ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে দ্বীপ্তমান মানবউন্নয়ন ও সমাজকল্যাণ সংস্থার আলোচনা সভা ও মাক্স বিতরন সাতক্ষীরা এক প্রকৌশলীর বাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতি, ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকাসহ বিভিন্ন মালামাল লুট চট্টগ্রাম গণহত্যা দিবস আজ দেশে স্বাধীনতা রক্ষা ও গণতন্ত্র সমুন্নত রাখতে কাজ করার জন্য পুলিশ সদস্যদের প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে শিক্ষক সমিতির দাবি কুড়িগ্রাম সদর থানার উপ-পরিদর্শকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরওয়ানা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে মৃত্যু ৩ চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৯৮৯ জন,সংক্রমণের হার ৩৯ দশমিক ৯৫ বিজিবি ঠাকুরগাঁও সেক্টর আন্তঃ ব্যাটালিয়ন ভলিবল প্রতিযোগিতা-২০২২ এর উদ্বোধন নীলফামারীতে গ্রামের বিভিন্ন রাস্তাঘাট উন্নয়নে মাটি কাটার কাজ করছে,১৩ হাজার ৫৫১ জন শ্রমিক
গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতাল পল্লীর হামলার ঘটনায় প্রায় আড়াই বছর পর চার্জশীট দাখিল পিবিআইর । 

গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতাল পল্লীর হামলার ঘটনায় প্রায় আড়াই বছর পর চার্জশীট দাখিল পিবিআইর । 

ফাইল ছবি ।
কামরুল  হাসান , গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ
গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতাল পল্লীর হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও হত্যা মামলায় ৯০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

আজ রোববার(২৮ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গোবিন্দগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল হাই সরকার।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল হাই সরকার জানান, সাঁওতাল পল্লীতে হামলা মামলার তদন্ত শেষে ৯০ জনকে অভিুযক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়। ঘটনার রহস্য উন্মোচন ও সঠিক তদন্ত শেষ করতে সময় লাগে প্রায় আড়াই বছর। সঠিক তদন্ত ও মুল আসামিদের আইনের আওতায় আনতেই চার্জশীট দাখিলে কিছুটা সময় লেগেছে। এরআগে, মামলাটির তদন্ত কার্যক্রমের পাশপাশি অভিযুক্তদের মধ্যে ২৫ জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া লুটপাট হওয়া বেশকিছু মালামালও উদ্ধার করা হয়।

চার্জশীটে অভিযুক্ত ৯০ আসামির মধ্যে উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন, মাহিমাগঞ্জ সুগার মিলের (জিএম-অর্থ) নাজমুল হুদা, সাপমারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাকিল আহম্মেদ বুলবুল, ইউপি সদস্য শাহ আলম ও আইয়ুব আলী। অভিযুক্ত আসামিদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৫ জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠালেও তারা সকলেই জামিনে আছেন।

উল্লেখ্য, সাঁওতাল ও বাঙালিদের এক হাজার ৮৪০ দশমিক ৩০ একর জমি ১৯৬২ সালে অধিগ্রহণ করে গোবিন্দগঞ্জের মহিমাগঞ্জস্থ রংপুর চিনিকল কর্তৃপক্ষ সাহেবগঞ্জ ইক্ষু খামার গড়ে তোলে। কিন্তু চিনিকল কর্তৃপক্ষ ওইসব জমি লিজ দিলে তাতে ধান-পাটসহ বিভিন্ন ফসলের চাষ হয়। ফলে ২০১৫ সালে সাঁওতাল ও স্থানীয় কিছু বাঙ্গালি অধিগ্রহণের চুক্তি ভঙ্গের অভিযোগে তাদের পূর্বপুরুষদের জমি ফেরত পেতে আন্দোলন শুরু করে। এক পর্যায়ে ২০১৬ সালের ১ জুলাই ওই খামারের কিছু এলাকায় তারা চারটি বড় বসতি স্থাপন করে। পরে একই বছরের ৬ নভেম্বর ওই খামারের জমিতে আখ কাটাকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও চিনিকল শ্রমিক কর্মচারীদের সঙ্গে সাঁওতালদের দফায় দফায় সংঘর্ষে পুলিশসহ উভয় পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে ৯ জন পুলিশ সদস্য তীরবিদ্ধ ও চার জন সাঁওতাল গুলিবিদ্ধ হন। তাদের মধ্যে তিন জন সাঁওতাল মারা যান। পরবর্তীতে পুলিশ এক অভিযানে ওই বসতি থেকে সাঁওতালদের উচ্ছেদ করে।

এইসব ঘটনায় সাঁওতালদের পক্ষে স্বপন মুরমু বাদি হয়ে ২০১৬ সালের ১৬ নভেম্বর ৬০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি দেখিয়ে মামলা করেন। পরে ২৬ নভেম্বর থোমাস হেমরম বাদি হয়ে সাপমারা ইউপি চেয়ারম্যান বুলবুল আহম্মেদসহ ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে এবং ৫০০ থেকে ৬০০ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে আরেকটি মামলা করেন।

ছবিঃ ২০১৬ সালের সাওতাল পল্লীতে আগুনের চিত্র





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST