ঘোষনা:
শিরোনাম :
শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর নীলফামারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস প্রমোশন না দেয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন নীলফামারীতে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত ৮ জন নীলফামারীতে পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ কিশোরগঞ্জে বিদায়ী মাঘে শীতের হানা কিশোরগঞ্জে অপহরণের দায়ে পেশ ইমাম আটক-ছাত্রী উদ্ধার বিপদে পুলিশকে পাশে পেয়ে মানুষ যেন স্বস্তি বোধ করে তা নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নের বদলে শেখ হাসিনাকে ভোট উপহার দিন: চাঁপাইনবাবগঞ্জে নানক বিএনপির বক্তব্যে মনে হয় আওয়ামী লীগকে রাজপথে দেখে তারা ভীত : তথ্যমন্ত্রী
সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা,রোহিঙ্গা শিশু, নারী ও পুরুষসহ ১১৫ জনকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা,রোহিঙ্গা শিশু, নারী ও পুরুষসহ ১১৫ জনকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

টেকনাফ প্রতিনিধি,

সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টার সময় কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা শিশু, নারী ও পুরুষসহ ১১৫ জনকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে এ ঘটনায় কোনো দালালকে আটক করা সম্ভব হয়নি। এর মধ্যে ২৬ জন শিশু, ৩৯ জন নারী ও ৫০ জন পুরুষ রয়েছে। জানা গেছে, উদ্ধার সবাই উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের বাসিন্দা।
হোয়াইক্যং-বাহারছড়া সড়কের পাহাড়ি ঢাল এলাকা থেকে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় এই ১১৫ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়েছে। কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন গ্রামপোস্টকে  বলেন, উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির থেকে শিশু, নারী ও পুরুষকে সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বলে পাহাড়ি ঢালে জড়ো করা হয়েছে—এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ হোয়াইক্যং-বাহারছড়া সড়কের পাহাড়ি ঢালে অভিযানে যায়। পরে অভিযান চালিয়ে ২৬ শিশু, ৩৯ জন নারী ও ৫০ জন পুরুষকে উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়। উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করছিল বলে স্বীকার করেছে। উদ্ধার ব্যক্তিরা বলছে, দালাল চক্রের সদস্যরা সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বলে তাদের কাছ থেকে জনপ্রতি ১০ হাজার টাকা করে আগাম নিয়েছেন। গভীর সাগরে থাকা ট্রলারে তুলে দেওয়ার কথা বলে সবাইকে পাহাড়ের ঢালে জড়ো করা হয়েছিল।উদ্ধারকারী কর্মকর্তা ও বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক মো. আনোয়ার হোসেন গ্রামপোস্টকে বলেন, উদ্ধার করা এসব রোহিঙ্গাদের শরণার্থী শিবিরের কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হবে। সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বলে প্রতারণা করতে তাদের পাহাড়ে এনে জড়ো করা হয়েছিল।অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করতে পুলিশ উদ্ধার করা যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে। দালাল কারা চিহ্নিত করা গেলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।চলতি বছরের কয়েক দিনে কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিজিবি, পুলিশ ও কোস্টগার্ড সদস্যরা সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টার সময় এখন পর্যন্ত ১২ দফায় ১৪৭ নারী, ১০৪ পুরুষ, ৬৯ শিশুসহ মোট ৩২০ জন রোহিঙ্গা ও ২ জন বাংলাদেশিকে উদ্ধার করেছে। এসব ঘটনায় ১৩ জন দালালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST