ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে অসহায় ভিডিপি সদস্য ও সদস্যাদের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ চট্টগ্রামে মিতু হত্যায় সাবেক এসপিকে জিঙ্গাসাবাদ শেষে গ্রেফতার করেছে পিবিআই। ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে দুই মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত-১, আহত-৩। খেটে খাওয়া এবং কর্মহীন মানুষের কল্যানে সহায়তা করে যাচ্ছে সরকার রেলপথ মন্ত্রী । নীলফামারীর ডোমারে মাইক্রোবাস ও মটরসাইকেলের সংঘর্ষে,নিহত ১। নীলফামারীতে সমাজের প্রবীণ ও অসচ্ছল প্রবীণ ব্যাক্তিদের মাঝে ঈদ উপহার নীলফামারীতে ঈদ-উল-ফিতরের নামাজ সকাল সাড়ে সাতটায় কেন্দ্রীয় বড় মসজিদে নীলফামারীতে বোরো ধানের বাম্পার ফলন,কৃষকের মুখে হাসির ঝলক। আগামীকাল চাঁদ দেখা গেলে বৃহস্পতিবার ঈদ নীলফামারীতে ভিজিএফ’র নগদ অর্থ বিতরণে অনিয়ম।
পল্লী বিদ্যুতের অনিয়ম দুর্নীতি —২,অপেন সিকরেট ,জেগে ঘুমাচ্ছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড নীলফামারীতে লাখ লাখ টাকা পল্লী বিদ্যুতের লাইন নির্মাণে গ্রাহকের পকেট কাটছে ভিআইপি দালাল।

পল্লী বিদ্যুতের অনিয়ম দুর্নীতি —২,অপেন সিকরেট ,জেগে ঘুমাচ্ছে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড নীলফামারীতে লাখ লাখ টাকা পল্লী বিদ্যুতের লাইন নির্মাণে গ্রাহকের পকেট কাটছে ভিআইপি দালাল।

নূর সিদ্দিকী,বিশেষ প্রতিবেদক ,
ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌনছে দেওয়ার লক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা বাস্তবায়নে নীলফামারী জেলায় পল্লী বিদ্যুতের কিশোরগঞ্জ ও সদর উপজেলাকে শতভাগ বিদ্যুৎ ঘোষনার পর এবার জলঢাকা,ডোমার,ডিমলা উপজেলায় প্রত্যান্ত অঞ্চলে প্রান্তিক জনগোষ্টির মাঝে শতভাগ বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার লক্ষ্যে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের অধিনে গ্রাম,পাড়া,মহল্লায় তিনটি প্রকল্পের মাধ্যমে লাইন নির্মাণের কাজ চলছে দ্রুত গতিতে।লাইন নির্মান শেষ হওয়ার পরে,বিদুৎ সংযোগ দিতে দিনরাত নিরলস কাজ করছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। ৪৫০ টাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ,এমন মাইকিং এলাকায় হটাৎ হটাৎ শুনতে পায় গ্রাহকরা।এছাড়াও মসজিদে,মসজিদেও বলা হচ্ছে।এসব প্রচার কাজে আসছেনা।এর পরেও নতুন নতুন দালাল সৃষ্টি হচ্ছে লাইন নির্মাণ অফিসের কথা বলে লাখ লাখ টাকা এলাকায় গ্রাহকদের পকেট কাটছে ভিআপি দালাল বেশী ঠিকাদারদের সৃষ্টি দালালরা। আর ঠিকাদার এবং নির্বাহী প্রকৌশলী নাফিউল ইসলামের সাথে অনেক বেশী মধুর সম্পর্ক বলে গ্রাহকদের দালালরা প্রচার চালাচ্ছে।তাই আগে টাকা দিলে কোন কিছুর নিয়মেই প্রয়োজন হবেনা।বাতি জ্বলবে গ্রাহকের বাড়ীতে এভাবেই বললেন ডিমলা সাতজান ঠাকুর পাড়া ও নাউতারা নটাবড়ীর গ্রাহকরা।(প্রয়োজনে নাম প্রকাশ) নটাবড়ীর গ্রাহকরা বলেন,সব যায়গায় কারেন্ট হয়েছে,সাত ঘর কারেন্ট পাই নাই।পল্লী বিদ্যুতে আমরা দীর্ঘদিন ঘোরাঘুরির পর আলম আমাদেরকে এসে বললো,পল্লী বিদ্যুতে আমার উর্ধতন স্যারের সাথে খুব ভাব।এক মাসের মধ্যে বাতি জ্বলে দিবো।এ কথা বলে আলম আমাদের কাছে প্রথম ৪০ হাজার টাকা নেয় সাত দিন পরে আরও ৩০ হাজার টাকা নিয়ে যায়।আজ ৬ মাস পার হয়েছে কারেন্ট পাই নাই।রির্পোটারদের গ্রাহকরা ক্ষোভে বলেন,কারেন্ট লাগবেনা আমাদের টাকাটা উর্ধতন স্যারকে বলি ফেরত দিলে ভাল হয়।আমরা খুব গরীব মানুষ।সুদের উপর টাকা নিয়া ও গরু-ছাগল বিক্র করে এই সাতঘর টাকাটা দিছি।কারেন্ট নেওয়া হাউস মিটি গেইছে স্যার হামার।দয়া করে উর্ধতন স্যারের কাছ থাকি টাকাটা ফেরত নিয়া দেন।
জলঢাকা,ডোমার,ডিমলা উপজেলায় পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নীলফামারী জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী নাফিউল ইসলামের তত্বাবধানে ডি,এন,ই,(১.৫)পনের লক্ষ গ্রাহক সংযোগ প্রকল্প,ইউ,আর,আই,ডি,এ প্রকল্পের লাইন নির্মাণ এগিয়ে চলছে বিদুৎ গতিতে।তেমনি বিদুৎ গতিতে গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিটি লডে,গ্রাহকের বাড়ী থেকে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকাসহ তিন উপজেলায় ৩ কোটি টাকা তুলছে দালালরা এমন অভিযোগ গ্রাহকদের।এক পোল দুই পোল লাইন নির্মাণে,প্রতি পোল ২০ হাজার থেকে ৩০ হাজার পর্যন্ত,অনেক সময় আরও বেশী টাকা গুনতে হয় গ্রাহকদের।গ্রাহকরা বলছে, ( ১.৫)এমসিসিপি-এল-৪২৩-০২,প্যাকেজের লড নম্বর-ডিম-বি-১৭০ ডিমলা আদর্শ স্কুলের পূর্ব পাশে ৪০ জন গ্রাহকের মিটিার প্রতি ৮ হাজার টাকা করে ৩ লাখ ২০ হাজার,আকাশকুড়ি নাউতারা গ্রামের বাসিন্ধা দালাল পিতা-নমির উদ্দিনের ছেলে বাবুল গ্রাহকের কাছে টাকাটা নিয়েছে।পোল ইসু ছাড়া এলাকায় পোল ফেলে দেওয়া হয়েছে,আরও টাকা দিতে হবে,তার টানা ও লাইন টানানোর জন্য। প্যাকেজ নং ইউআরআইডিএস-(ডাব্লু)-নিল-৫৪-০৩,লড নম্বর-ডিম-এফ-১৬৪,সোনাখুলি চাপানি গ্রামের ৬২ জন গ্রাহকের মিটার প্রতি ৭ হাজার টাকা করে,৪ লাখ ৩৪ হাজার টাকা চাপানির দালাল জাহাঙ্গীর পিতা জামিউর রহমান চাপানি এলাকার বাসিন্ধা ও বাদশা পিতা-মোকারম হোসেনের (মোফা) পুত্র কাকিনা গ্রামের বাসিন্ধা গ্রাহকের কাছে টাকা নিয়ে সাত দিনে পোল এনে দিয়েছে।যেমন কথা তেমন কাজ হয়েছে,তাই গ্রাহকরা খুশি।একই প্যাকেজে লড নম্বর-ডিম-এফ-১৫৯, লডের ১৫০ জন গ্রাহকের মিটার প্রতি ৫ হাজার করে,৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা দালাল বাবুল পিতা-নমির উদ্দিনের ছেলে নাউতারা গ্রামের,প্যাকেজ নং ডিএনই(ডাব্লু)-এল-১১৫-এনপিএইচ-০৩,লড নম্বর-ডিম-ই-৭৪-পার্ট-১ এ শালহাটি বাজারের দক্ষিণে ঠাকুর পাড়ায় গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ৭০ জন।গ্রাহত প্রতি ৮ হাজার করে মোট ৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা দালাল আলম পিতা-কাছিম উদ্দিনের শালহাটির গ্রামের বাসিন্ধা,ওই সমস্ত লডের লাইন নির্মাণ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জলি কন্সট্রাকসনের প্রতিনিধি আশরাফ,ঝন্টু এবং কালাম ও সালামের সাথে দালালরা নিবির সম্পর্ক স্থাপন করে সব লেনদেন করেছে।(প্রয়োজনে নাম প্রকাশ ) গ্রাহক বলেন,দালালরা ঠিকাদারকে দিয়ে উর্ধতন স্যারের কাছ থাকি পোল নেয়।আমরা পোল পাই।ডিএনই(ডাব্লু)-এল-২১৬-এনপিএইচ-০৩/লড নম্বর-ডিম-এফ-১১৬-পার্ট ১ এ
নাউতারা,কাকড়া,সুকানদিঘির ৫.২০২ কিলোমিটার লাইনে গ্রাহক সংখ্যা ২৪১ জন পোল পুতে লাইন নির্মাণের কাজ চলমান আছে।প্রতি গ্রাহক ৫ হাজার করে ১২ লাখ ৫ হাজার টাকা, ভিআইপি ( এলাকা পরিচালক-০৬) আবুজার রহমানের নেতৃত্বে গ্রাহকের কাছ থেকে নাউতাড়া বাজারের আশ পাশে টাকা উত্তোলন করেছে।পার্শ্ববর্তী লড নম্বর-ডিম-এফ-১১৬-পার্ট ২, এর গ্রাহকরা অভিযোগ করেন, টাকা দিতে না পারায় আমাদের পোল না দিয়ে দিনের পর দিন ঘুরাচ্ছে অফিস।অফিসে গেলে নির্বাহী প্রকৌশলী নাফিউল ইসলাম গ্রাহকদের তালগোল বুঝিয়ে লাইন নির্মাণ করা হবে,কিন্তু হয় আর না।লড নম্বর-ডিম-বি-১১৮ পার্ট ১ এবং লড নম্বর-ডিম-বি-১০২ পার্ট ২, ৬.৫ কিলোমিটার লাইন নির্মাণে ৩৫০ জন গ্রাাহকের কাছে ৬ হাজার টাকা করে ২১ লক্ষ টাকা গ্রাহকের সাথে চুক্তি করে ঠাকুরগঞ্জ বাজারের পাশে লাইন নির্মাণ বাবদ অর্ধেক টাকা ১০ লাখ টাকা উত্তোলন করে, পিতা-মনসুর আলীর ছেলে দালাল মাজেদুল ইসলাম (বাতাসু) ও ভিআইপি দালাল,ঠাকুরগঞ্জ সরকারী প্রাইমারী স্কুলের(ঠাকুরগঞ্জ বাজারের পার্শ্বে)সহকারী শিক্ষক মোঃ সুলতান মাহমুদ হাবিব পিতা- এম এ জলিল।উভয়ের গ্রাম পশ্চিম ছাতনাই।উপরোক্ত লড গুলির প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রপাইটর ইব্রাহিমের লোকজন লাইন নির্মাণের কাজ করছে বিদ্যুত গতিতে। ডিমলা-০৬ পল্লী বিদ্যুত সমিতির এলাকা পরিচালক প্রভাষক মোখলেছার রহমান বলেন,এলাকায় দালালের অভাব নেই।সমিতির বোর্ড মিটিংয়ে দালাল বিষয়ে কথা হয়েছে।দালালদের ধরতে আইন আছে,কেন প্রয়োগ হচ্ছেনা আমাদের জানা নাই।আমাদের দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যেগ ঘরে ঘরে বিদ্যুত বিনা পয়সায় পাবে।কিন্তু এলাকায় দালালরা গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছে অপেন সিকরেট বিষয়। গ্রাহকরা এলাকার পরিচালককে চিনেননা, দালালকে চিনে। পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী নাফিউল ইসলাম বলেন,দালাল অফিসের কথা বলে টাকা নিলে আমাদের কিছুই করার নাই।
পল্লী বিদুতের লাইন নির্মাণে গ্রাহকের ভোগান্তির কথা নিয়ে আরও থাকছে আগামীতে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST