ঘোষনা:
শিরোনাম :
জলঢাকা হাসপাতাল সড়কটি উন্নয়ন কাজ তদারকি করছেন। পৌরসভার চট্টগ্রামে গৃহবধূ পারভিন আকতার হত্যা মামলায় ৪ আসামীর মৃত্যুদন্ডের আদেশ। স্টামফোর্ড সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সদস্যের তালিকা অনুমোদন ডিমলায় ২টি লাশ উদ্ধার । সৈয়দপুরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনের স্ট্যান্ডিং টিকেট ,পকেটে ভারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের । ডোমারে ১০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়ক সংস্কার কাজের উদ্বোধন। ডিমলায় ৭ই মার্চ উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা। কিশোরগঞ্জে জলাশয় সংস্কার পুনঃ খনন কাজের উদ্ধোধন নীলফামারীতে রিলেশন এর সম্মান ক্ষুন্ন করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন সৈয়দপুরে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে কেন্দ্রীয় শ্মশান কমিটি গঠনের অভিযোগ।
এমপিওভুক্তির পর অবকাঠামো তৈরীতে ব্যস্ত বালার পুকুর মহিলা বিএম কলেজের অধ্যক্ষ।

এমপিওভুক্তির পর অবকাঠামো তৈরীতে ব্যস্ত বালার পুকুর মহিলা বিএম কলেজের অধ্যক্ষ।

স্টাফ রিপোর্টার ,

নেই কোনশিক্ষার্থী। অল্পক’টি ব্রেঞ্চপাওয়া গেলেওময়লা আর্বজনায় ভরপুর। প্রতিষ্ঠানে নেই অবকাঠোমো। কাগজে সকল কর্মকান্ড দেখানো হলেও বাস্তবে হদিস মেলেনি ওই সকল কর্মকান্ডের। সম্প্রতি অবকাঠামো নির্মাণের কাজে নেমেছেন ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। দীর্ঘ ১০ বছর ধরে প্রতিষ্ঠানটির ছিলনা কোন কার্যক্রম। এমনকি তথ্য গোপন করে চলতি বছর এমপিও ভুক্ত হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানটি হচ্ছে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার শিমুলবাড়ী ইউনিয়নের বালার পুকুর মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এ্যান্ড বিএম কলেজ। সরজমিনে ওই কলেজ গিয়ে দেখাযায়, গত ২৩ অক্টোবর এমপিও ভুক্ত হওয়ার পর থেকে প্রতিষ্ঠানটি নতুন করে গড়তে তোড়জোড় শুরে করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। তৈরি করা হচ্ছে নতুন ভবন। প্রতিষ্ঠানে নতুন করে মাঠ ভরাটের কাজও চলছে। ধান ক্ষেতের ভিতর দিয়ে তৈরি হচ্ছে নতুন রাস্তা। যা বর্তমানেও চলমান। প্রতিষ্ঠান টিগিয়ে আরও দেখা গেছে বিএম কলেজ হলেও নেই কম্পিউটার ল্যাব, শিক্ষার্থী ও অবকাঠামো। এমনকি নতুন করে নেয়া হয়েছে বিদ্যুৎসংযোগ। কাগুজে ৮জন শিক্ষক ও ৬জন কর্মচারীনিয়োগ দেওয়া থাকলেও দিতে পারেননি শিক্ষার্থীর সংখ্যাসহ কলেজের কোন তথ্য। কলেজটির নাম মহিলা কলেজ হলেও নেই বাউন্ডরী ওয়াল ও মেয়েদের ওয়াশরুম। এমপিও ভুক্ত হওয়ার পর থেকে কলেজ অধ্যক্ষ আবুল কাশেম সারাদিন ব্যস্ত থাকছেন কলেজের কাগজপত্র তৈরীসহ নতুন অবকাঠামোনির্মাণ কাজে। কলেজ সংলগ্ন স্বপন বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীদের সাথে কথা হলে তারা জানান, দীর্ঘ বছর থেকে কলেজটিতে কোন শিক্ষার্থী আসতে দেখেননি তারা। দুই একজন শিক্ষক মাঝে মাঝে যাতায়াত করেন। বর্তমানেও কলেজে শিক্ষার্থী না থাকলেও এমপিও তালিকায় নাম আসার পর এখন অনেক শিক্ষকের আনাগোনা দেখা যাচ্ছে।
এলাকার চেয়ারম্যান হওয়ায় ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি শিমুলবাড়ী ইউ’পি চেয়ারম্যান হামিদুল হক।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক বলেন, প্রতিষ্ঠানটির একাডেমিক অবস্থা ভালনা।বিএম ও কারিগড়ি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো তদারকি করে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড। সেখানে মাধ্যমিক শিক্ষা দপ্তরের কোন ভাবে মনিটরিং করার সুযোগ নেই।
প্রতিষ্ঠানে বিএম শাখায় ১১জন ও ভোকেশনাল শাখায় ৯জন কর্মরত শিক্ষক থাকলেও পাওয়া যায়নি হাজিরা খাতা। এ ব্যাপারে অধ্যক্ষ আবুল কাশেমের সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজা উদ্দৌলা অবকাঠামোগত দুর্বলতা স্বীকার করে বলেন, যেহেতু প্রতিষ্ঠানটি এমপিভুক্ত হয়েছে,তাই এখন তদারকি করে দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করবো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST