ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুড়ে ছাই পাঁচটি দোকান তিস্তার চরে গম চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের নীলফামারীতে উগ্রবাদ, জঙ্গি বাদ দমনে পাঁচ দিন ব্যাপী সচেতনতামূলক সেমিনার শুরু সক্ষম সকলকে কর প্রদানের আহবান প্রধানমন্ত্রীর রংপুর বিভাগীয় গন সমাবেশে নীলফামারী উপজেলা বিএনপি স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ  নীলফামারীর জলঢাকায় স্কুল বন্ধে নিমিসেই নিয়োগ শেষ, সভাপতির বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ দেশ পাকিস্তান হবে নাকি মালয়েশিয়া- সিঙ্গাপুর, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
কক্সবাজারের টেকনাফে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) গুলিতে ‘ইয়াবা পাচারকারী’ নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) গুলিতে ‘ইয়াবা পাচারকারী’ নিহত

টেকনাফ প্রতিনিধি ॥

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) গুলিতে দুজন নিহত হয়েছেন। বিজিবির দাবি, মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালান নিয়ে আসার সময় ওই দুজন বিজিবির গুলিতে নিহত হন। নিহত ব্যক্তিদের পোশাক দেখে বিজিবির ধারণা করছে, তাঁরা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা।আজ বুধবার ভোররাত সাড়ে চারটার দিকে টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের খারাংখালীর নাফ নদীসংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

টেকনাফ ২ বিজিবির ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর শরীফুল ইসলাম জোমাদ্দার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বিজিবির ভাষ্য, নিহত পাচারকারীদের কাছে ১ লাখ ৯০ হাজার ইয়াবা পাওয়া গেছে। নিহত ব্যক্তিদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে তাঁদের পরনে থাকা টি–শার্ট, হাফপ্যান্ট ও লুঙ্গি দেখে ধারণা করা হচ্ছে, তাঁরা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা।

টেকনাফ ২ বিজিবির ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর শরীফুল ইসলাম জোমাদ্দার বলেন, আজ ভোররাতে টেকনাফের হোয়াইক্যং এলাকায় দিয়ে নাফ নদী সাঁতরে মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালান নিয়ে দুই পাচারকারী বাংলাদেশে ঢোকেন। এ সময় পাচারকারীরা বিজিবির টহল দলের উপস্থিতি টের পেয়ে বেড়িবাঁধ দিয়ে পালানোর চেষ্টা চালান। তাঁদের থামানোর জন্য বিজিবির টহল দল সংকেত দেয়। তবে সংকেত অমান্য করে তাঁরা পালাতে গেলে বিজিবি গুলি করে। মরদেহ দুটির সঙ্গে থাকা ব্যাগ থেকে ১ লাখ ৯০ হাজার ইয়াবা পাওয়া যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশ দুটি উদ্ধার করেছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এ প্রসঙ্গে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ প্রথম আলোকে বলেন, গুলিবিদ্ধ অজ্ঞাতনামা লাশ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। মরদেহে একাধিক গুলির চিহ্ন রয়েছে। লাশের কোনো পরিচয় পাওয়া না গেলে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত বছরের ৪ মে দেশব্যাপী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিশেষ মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয়। এ অভিযানে র‍্যাব-পুলিশ-বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধ ও এলাকায় মাদকের প্রভাব বিস্তারের ঘটনায় কক্সবাজার জেলায় ৭১ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১০ জন রোহিঙ্গাসহ শুধু টেকনাফে ৫০ ও উখিয়ায় ২ জন নিহত হয়েছেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST