ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌর নির্বাচন থেকে জাপা প্রার্থীর ভোট বর্জন। দীর্ঘ এক বছর পর ৩০ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরু,শিক্ষামন্ত্রী। চট্টগ্রামে সমন্বয়ের অভাবে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হচ্ছে না, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, তাজুল ইসলাম । খুলনার মহাসমাবেশে শ্লোগান,এক সংগ্রাম, এক ডাক, আওয়ামী লীগ সরকার নিপাত যাক। বদরগঞ্জে একঝাঁক তরুন তরুনীদের প্রচেষ্টায় বদরগঞ্জে বি-বাজারের যাত্রা শুরু। বদরগঞ্জে শয়নকক্ষে শিক্ষার্থীর গলাকাটা মরদেহ : হত্যা নাকি আত্মহত্যা। জলঢাকায় গাঁজা কেনাবেচা কালে মা-ছেলেসহ আটক-৩। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভায় প্রথমবার ইভিএমে ভোট।সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে প্রশাসন। কিশোরগঞ্জে জাপা কর্মীর জানাজা সম্পন্ন । নীলফামারীতে অটোরিকশা ও নৈশ কোচের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১ আহত ১১।
ডোমারে অর্থের অভাবে ভর্তি অনিশ্চিত মেধাবী ছাত্রের ।

ডোমারে অর্থের অভাবে ভর্তি অনিশ্চিত মেধাবী ছাত্রের ।

রতন কুমার রায়-ডোমার ,

নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার হতদরিদ্র পরিবাবের সন্তান সুমন চন্দ্র রায়(১৬) চলতি এসএসসি পরীক্ষায় মানবিক বিভাগ হতে অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ অর্জন করেছে। প্রথম চয়েজে রংপুর সরকারী কলেজে টিকলেও অর্থের অভাবে ভর্তি হওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।
অর্থের অভাবে লেখাপড়া বন্ধের উপক্রম হয়ে পড়েছে তার। সুমন চন্দ্র রায় মটুকপুর স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্র। ৬ষ্ঠ শ্রেনী থেকে সে মেধাবী ছাত্রের তালিকায়। গত ২০১৬ ইং সালে জেএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন এ প্লাস অর্জন করে। গরীব বাবা মায়ের হাসি ফুটাতে লেখা পড়ায় ছিল তার মনোযোগ। তিন ভাই বোনের মধ্যে সুমন ছিল দ্বিতীয়। বড় ভাই সুজন চন্দ্র রায়(২০) ডোমার সরকারী কলেজে অনার্স অর্থনীতি বিভাগে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ছোট বোন বৃষ্টি রানী(১১) মটুকপুর স্কুল এন্ড কলেজের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী। এসএসসি পরীক্ষায় মটুকপুর স্কুল এ্যান্ড কলেজ থেকে মানবিক বিভাগ থেকে ৯১৭ নম্বর পেয়ে জিপিএ-৫ অর্জন করেছে সুমন চন্দ্র রায়। উপজেলার তিনজন পরীক্ষার্থী মানবিক বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। সুমন তাদের মধ্যে অন্যতম। সুমন চন্দ্র রায় উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের পুর্ব বোড়াগাড়ী ঘাটপাড়া গ্রামের কার্তিক রায়ের ছেলে।
কার্তিক চন্দ্র রায়ের কুঠিরে গিয়ে সুমনের সঙ্গে কথা বলে তার ভবিষৎ সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন ভবিষ্যতে লেখাপাড়া করে ম্যাজিষ্ট্রেট হয়ে বাবা-মা ও এলাকার মুখ উজ্জ¦ল করতে চাই। আমার এতদুর পড়ালেখা করার পিছনে বাবা মায়ের সহযোগীতা ও স্কুল শিক্ষকদের। আর পড়ালেখা করতে পারবো কিনা তা অনিশ্চিয়তায় পড়েছে। সুমন আরো বলেন,স্কুলের শিক্ষক আখতারুজ্জামান লিটন স্যারের নিকট আমি প্রাইভেট পড়তাম। আমি গরীব হওয়ায় তিনি বিনে পয়সায় আমাকে পড়াতেন। এতদুর আসার পিছনে তার অবদান অপরীসিম। শিক্ষক রায়হানুল করিম বাবু জানান,স্কুলে শান্ত ন¤্র স্বভাবের সুমন লেখাপড়ায় অদম্য।তার ইচ্ছে ছিল সে বিজ্ঞান বিভাগে পরবে কিন্তু দারিদ্রতার কারনে তার সেই ইচ্ছে পুরন হয়নি। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষা দিলে সে আরো ভালো ফলাফল করতো।
কার্তিক চন্দ্র রায়ের সাথে কথা হলে বলেন,আমি বোড়াগাড়ীতে একটি সার ও কীটনাশকের দোকানে কাজ করে কোনমতে কষ্টে সংসার চালাই। আমার স্ত্রী সন্ধ্যা রানী মানুষের বাড়ী বাড়ী কৃষাণীর কাজ করে। অভাবের এই সংসারে ৫জন সদস্যের ভরনপোষন এবং তিন ছেলে মেয়েকে লেখাপড়া করা অসম্ভব। হয়তো মাঝপথে তাদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যেতে পারে। রংপুর সরকারী কলেজে ভর্তি হতে যে টাকার প্রয়োজন এখনো তা জোগার করতে পারিনি। সুমনকে ভর্তি করাতে পারবো কিনা এখনো তা অনিশ্চিত।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST