ঘোষনা:
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে পবিত্র ঈদ-উল ফিতরের আগে সরকারী আর্থিক সহায়তা না পাওয়ার শংকায়  সুবিধাভোগীরা। নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে ইফতার কিনতে যাওয়া হলনা শরিফুদ্দিনের । ডোমারে শিক্ষার্থীদের জন্য অভিভাবকদের মাঝে খাবার বিতরণ। যশোরের বেনাপোল কাস্টমস হাউস দেশের প্রথম ডিজিটাল কাস্টমস হাউসে উন্নীত। স্বেচ্ছাসেবক লীগের ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্যদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান। করোনা কালীন পরিস্থিতি ও পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দুই শতাধিক অসহায় পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ। কিশোরগঞ্জে সিটিজেন চার্টার না থাকায় মৎস্য চাষীরা সেবা বঞ্চি। নীলফামারীতে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা ইফতার উপহার পেলেন অসহায় ও দরিদ্র মানুষ। নীলফামারীতে ভুল চিকিৎসায় পঙ্গু জাহিদুল, পরিবার বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা। চট্টগ্রামে করোনায় আরো ৫ জনের মৃত্যু ।
আমি পুরোপুরি একজন শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছি,জেলা প্রশাসক ঠাকুরগাও ।

আমি পুরোপুরি একজন শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছি,জেলা প্রশাসক ঠাকুরগাও ।

ঠাকুরগাও জেলা প্রতিনিধি ,
সভা-সমাবেশ, গণশুনানির পাশাপাশি দাপ্তরিক কাজ শেষে খুব একটা সময় পাওয়া যায় না। এর মধ্যেই একটু সময় পেলেই তিনি ছুটে যান জেলার কোনো বিদ্যালয়ে। ক্লাস নিয়ে ফিরে এসে মন দেন নিজের কাজে। তিনি ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসক (ডিসি) কেএম কামরুজ্জামান সেলিম। আজ বুধবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে ডিসি কেএম কামরুজ্জামান সেলিমের দেখা মেলে ঠাকুরগাঁও শহরের কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল ও কলেজের একটি শ্রেণি কক্ষে। সেখানে তিনি নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের রসায়নের ‘রাসায়নিক বিক্রিয়া’ অধ্যায়টি পড়াচ্ছিলেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেল, জেলা প্রশাসক ওই বিদ্যালয়ে রসায়নের ক্লাস নেন।

কেএম কামরুজ্জামান সেলিম ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর ঠাকুরগাঁওয়ে জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগ দেন। যোগদানের পরপরই তিনি জেলার বিভিন্ন দপ্তর পরিদর্শনের পাশাপাশি নিয়মিত প্রাথমিক, মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন শুরু করেন। পথে কোনো বিদ্যালয় পেলে তিনি সেখানে নেমে পড়েন। শিক্ষক-শিক্ষার্থীর খোঁজ-খবর নেন। কোনো কোনো সময় শ্রেণিকক্ষে ঢুকে ক্লাস নেন।
বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল ও কলেজে পরিদর্শনে এসে জেলা প্রশাসক রসায়নের ওপর শিক্ষার্থীদের আরও জোর দেওয়ার বিষয়টি অনুভব করেন। সেই অনুভব থেকেই কামরুজ্জামান সেলিম রসায়ন শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলে পাঠ্যসূচির কয়েকটি অধ্যায় ভাগাভাগি করে শুরু করেন পাঠদান। সেই থেকে তিনি সময় বের করে চলে আসেন বিদ্যালয়ে। পাঠদান সেরে ফিরে যান পেশাগত কাজে।
আজ কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল ও কলেজে কুশল বিনিময় শেষে ডিসি কামরুজ্জামান সেলিম গত পাঠের বিষয়ে শিক্ষার্থীদের অগ্রগতি যাচাই করেন। এরপর তিনি শুরু করেন রাসায়নিক বিক্রিয়ার পাঠ। পাঠ শেষে কথা হয় বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অদিতি রায়ের সঙ্গে। সে বলে, ‘রসায়ন একটা জটিল বিষয়। আমি রসায়নকে খুব ভয় পাই। কিন্তু স্যার রসায়নকে সহজেই বুঝিয়েছেন। মাঝেমধ্যে তিনি আমাদের পড়ালে রসায়নে দুর্বলতা কেটে যাবে।’ রসায়ন বিষয়ের শিক্ষক হারুন আর রশিদ বলেন, ‘ডিসি স্যারের পাঠদান-কৌশল না দেখলে বঞ্চিত হতাম। তাঁর কাছ থেকে পাঠদানের অনেক কিছু শেখার রয়েছে। সুযোগ পেলেই আমি স্যারের ক্লাসে ছাত্র হয়ে বসে পড়ি।’ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ নলিনী মোহান্ত বলেন, ‘ডিসি মহোদয় এই প্রতিষ্ঠানের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের রসায়ন বিষয়ে নিয়মিত ক্লাস নিচ্ছেন। তিনি ক্লাস শুরু করার পর থেকে শিক্ষার্থীদের ব্যাপক উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে।’ জেলা প্রশাসক কেএম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, ‘আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফলিত রসায়ন ও রাসায়নিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেছি। আমি মনে করি বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের রসায়ন বিষয়ে দক্ষ হওয়া ছাড়া ভালো ফল করার উপায় নেই। তাই কোনো বিদ্যালয়ে গেলে রসায়ন বিষয়ে পাঠদানের এ সুযোগ হাতছাড়া করি না। আর কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল ও কলেজে আমি পুরোপুরি একজন শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছি। এতে নিজের ভালো লাগার পাশাপাশি রসায়ন বিষয়ে পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের উপকার হবে বলে মনে করি।’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST