ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুলিশ সুপারের সাথে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মতবিনিময় নীলফামারীতে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ হয়েছে। ডিমলায় কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভা নীলফামারীতে ডিজি কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুল রিপোর্ট প্রদান, সিভিল সার্জনের কাছে লিখিত অভিযোগ। সাফের ইতিহাসে নতুন ইতিহাস গড়লেন সাবিনা কৃষ্ণারা ডিমলায় সড়ক দূঘর্টনায় ভিক্ষুকের মৃত্যু নীলফামারীতে চিরকুট লিখে আত্মহত্যা-স্বামী-সহ ৪ জনের নামে মামলা,স্বামী গ্রেফতার নীলফামারী সৈয়দপুরে পরিবারের অত্যাচারে সুইসাইড নোট লিখে গৃহবধূর আত্নহত্যা নীলফামারীতে বহুল প্রচারিত যুগের আলো পত্রিকার ৩০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। ডিমলায় সাংবাদিককে পেটালেন শিক্ষক স্বদেশ
নীলফামারীতে দাদনের টাকা না দেওয়ায় মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন ।

নীলফামারীতে দাদনের টাকা না দেওয়ায় মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন ।

স্টাফ রির্পোটার ,
জেলার ডোমারে দাদনের টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ময়নুল ইসলাম নামে এক ব্যাক্তিকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার পাঙ্গা মটুকপুর ইউনিয়নের মৌজা পাঙ্গার স্কুলপাড়ার ৩নং ওয়ার্ডে বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী ময়নুলের স্ত্রী ফিরোজা বেগম।
অভিযোগে জানাযায়, উপজেলার পাঙ্গা মটুকপুর ইউনিয়নের স্কুল পাড়ার মোঃ ময়নুল ইসলাম তার প্রতিবেশী মৃতঃ তছলিম উদ্দিনের ছেলে মোজা(৩৫) এর নিকট গত দুই বছর আগে ৬০ হাজার টাকা হাওলাদ হিসেবে নিয়ে সময়মত পরিশোধ করে দেয়। টাকা পরিশোধের পর হতে মোজা ঐ টাকার সুদ বাবদ আরো ৬০ হাজার টাকা দাবী করে ময়নুলের কাছে। ময়নুল সুদের টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা প্রতি নিয়ত ময়নুলের পরিবারের সাথে বিরোধ করতে থাকে। এরেই সুযোগে ময়নুল ইসলাম বৃহস্পতিবার সকালে ইট ক্রয়ের উদ্দেশ্যে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা নিয়ে বাড়ী হইতে বের হলে মোজা মোবাইল ফোনে ময়নুলকে বাড়ীতে ডেকে নেয়। ময়নুল তাদের বাড়ীতে গেলে মোজা ও তার স্ত্রী বানু বেগম (২৮) সুদের ৬০ হাজার টাকা কবে দিবে জানতে চাইলে ময়নুল বলে আমি হাওলাদ নিয়েছে টাকা সেই টাকা শোধ করে দিয়েছি আমি কোন সুদের টাকা দিতে পারবো না জানালে, মোজা ও তার স্ত্রী ক্ষিপ্ত হয়ে ময়নুলকে বাঁশের লাঠি দিয়ে মারডাং করতে থাকে এবং তার কাছে থাকা ১ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা জোর পুর্বক বের করে নেয়। এ সময় ময়নুল বেসামাল হয়ে পরলে মোজা ও তার স্ত্রী মধ্যযুগীয় কায়দায় ময়নুলের দুইহাত বেধে গাছের সাথে ঝুলিয়ে নির্যাতন করতে থাকে। এ সময় ময়নুলের চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। বর্তমানে ময়নুলের পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় দিন যাপন করছে বলে জানিয়েছেন ফিরোজা বেগম। এ ব্যাপারে মোজার সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে ফোন বন্ধ থাকায় তার মন্তব্য জানা যায়নি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST