ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরা প্রাইভেটকার নদীতে পড়ে নিহত-২, আহত-৩ । চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা । নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন।
পদ্মাসেতুতে পিলার, স্প্যান, রেলওয়ে-রোডওয়ে, টি-গার্ডার ও আই-গার্ডারের কাজ চলেছে দ্রুত গতিতে ।

পদ্মাসেতুতে পিলার, স্প্যান, রেলওয়ে-রোডওয়ে, টি-গার্ডার ও আই-গার্ডারের কাজ চলেছে দ্রুত গতিতে ।

 

বিশেষ প্রতিবেদক ,
পদ্মাসেতুতে সমানতালে এগিয়ে চলেছে রোডওয়ে-রেলওয়ের কাজ। দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে পদ্মাসেতুর মূল প্রকল্পের কাজ।প্রকল্প এলাকায় সমান তালে চলছে পিলার, স্প্যান, রেলওয়ে, রোডওয়ে, টি-গার্ডার ও আই-গার্ডারের কাজ। শনিবার (২৩ নভেম্বর) প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ১৫০ মিটার রোডওয়ের পাশাপাশি রেলওয়ে স্ল্যাবের কাজও দৃশ্যমান। এরই মাঝে রোডওয়ে স্ল্যাবের চেয়ে রেলওয়ে স্ল্যাবের কাজ বেশি এগিয়েছে। ৩৭ নম্বর পিলার থেকে ৪২ নম্বর পিলার পর্যন্ত ৩৮৬টি রেলওয়ে স্ল্যাবের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এর দৈর্ঘ্য ৭৫০ মিটার।
পদ্মার জাজিরা পয়েন্টে ৪১ ও ৪২ নম্বর পিলারে আগেই বসেছে স্প্যান। এখন এ স্প্যানের ওপর বসেছে ৮৭টি রোডওয়ে স্ল্যাব। সবমিলিয়ে এখন ১৫০ মিটার রোডওয়ে দৃশ্যমান পদ্মার বুকে। পরবর্তীতে এ রোডওয়ের ওপর ২শ’ মিলিমিটার (৮ ইঞ্চি) পুরু বিটুমিনাস ঢালাই দেওয়া হবে। তার ওপর দিয়েই চলবে যানবাহন।
পুরো পদ্মাসেতুতে দরকার পড়বে মোট ২ হাজার ৯১৭টি রোডওয়ে স্ল্যাব। ইতোমধ্যে প্রকল্প এলাকায় ১ হাজার ৭৪৩টি স্ল্যাব তৈরি করা হয়েছে, বাকি ১ হাজার ১৩৪টি স্ল্যাবের নির্মাণ কাজ চলছে।
অন্যদিকে রেলওয়ের জন্য প্রয়োজন মোট ২ হাজার ৯৫৯টি স্ল্যাব। ইতোমধ্যেই যার ২ হাজার ৯৪৬টি তৈরি হয়ে গেছে। অবশিষ্ট ১৩টি স্ল্যাবের কাজ চলমান। পদ্মা নদীর মধ্যে শুধু স্প্যানের ওপর রোডওয়ে ও রেলওয়ে স্ল্যাব বসছে। শুকনো জায়গায় বসছে টি-গার্ডার ও আই-গার্ডার। টি-গার্ডারের ওপর দিয়ে চলবে যানবাহন আর আই-গার্ডার দিয়ে চলবে রেলগাড়ি।
এ বাবদ মোট ৪৩৮টি টি-গার্ডার প্রয়োজন। এর মধ্যে তৈরি হয়েছে ৪৫টি। এছাড়া ৭১টি টি-গার্ডার ইতোমধ্যেই বসে গেছে পিলারের ওপরে। অন্যদিকে আই-গার্ডার প্রয়োজন ৮৪টি। এর মধ্যে ৪২টির কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া ৬০টি আই-গার্ডার ইতোমধ্যেই বসে গেছে।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, প্রকল্প এলাকায় চলছে পিলার, স্প্যান, রেলওয়ে, রোডওয়ে, টি-গার্ডার ও আই-গার্ডারের কাজ।
পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প সম্পন্ন হবে ২০২১ সালের জুন মাসে। সর্বশেষ পদ্মাসেতু প্রকল্পের মূল ব্যয় ছিল ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। প্রকল্পের শুরু থেকে এ পর্যন্ত ব্যয়ের পরিমাণ ১৯ হাজার ৯৪৭ কোটি ৪১ লাখ টাকা। এখন পর্যন্ত মূল সেতুর ৮৫ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। জুন ২০২১ সালেই প্রকল্পটি সবার জন্য উন্মুক্ত করার লক্ষ্যে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে কাজ।
প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মোহাম্মদ আব্দুল কাদের বলেন, সব চ্যালেঞ্জ জয় করে এগিয়ে যাচ্ছে মূল সেতুর কাজ। সেতু উদ্বোধন এখন শুধু সময়ের ব্যপার। সেতুর সব কাজ চলছে সমানতালে। পিলারের পাশাপাশি, স্প্যান, রোডওয়ে ও রেলওয়ের কাজ এগিয়ে চলেছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST