ঘোষনা:
আলোর কণা’ আমাদের ফ্রিতে পড়ায় এজন্য আমি পড়তে পারছি ।

আলোর কণা’ আমাদের ফ্রিতে পড়ায় এজন্য আমি পড়তে পারছি ।

জলঢাকা প্রতিনিধি ,
‘আলোর কণা’ ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী মুনিয়া আক্তার। সে একজন ভ্যান চালকের কন্যা। সাপ্তাহিক বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বরাবরে প্রথম স্থান করে থাকে। আজ শুক্রবার সকালে ‘আলোর কণা’ আয়োজনে কুইজ প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান করে সে অনুভূতি প্রকাশে বলেন,’আলোর কণা’ আমাদের ফ্রিতে পড়ায় এজন্য আমি পড়তে পারছি। স্যাররা আমাদের কাছ থেকে কানা পরিমান টাকাও নেয় না। আজ কুইজ প্রতিযোগিতায় আমি প্রথম হয়েছি। যেখানে আসার মতো আমার সক্ষমতা ছিলো না। এ ধরনের সুযোগ পেয়ে আমি ভালোভাবে পড়তেছি।আমার ইচ্ছা পড়াশোনা করে ডাক্তার হবো। অসহায় মানুষদের সেবা করবো।এর মতো স্বপ্ন দেখে দরিদ্র পরিবারের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী মেধাবী মোনা,চতুর্থ শ্রেণীর তুষিতা,সাকিব হাসান,তৃতীয় শ্রেণীর মিম আক্তার,নুরানি আক্তার,২য় শ্রেণীর ইতি আক্তার,দীপ্তি আক্তার,১ম শ্রেণীর সাব্বির হোসেন,তুষি আক্তারসহ শতাধীক ক্ষুদে শিক্ষার্থী। শুক্রবার সকালে কুইজ প্রতিযোগিতা উপস্থিত ছিলেন,গাবরোল এলাকার সমাজ সেবক জান্নাতুল ফেরদৌস মানিক,এছাহক আলী,প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ফুরাদ হোসেন,আলোর কণার সহকারী শিক্ষিকাগণ প্রমূখ। একটি নির্ভরযোগ্য ও সম্পূর্ণভাবে অরাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন ‘আলোর কণা’। এটি ২০১২ সালে প্রতিষ্ঠা করেন সাদা মনের মানুষ ও কর্ম উদ্যমী ফুরাদ হোসেনসহ একদল যুবক/যুবতী। তাদের চিন্তা-ভাবনা আর মেধায় প্রথমে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলা পৌর শহরের দুন্দিবাড়ী এলাকায় কার্যক্রম শুরু করে।বর্তমানে উপজেলার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছিয়ে পড়া প্রায় ৩৫০ জন শিশুকে ফ্রিতে পাঠদান দিয়ে যাচ্ছে সামাজিক প্রতিষ্ঠানটি। এ প্রতিষ্ঠানের ফ্রি কার্যক্রমের মধ্যে পাঠদান কর্মসূচী,বিভিন্ন প্রতিযোগিতা যেমন কুইজ কুইজ,হাতের লেখা,রচনা,পাঠ্য অভ্যাস,তর্কবিতর্ক,বক্তৃতা ও চিত্রাঙ্কন ইত্যাদি।এতে তারা ক্ষ্যান্ত না তাদের ইচ্ছা আগামী কয়েকদিনের মধ্যে আলোর কণা ফ্রি পাঠদানের আওতায় ৮শত জন ছাত্র/ছাত্রীতে পরিনত করার প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।ইতোমধ্যে ফ্রি পাঠদান কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেছে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক,সমাজ সেবক,বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ,জনপ্রতিনিধি,সাংবাদিকবৃন্দ প্রমূখ।এরা সকলে আলোর কণা সামাজিক প্রতিষ্ঠানের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন। ‘আলোর কণা’ এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ফুরাদ হোসেন বলেন,সকলের আন্তরিকতা আর ভালোবাসায় ‘আলোর কণা’ কে সোনার বাংলাদেশে ছড়িয়ে দিতে চাই। আমাদের উদ্দেশ্য শিক্ষা ব্যবস্থায় আলোর কণার অবদান রাখা। যা আমাদের সমাজে পিছিয়ে পড়া শিশুদের স্কুলমূখী করে শতভাগ শিক্ষা নিশ্চিত হবে। এরপর আমাদের লক্ষ্য উপজেলার প্রত্যেক ইউনিয়নে ‘আলোর কণা’ ফ্রি পাঠদান কেন্দ্র করা। এজন্য সকলের আন্তরিকতার সাথে ‘আলোর কণা’ এর পাশে থাকার আহবান করছি। ‘আলোর কণা’ শিক্ষা ক্ষেত্রে উৎসাহ দেয় মাত্র।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST