তখন ছাদে থাকা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা তা দেখতে পান। তবে সরেজমিন দেখা গেছে, ওই ঘর থেকে ছুড়ে ফেলার কোনো সুযোগ নেই। কারণ মাত্র এক হাত দূরেই দেয়াল। এ ছাড়া জানালায় সানশেড থাকায় কেউ যদি ঘর থেকে কিছু ফেলে দেয়, তা ছাদ থেকে দেখা সম্ভব নয়।

জলিলের স্ত্রী রুনা বলেন, রাতে কোপা আমেরিকার ফুটবল খেলা দেখে ও ফজরের নামাজ পড়ে ঘুমিয়েছিলেন জলিল। সকাল সাড়ে সাতটার দিকে গেটের দরজায় জোরে ধাক্কাধাক্কির আওয়াজ শুনে তিনি বের হন। ঘরের সঙ্গে থাকা গেট খুলে বাইরে কে আছেন, তা জানতে চান। এ সময় ওই প্রান্ত থেকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের কথা শুনে জলিলকে ডেকে দেন। কিছুক্ষণ পর জলিল গেট খুলে দিলে ওই সাদাপোশাকের কর্মকর্তারা হুট করেই ঘরে ঢুকে পড়েন। তাঁরা ঘরের বিভিন্ন জায়গা ওলটপালট করে কিছু খুঁজতে থাকেন। এ সময় ওই কর্মকর্তারা তাঁদের সঙ্গে খুব খারাপ আচরণ করেন। এমনকি তাঁদের কাছ থেকে মুঠোফোনও কেড়ে নেওয়া হয়। বেশি উচ্চবাচ্য করলে গাঁজা দিয়ে তাঁকে (রুনা) ফাঁসিয়ে দেওয়ারও হুমকি দেওয়া হয়। পরে ঘরের পাশের নালা থেকে কয়েক বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেন কর্মকর্তারা। রুনা বলেন, মাদক বিক্রি তো দূরের কথা, জলিল ধুমপানও করেন না। তাঁকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ফাঁসানো হয়েছে।

জলিলের কয়েকজন সহকর্মী ও এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জলিলের কোনো খারাপ নেশা নেই। তিনি যে মাদকের ব্যবসা করতে পারেন, এটা তাঁরা কল্পনাও করতে পারেন না। খুলনা ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সোহাগ দেওয়ান বলেন, কিছুদিন আগে ওই এলাকার মাদকদ্রব্যের সোর্স টুটুলকে মাদকসহ আটক করে র‌্যাব। জলিল নিজে ওই সংবাদ করেন এবং অন্যান্য পত্রিকায়ও সরবরাহ করেন। পরে টুটুল জামিনে বের হয়ে এসে জলিলকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন।

কোন সোর্স থেকে জলিলের কাছে মাদক থাকার তথ্য পাওয়া গেছে, আর কেন ওই সোর্সকে আটক করা হচ্ছে না জানতে চাইলে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক পারভীন আক্তার। ওই ঘটনায় পারভীন বাদী হয়ে জলিলের নামে সদর থানায় মামলা করেছেন। পরে জলিলকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST