ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন। খুলনায় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড প্রদান । জলঢাকায় হরিজন পল্লীতে তুরিন আফরোজ কিশোরগঞ্জে ভাতাভোগীদের টাকা হাতিয়েছে প্রতারক চক্রটি জলঢাকায় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর বৃক্ষ রোপন ও চারাগাছ বিতরণ নীলফামারীতে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বৃক্ষরোপন করেছে আনসার ওভিডিপি। সৈয়দপুরে রেলের তদন্ত প্রতিবেদন,নিজেকে বাঁচাতে উপজেলা চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন । পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে করোনা আক্রান্ত মাদ্রাসা শিক্ষিকার মৃত্যু। বাংলাদেশ স্কাউটস এর স্ট্রাটেজিক প্ল্যান ও গ্রোথ মূল্যায়ন ওয়ার্কশপ বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ১, আহত ২
শেরপুরে চটপটি বিক্রেতা খুন হয়েছেন যুবকরে হাতে ।

শেরপুরে চটপটি বিক্রেতা খুন হয়েছেন যুবকরে হাতে ।

শেরপুর প্রতিনিধি,

শেরপুরে এক যুবকের দায়ের আঘাতে এক চটপটি বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তির নাম মো. শাহা আলম (৫০)। তিনি শেরপুর জেলা শহরের চাপাতলী এলাকার ওয়াহেদ আলীর ছেলে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ সাইদুল ইসলামকে (৩৫) আটক করেছে। সাইদুল শহরের চাপাতলী ঋষিপাড়ার মৃত আলাল উদ্দিনের ছেলে। শুক্রবার রাতে শহরের গৌরীপুর এলাকার নতুন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মীরগঞ্জ কাঁচাবাজারে এ ঘটনা ঘটে।পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চটপটি বিক্রেতা শাহা আলম শুক্রবার সন্ধ্যার পর শহরের গৌরীপুর এলাকার নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় চটপটি বিক্রি করতে যান। এ সময় শাহা আলমের সঙ্গে যুবক সাইদুলের কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সাইদুলের তাড়া খেয়ে শাহা আলম দৌড়ে বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মীরগঞ্জ কাঁচাবাজারে যান। সেখানে ধারালো দা দিয়ে শাহা আলমকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেন সাইদুল। আশঙ্কাজনক অবস্থায় শাহা আলমকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জান্নাতুল ফেরদৌস তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে খবর পেয়ে সদর থানা-পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে সাইদুলকে আটক করে।নিহত শাহা আলমের স্ত্রী বুলি বেগম বলেন, তাঁর স্বামীর সঙ্গে কারও শত্রুতা ছিল না। সাইদুল কেন তাঁর স্বামীকে খুন করলেন তা তিনি জানেন না। তবে এ ঘটনার জন্য দায়ী সাইদুলের বিচার দাবি করেন ।অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. বিল্লাল হোসেন শুক্রবার  রাত ১২টায়  বলেন, এ ঘটনায় এখনো থানায় কেউ অভিযোগ দেননি। আটক সাইদুল নেশাগ্রস্ত ছিলেন। তাঁকে একাধিকবার জিজ্ঞাসাবাদ করেও হত্যার কারণ জানা যায়নি। তবে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পূর্ব শত্রুতা বা টাকা-পয়সার লেনদেনের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে থাকতে পারে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিল্লাল হোসেন, আমিনুল ইসলাম ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST