ঘোষনা:
৩ দফা দাবী পুরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। কিশোরগঞ্জে নয়ালখাল স্কুল এন্ড কলেজে তালা ঝুলিয়েছে শিক্ষার্থীরা

৩ দফা দাবী পুরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। কিশোরগঞ্জে নয়ালখাল স্কুল এন্ড কলেজে তালা ঝুলিয়েছে শিক্ষার্থীরা

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) প্রতিনিধি ,

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার নয়ালখাল স্কুল এন্ড কলেজে  ৩ দফা দাবী আদায়ের লক্ষে অধ্যক্ষ ও শিক্ষক কমনরুমে তালা ঝুলিয়েছে আন্দোলনরত কলেজ শাখার শিক্ষার্থীরা।আজ শনিবার সকালে স্কুল ও কলেজের সাধারন ছাত্র/ছাত্রীরাদের বিভিন্ন দাবির মধ্যে ৩টি জোরালো দাবি তুলে আন্দোলনের ডাক দেয়। দাবি গুলোর মধ্যে শিক্ষার্থীদের নিয়ে নিয়মিত ক্লাশ না করা, কমনরুম,টয়লেটের অ-ব্যবস্থাপনা ও শ্রেণিকক্ষে বৈদ্যুতিক পাখা চালু না করায় ওই কলেজের শিক্ষার্থীরা তালা ঝুলিয়েছে অধ্যক্ষ ও শিক্ষক কমনরুমে। এই ৩ দফা দাবী পুরণ না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।


শিক্ষার্থীদের দাবি-উচ্চতর গণিত, জীববিজ্ঞান, কৃষিশিক্ষা, যুক্তিবিদ্যা ও আইসিটি বিষয়ে এ বছরে কোন ক্লাশ নেয়া হয়নি। উল্লেখিত বিষয়গুলোর এখনো পাঠদান না দেয়ায় ওই শিক্ষার্থীরা ভবিষ্যত অন্ধকার দেখছে। এ ব্যাপারে দ্বাদশ শ্রেণির মানবিক বিভাগের ছাত্র মোঃ মধু মিয়া জানান, আমাদের কয়েকটি বিষয়ে এখনো পাঠদান শুরুই করা হয়নি। আমাদের ৩ দফা দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।


শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, ওই কলেজের জীববিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষক নূর আলম যোগদান করার পর থেকে এ পর্যন্ত তিনি কলেজে পাঁ রাখেননি।
একাদশ শ্রেণীর মানবিক শাখার ছাত্র (রোল ৩১) মোরছালিন জানায়, নয়ালখাল স্কুল এন্ড কলেজে অনিয়মিত ৩ জন শিক্ষার্থীসহ একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীতে মোট ৯১জন ছাত্র-ছাত্রীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
একই শ্রেণীর তরিকুল ইসলাম জানায়,আমাদের নিয়মিত পাঠদানের বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতিকে অনেকদিন ধরে অভিযোগ দিয়ে আসছি। কিন্তু তারা আমাদের কোন অভিযোগ আমলে নেয়নি।


ছাত্রনেতা খোকন মিয়া জানায়,আমরা সবাই এসএসসি পরীক্ষায় ওই স্কুল শাখা থেকে পাশ করেছি। আমাদের অভিভাবক ও আমাদেরকে না জানিয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ রাতারাতি অনলাইন ফরম পূরণ করে ভর্তি দেখিয়েছে। ফলে ভাল কলেজে ভর্তি হওয়ার সুযোগ কেড়ে নেয়া হয়েছে ছাত্র/ছাত্রীদের। কলেজের অধ্যক্ষ জলিলুর রহমান জানান,কলেজ শাখাটি ২০১৩ সালে পাঠদানের অনুমতি লাভ করে। এখনও কলেজ শাখাটি এমপিও ভুক্ত না হওয়ায় শিক্ষকরা নিয়মিত উপস্থিত নেই বলে তিনি স্বীকার করেন।
স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও বাহাগিলী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান শাহ্ দুলু বলেন,এক সপ্তাহের মধ্যে কমিটির সদস্যদের নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবীর বিষয় বিবেচনা করা হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST