ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই নীলফামারীর জলঢাকায় খাসজমি দখল করে পাকা ঘর ণির্মান নীলফামারীতে র‌্যাবের অভিযানে ফেন্সিডিলসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৮ জনের মৃত্যু
সংসদে আইনমন্ত্রী ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলের ৩৭৮টি এখনো চালু

সংসদে আইনমন্ত্রী ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলের ৩৭৮টি এখনো চালু

জিপি ডেস্ক ঃ

ব্রিটিশ ও পাকিস্তান আমলে তৈরি ৩৭৮টি আইন এখনো বাংলাদেশে চালু রয়েছে। আজ সোমবার জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ তথ্য জানান।

সরকারি দলের সাংসদ মাহফুজুর রহমানের এ-সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, বহাল থাকা প্রথম আইনটি ১৭৯৯ সালে প্রণীত। আইনটির নাম দ্য উইলস অ্যান্ড ইনটেসটেসি রেগুলেশন। এই তালিকার সর্বশেষ আইনটি প্রণীত হয় ১৯৭০ সালে। এই আইনের নাম দ্য গভর্নমেন্ট অ্যান্ড লোকাল অথরিটি ল্যান্ডস বিল্ডিং।

আইনমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার আগে আগে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে প্রযোজ্য সব আইনকে ওই বছরের ১০ এপ্রিল জারি করা প্রকলামেশন অব ইন্ডিপেনডেন্সের বিধান সাপেক্ষে অব্যাহত রাখা হয়। অব্যাহত থাকা ওই আইনগুলোতে পরে সংবিধানের ১৪৯ অনুচ্ছেদ দ্বারা হেফাজত করা হয়েছে। ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশে ল’স প্রণয়নের মাধ্যমে স্বাধীনতার আগের আইনগুলোকে প্রয়োজনীয় সংশোধন ও অভিযোজনপূর্বক বহাল রাখা হয়েছে।

দেশের প্রচলিত আইনের সংস্কার, সংশোধন ও আধুনিকীকরণ চলমান প্রক্রিয়া উল্লেখ করে আনিসুল হক বলেন, বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে প্রচলিত আইনের সংস্কার, সংশোধন ও আধুনিকীকরণ হয়ে থাকে। এ লক্ষ্যে অচল আইনগুলো বাতিল, প্রচলিত আইনগুলোর পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও যুগোপযোগী সংস্কার, ক্ষেত্রমতে নতুন আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বা আইন কমিশন আইন সংশোধন বা বাতিল করে নতুন আইন প্রণয়নের সুপারিশ করলে সরকার সে ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, দেশের ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালে (৩১ ডিসেম্বর ২০১৮) বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ২ লাখ ৯৪ হাজার ৪০৮টি।
শামসুল হক টুকুর প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, দেশে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা (৩১ ডিসেম্বর ২০১৮) ৩৫ লাখ ৬৯ হাজার ৭৫০টি। এর মধ্যে উচ্চ আদালতে ৫ লাখ ৩৭ হাজার ৯৪টি ও নিম্ন আদালতে ৩০ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৬টি। মোট মামলার মধ্যে দেওয়ানি ১৪ লাখ ২৯ হাজার ৮৬১টি, ফৌজদারি ২০ লাখ ৪৮ হাজার ৬৭ এবং অন্যান্য ৯১ লাখ ৮২২টি।
প্রশ্নোত্তরের আগে বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়। প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।সূত্র ঃ প্রথম আলো





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST