ঘোষনা:
শিরোনাম :
ডোমারে সন্ত্রাসী হামলার স্বীকার প্রতিবন্ধী পরিবার, মামলা তুলে নেওয়ার হুমকী প্রদান নীলফামারীতে জাতীয় দক্ষতামান বেসিক ট্রেড কোর্সকে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডে চলমান রাখার দাবীতে মানববন্ধন। নীলফামারীতে দূর্গা পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন রংপুর বিভাগীয় কমিশনার। ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার নবীনগে দেশের অন্যতম মূর্তি তৈরী ও বিকিকিনি নীলফামারী সার্কেল অফিস এবং পুলিশ সুপার কার্যালয় পরিদর্শন নীলফামারী কমিটির পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক খাগড়াছড়িতে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে ২ যুবক আটক নীলফামারীতে পুলিশ সুপারের সাথে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মতবিনিময় নীলফামারীতে সামাজিক-সম্প্রীতি সমাবেশ হয়েছে। ডিমলায় কৃষক সমাবেশ ও আলোচনা সভা
কিশোরগঞ্জে বিদ্যায়ল মেরামত কাজের টাকা আত্তসাৎ ।

কিশোরগঞ্জে বিদ্যায়ল মেরামত কাজের টাকা আত্তসাৎ ।

 

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী)প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মুশরুত পানিয়াল পুকুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরোদ্ধে মেরামত কাজের টাকা ও বিদ্যালয় ভিত্তিক উন্নয়ন কাজের টাকা আত্তসাতের অভিযোগ করেছে এলাকাবাসি। তারা উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ঠ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছে।
মুশরুত পানিয়াল পুকুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০১৮-১৯অর্থ বছরে বিদ্যালয় মেরামত কাজের জন্য ১লাখ ৫০ হাজার টাকা ও বিদ্যালয় ভিক্তিক উন্নয়ন কাজের জন্য ৭০হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন শুধু রংকরণ করে বরাদ্দের সমুদয় টাকা আতœসাৎ করেন। গত বুধবার বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় প্রধান শিক্ষক জানালা মেরামত,বাবান্দা মেরামত, ফুলের বাগান প্লাষ্টার ও রংকরণ, ৪টি কক্ষ রংকরণ ও ওয়াশ বøক রংকরণসহ ৮ প্রকার কাজের বিবরন ওয়ালে ঝুলে রেখেছেন। কিন্তু এসব কাজের রিপরিদে কত টাকা তিনি খরচ করে করেছেন এর হিসাব তিনি দিতে পারেননি। তালিকায় বারান্দা মেরামতে কথা বলা হলেও দেখা গেছে বারান্দার ৩থেকে ৪টি স্থানের ফাটলে শুধু সিমেন্ট বালু দিয়ে ফাটল বন্দ করা হয়েছে।এদিকে বিদ্যালয় ভিক্তি উন্নয়ন কাজের কোন প্রকার মালামাল ক্রয় না করে তিনি বরাদ্দের টাকা আতœসাৎ করেছেন।
এলাকাবাসি পক্ষে আজহারুল ইসলাম, মতিয়ার রহমান , রুবি বেগম, মনোয়ার হোসেন, জিকরুল হকসহ ১৩জন ব্যাক্তি ওই প্রধান শিক্ষকের বিরোদ্ধে কাজ না করে বরাদ্দের টাকা আতœসাৎ করার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তর লিখত অভিযোগ করেন। তারা বলেন বিদ্যায়ল ভিত্তিক উন্নয়ন কাজের ডিজিটাল হাজিরা মেশিনের জন্য শুধু ২০হাজার টাকা ব্যাংকে জমা রয়েছে।
প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন বলেন আমার কাজে আমার কতৃপক্ষ খুশি। তদারকি ইঞ্জিনিয়ারও প্লিস্ট। কে কি অভিযোগ করলো এটা আমার দেখার বিষয় নয়।উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শরীফা আক্তার বলেন কাজে ফাঁকি দিয়ে থাকলে পুনরায় কাজ করে নেয়া হবে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST