ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীর সৈয়দপুর নির্বাচনে কাউন্সিলর সমর্থক নিহত,১আহত-২। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌর নির্বাচন থেকে জাপা প্রার্থীর ভোট বর্জন। দীর্ঘ এক বছর পর ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরু,শিক্ষামন্ত্রী। চট্টগ্রামে সমন্বয়ের অভাবে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হচ্ছে না, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, তাজুল ইসলাম । খুলনার মহাসমাবেশে শ্লোগান,এক সংগ্রাম, এক ডাক, আওয়ামী লীগ সরকার নিপাত যাক। বদরগঞ্জে একঝাঁক তরুন তরুনীদের প্রচেষ্টায় বদরগঞ্জে বি-বাজারের যাত্রা শুরু। বদরগঞ্জে শয়নকক্ষে শিক্ষার্থীর গলাকাটা মরদেহ : হত্যা নাকি আত্মহত্যা। জলঢাকায় গাঁজা কেনাবেচা কালে মা-ছেলেসহ আটক-৩। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় প্রথমবার ইভিএমে ভোট।সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে প্রশাসন। কিশোরগঞ্জে জাপা কর্মীর জানাজা সম্পন্ন ।
খুলনা কর অঞ্চলের চার বিভাগে সেরা ৭৭ জন করদাতাকে সম্মাননা ।

খুলনা কর অঞ্চলের চার বিভাগে সেরা ৭৭ জন করদাতাকে সম্মাননা ।

খুলনা প্রতিবেদক,
খুলনা কর অঞ্চলের চার বিভাগে সেরা ৭৭ জন করদাতাকে সম্মাননা দেওয়া হয়েছে।আজ বুধবার দুপুরে খুলনা নগরের একটি অভিজাত হোটেলে ওই সম্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে খুলনা কর অঞ্চল কার্যালয়। খুলনা বিভাগের ১০ জেলা ও খুলনা সিটি করপোরেশন নিয়ে গঠিত ।২০১৮-১৯ করবর্ষে সর্বোচ্চ করদাতা, তরুণ করদাতা, নারী করদাতা এবং দীর্ঘ সময় করদাতা—এই চার বিভাগে সম্মাননা দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক বলেন, দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির জন্য সময়মতো এবং সঠিক নিয়মে কর প্রদানের কোনো বিকল্প নেই। ১৬ কোটি মানুষের দেশে কেবল ২৫ লাখ মানুষের কর দেওয়ার বিষয়টি সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। সময়মতো কর দিলে দেশের উন্নয়নও সঠিক সময়ে হবে। দেশের জাতীয় বাজেটের ৯০ শতাংশের জোগান দেয় দেশের মানুষ। দেশের সবাই ইতিবাচক মানসিকতা নিয়ে দেশের স্বার্থে ও আগামী প্রজন্মের কথা ভেবে কর দিলে দেশ সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাবে।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০১৮-১৯ করবর্ষে খুলনা কর অঞ্চলে ২ হাজার ৪০০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে, যা আগের বছরের চেয়ে ৩২ শতাংশ বেশি। ২০১৯-২০ অর্থবছরে কর আদায়ের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা ২ হাজার ৮৪০ কোটি টাকার বিপরীতে প্রথম প্রান্তিকেই ৬২৯ কোটি টাকা আদায় করা হয়েছে। যা প্রথম চার মাসের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় ১৫ শতাংশ বেশি। ২৪ হাজার নতুন করদাতা শনাক্তকরণ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ইতিমধ্যে ৩৪ হাজারের বেশি নতুন করদাতা টিআইএন নিবন্ধন গ্রহণ করেছেন। এ নিয়ে খুলনা কর অঞ্চলের মোট টিআইএনধারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৩ লাখ ৬৫ হাজার। অনুষ্ঠানে আরও জানানো হয়, ১৪ থেকে ২০ নভেম্বর খুলনা বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে সাত দিনব্যাপী আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হবে। রিটার্ন জমা, নতুন টিআইএন গ্রহণ, ব্যাংকের বুথসহ সংশ্লিষ্ট সব সেবা মেলার স্টলেই মিলবে।
খুলনা কর অঞ্চলের কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা-৪ আসনের সাংসদ আব্দুস সালাম মুর্শেদী, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (মূসক নীতি) আবদুল মান্নান শিকদার, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, খুলনা কাস্টমস, এক্সসাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের কমিশনার মো. মোস্তবা আলী, খুলনা কর আপিল অঞ্চলের কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম ও খুলনা শিল্প ও বণিক সমিতির সভাপতি কাজী আমিনুল হক। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন খুলনা কর অঞ্চলের অতিরিক্ত কর কমিশনার অঞ্জন কুমার সাহা।
সম্মাননাপ্রাপ্ত করদাতারা হলেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মো. আবু বকর শেখ, সৈয়দ আবু নাসের, খান সাইফুল ইসলাম, মো. আবদুল হামিদ সরদার, এস এম মনিরুজ্জামান, কাজী সানোয়ার হোসেন ও সাবিত্রী আগরওয়ালা। খুলনা কর সার্কেলের মো. আবদুল মজিদ সানা, মো. আনোয়ার ইকবাল, জিয়াউল আহসান, মো. শামীম আহসান, শেখ ইবাদত হোসেন, মো. নূর-এ-আলম সিদ্দিকী ও লায়লা আকতার। সাতক্ষীরা কর সার্কেলের বিশ্বজিৎ সাধু, মো. আবু হাসান, মো. আক্কাজ আলী, মো. আশিকুর রহমান, দীপংকর কুমার ঘোষ, গোলাম আকবর ও নিলুফা ইয়াসমিন। বাগেরহাট কর সার্কেলের গৌর চন্দ্র সাহা, লিপিকা রানী দাস, রাম কৃষ্ণ বসু, মো. মোস্তাফিজুর রহমান, মীর রহমত আলী, মো. এখলাছুর রহমান ও পপি আক্তার। যশোর কর সার্কেলের মো. গোলাম মোরশেদ, মো. আনছারী হোসেন, নিমাই চন্দ্র দত্ত, মো. নূর হোসেন, আবু নাসের সরকার, মো. তৌফিকুর রহমান ও রাফফাত আরা ডলি। কুষ্টিয়া কর সার্কেলের মো. ইবাদত আলী, মো. মজিবর রহমান, মো. মফিদুল ইসলাম খান, মো. পারভেজ রহমান, সেলিমা বেগম, মো. জিয়াউল হক ও পারভীন রহমান। মাগুরা কর সার্কেলের খোন্দকার আমির হোসেন, মো. শাহীনুর রহমান, মো. সামছুল হক, মকবুল হাসান, মো. মেহেদী হাসান, মো. ফয়সাল আহাম্মেদ ও ডা. সুপর্ণা আহমেদ। নড়াইল কর সার্কেলের মো. হুমায়ুন কবীর, এম এম রেজাউল আলম, আজিজুর রহমান ভুঁইয়া, মো. ওয়াহিদুজ্জামান, জাহিদুল ইসলাম, মো. ইমদাদুল ইসলাম ও উম্মে রেজওয়ানা। ঝিনাইদহ কর সার্কেলের সৈয়দ শাহজাহান আলী, মো. মিজানুর রহমান, মো. ফজলুল করিম, নিখিল কুমার পাল, শামিম হোসেন মোল্লা, মো. রাশিদুর রহমান ও ডা. মোছা. মারফিয়া খাতুন। চুয়াডাঙ্গা কর সার্কেলের মো. শহিদুল হক মোল্লা, দীলিপ কুমার আগরওয়ালা, মো. খোরশেদ আলম, সবিতা আগরওয়ালা, সাইফুন্নাহার আক্তার, আবু তাহের মো. হাসানুজ্জামান ও আক্তারী জোয়ার্দার। মেহেরপুর কর সার্কেলের মো. গিয়াস উদ্দিন, অজয় সুরেকা, মো. আবুল কাশেম, মো. আবদুল হান্নান, মো. আবদুস সামাদ বিশ্বাস, মো. আরিফ শেখ ও মিস হামিদা খানম।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST