ঘোষনা:
শিরোনাম :
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা । নীলফামারীতে বঙ্গবন্ধু কাবাডি প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা নিখোঁজের তিনদিন পর গৃহবধূর মৃতদেহ মিলল ভুট্টার ক্ষেতে। জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন। ডিমলায় ৭ই মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা।
জলঢাকায় রবি মৌসুমে আগাম আলুর রোপনে ধুম পড়েছে ।

জলঢাকায় রবি মৌসুমে আগাম আলুর রোপনে ধুম পড়েছে ।

 

জলঢাকা প্রতিনিধি ,
নীলফামারীর জলঢাকায় পৌরসভা সহ ১১টি ইউনিয়নে শীতের শুরুতেই ১৩টি জাতের আলুর আবাদ শুরু করেছে কিষান-কিষানীরা। গত বারে আলু আবাদে বেশি লাভ্ পাওয়ায় এ প্রস্তুতি প্রতিটি কৃষকের ঘরে ঘরে। স্থানীয় কৃষি অফিস জানায়, এ মৌসুমে আলুর আবাদ হয়েছে ২ হাজার ৬৫ হেক্টর জমিতে। তবে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৪ শত হেক্টর। ১৩টি জাতের মধ্যে গ্র্যানুলা আলুর আবাদ বেশি হয় বলে জানান কৃষিবীদরা।আজ রোববার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে, লেডি গোল্ড জাতের আলুর আবাদ হচ্ছে পরিমাণে বেশি। মীরগঞ্জের কৃষক গোবিন্দ চন্দ্র (৩৫), অমল চন্দ্র (২৮), অভয় চন্দ্র (২৫), সুকুমার রায় (২৮), হিরম্ব (২৭), সনদ চন্দ্র (২৪), দিলীপ চন্দ্র (২৯) এরা সকলেই অন্যের জমিতে কায়িক শ্রম দিয়ে পারিশ্রমিক নেয়। তারা জানান, এ জাতের আলুটি যা উৎপাদন হয় তার দ্বিগুন টাকা উঠে আসে। জমির মালিক মৃত রহিম উদ্দীনের ছেলে আামিনুর রহমান (৫৯) বলেন, পূর্বে আমি আলু লাগিয়েছি ৪ বিঘা জমিতে দামও পেয়েছি মোটামুটি। এখন আড়াই বিঘাতে শুরু করলাম। এ আলুটি ৮০-৯০ দিনের মাথায় তোলা হবে এবং বাজারজাত করা হবে। দেড় বিঘা জমিতে বীজ লাগে ৫ বস্তা অর্থাৎ ৭৫ কেজি। প্রতি বস্তায় কেজি প্রতি দাম ২৩ টাকা মাত্র। বিঘা প্রতি খরচ হয় প্রায় ১৬ হাজার টাকা। আমার গতবারে ফলন হয়েছে ৪৬ ধারা সেই আলু ৮ টাকা দরে বিক্রি করেও ৩৯ হাজার টাকা উঠে এসেছে। একই কথা জানান, বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষক ও কৃষানীরা। জমিতে সার টিএসপি, পটাশ, এমপিও, জীপসাম, জীন, বুরোন, ম্যাগনেসিয়াম কৃষকরা ক্রয় করে কীটনাশকগুলো প্রয়োগ করে আলুর ফলন ভাল করে। কথাগুলো বললেন, উপজেলা উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার গোলাম কিবরিয়া মন্ডল। অনেক কৃষকের ধারনা এ জাতের আলুটি উৎপাদন করে খরচের দ্বিগুন টাকা উঠে আসবে। উপজেলা কৃষি অফিসার শাহ মুহাম্মদ মাহফুজুল হক জানান, কৃষকের আলুতে কোথায় কোন সমস্যা হলে আমাদেরকে জানা মাত্রই আমরা তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেব এবং মাঠ পর্যায়ে আমাদের মনিটরিং চলমান আছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST