ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রামে একদিনে করোনায় হাজার পেরিয়ে শনাক্ত নীলফামারীর সৈয়দপুরে কিশোরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ডিমলায় গাড়ী চালক শ্রমিকদের মাস্ক পড়তে সচেতনতামুলক মতবিনিময় নীলফামারীতে ট্রাকের চাকায় পিষ্টে,নারী পোশাক কর্মীর মৃত্যু চট্টগ্রামে গনধর্ষণের পর হত্যা, মামলায় ১ জনের মৃত্যুদন্ড চট্টগ্রামে দুদকের মামলায় দুই রাজস্ব কর্মকর্তা কারাগারে নীলফামারীতে শীতের তীব্রতায় দুর্ভোগ,সূর্যের দেখা মিলবেনা সারাদিন বাংলাদেশের অগ্রগতির অদম্য গতি কেউ থামাতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী গভীর রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত দুই নীলফামারীতে মাইক্রোবাসের ধাক্কায় শিশু নিহত
দেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন,স্ত্রী সুষমা সিনহাও।

দেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন,স্ত্রী সুষমা সিনহাও।

সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহা ।

ঢাকা প্রতিবেদক,
দেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহা কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন।একই সাথে

আশ্রয় চেয়েছেন তার স্ত্রী সুষমা সিনহাও। গত ৪ জুলাই এ দম্পতি দেশটিতে গিয়ে শরণার্থী হিসেবে আবেদন করেন। কানাডার টরন্টো থেকে প্রকাশিত পত্রিকা কোরিয়েরে কানাদিজ (দ্য কানাডিয়ান কুরিয়ার) এ খবর দিয়েছে। এর আগে এস কে সিনহা যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় চাইলেও তার স্ত্রী সুষমা সে আবেদন করেননি।কানাডিয়ান ‍কুরিয়ারের প্রতিবেদনে বলা হয়, সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা ভারতীয় উপমহাদেশের এক উত্তাল সময়ে বেড়ে উঠেছেন। সেখানে তিনি যেমন দেখেছেন বিদেশি দখলদারি; তেমনি দেখেছেন স্থানীয়, জাতিগত ও ধর্মীয় বিভেদ।বাংলাদেশের রাজনৈতিক কাঠামোর বর্ণনা দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া এখনো অতটা পরিপক্ব নয় বিধায় আইনসভা, নির্বাহী ও বিচার বিভাগ এখনো পুরোপুরি পৃথক হতে পারেনি। ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি এস কে সিনহা সংখ্যালঘু সম্প্রদায় থেকে প্রথম প্রধান বিচারপতি হন উল্লেখ করে ঢাকার দু’টি পত্রিকার বরাত দিয়ে বলা হয়, ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে এস কে সিনহার গ্রামের বাড়িতে আগুন দেওয়ার চেষ্টা হয়। কানাডিয়ান ‍কুরিয়ারের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়, আপিল বিভাগে পদোন্নতি পাওয়ার পর থেকেই সরকারের বিভিন্ন শাখার পূর্ণাঙ্গ পৃথকীকরণ, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, আইনের শাসন প্রয়োগ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করেন এস কে সিনহা। এর পর থেকেই তিনি সরকারের রোষানলে পড়েন। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হলে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে এস কে সিনহার সঙ্গে ক্ষমতাসীনদের বিরোধ প্রকাশ্যে আসে। ওই রায়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি অপসারণে পার্লামেন্টের ক্ষমতা বাতিল করা হয়। এরপর সরকারপক্ষ থেকে সিনহার বিরুদ্ধে আক্রমণ শুরু হলে একপর্যায়ে তিনি ছুটিতে যান। ২০১৭ সালের ১৭ নভেম্বর সিনহা বিদেশ থেকে পদত্যাগপত্র দাখিল করেন। বাংলাদেশ থেকে প্রথমে সিঙ্গাপুরে যান সিঙ্গাপুরে যান সিনহা। এরপর অস্ট্রেলিয়া হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যান তিনি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST