ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে আশ্রয়হীন ১২৫০ পরিবারের স্বপ্ন এখন সত্যি কিশোরগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের রড চুরি- ধ্রুত চোরকে ছেড়ে দিল কর্তৃপক্ষ নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে করোনার টিকা প্রয়োগ শুরু রাত পোহালেই ডিমলায় নতুন ঘরে উঠবেন ভূমিহীন গৃহহীন পরিবার ওয়ালটনের মিলিয়নিয়ার অফারে ফ্রিজ কিনে ১০ লক্ষ টাকা পেলেন জলঢাকার মতি টাঙ্গাইলে নতুন ৯২ জন করোনা শনাক্ত বাংলাদেশ সরকারের প্রথম অর্থ সচিবের স্ত্রী কুলসুম জামান আর নেই নীলফামারীর জলঢাকায় খাসজমি দখল করে পাকা ঘর ণির্মান নীলফামারীতে র‌্যাবের অভিযানে ফেন্সিডিলসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৮ জনের মৃত্যু
নীলফামারী পল্লী বিদ্যুতের সেচ সংযোগ দিয়ে চলছে অটোবাইক, অটোভ্যান চার্জের কাজ – হয়রানি হচ্ছে সাধারণ গ্রাহক। লোকসান গুনছে সরকার।

নীলফামারী পল্লী বিদ্যুতের সেচ সংযোগ দিয়ে চলছে অটোবাইক, অটোভ্যান চার্জের কাজ – হয়রানি হচ্ছে সাধারণ গ্রাহক। লোকসান গুনছে সরকার।

নীলফামারী প্রতিনিধি ॥
নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডোমার জোনাল অফিস ও ডিমলা উপজেলা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীর যোগসাজশে পল্লী বিদ্যুৎতের সেচ সংযোগ থেকে অটোবাইক,অটোভ্যান চার্জের কাজ চলছে।আর এসব অবৈধ্য সংযোগে সেচ পাম্পের ভর্ত্তুকির টাকা দিয়ে চলছে ইজিবাইক, অটোবাইক,অটোভ্যানসহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক কাজকর্মে বিদ্যুতের ব্যবহার।আর এতে লোকসান গুনছে বাংলাদেশ সরকার। পাশাপাশি সাধারণ গ্রাহকেরাও হয়রানি ও ক্ষতির স্বীকার হচ্ছে। জানা যায়, পল্লী বিদ্যুৎ এর বিল চার স্তরে করা হয়।এলটি বি সেচ ৪ টাকা, এলটি এ আবাসিক ৪ থেকে ৮ টাকা। বাণিজ্যিক ৭ হতে ১১ টাকা ও অন্যান্য বিভিন্ন দামে।এর মধ্যে কৃষিকাজে সেচ ব্যবহৃত হয়, তাই কৃষক বান্ধব আওয়ামীলীগ সরকার সেচে ২০% ভর্তুকি প্রদান করেন। আর এ সুযোগে কিছু সেচ গ্রাহক পল্লী বিদ্যুৎতের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীর যোগসাজশে সরকারের ভর্তুকি সুবিধা নিয়ে সেচের বিদ্যুৎ অটোবাইক, ইজিবাইক চার্জ দেওয়াসহ বিভিন্ন বাণিজ্যিক কার্যক্রমে পার্শ্ব সংযোগ দিয়ে বিদ্যুৎ খরচ করছে।এতে একদিকে বাংলাদেশ সরকার প্রচুর লোকসান গুনছে অপরদিকে একই ট্রান্সফরমার থেকে সংযোগ পাওয়া অন্য সেচ গ্রাহকরা হয়রানি ও অর্থ ক্ষতির স্বীকার হচ্ছেন। জানা গেছে, একই ট্রান্সফরমার থেকে ৪/৫ জন এলটি বি সেচ গ্রাহক আছেন । এরমধ্যে ১/২ জন গ্রাহক তার সেচ সংযোগ থেকে অবৈধ পার্শ্ব সংযোগ দিয়ে অটো বাইক চার্জ দেন কিংবা বাণিজ্যিক খাতে সেচের বিদ্যুৎ ব্যবহার করেন । অথবা পল্লী বিদ্যুৎ থেকে চুক্তিবদ্ধ ৩ হর্স পাওয়ারের পরিবর্তে ৫ হর্স পাওয়ার ব্যবহার করেন। এতে ওভার লোডিং এর কারনে ট্রান্সফরমার নষ্ট বা অকেজো হয়ে যায়। ঐ অকেজো ট্রান্সফরমার মেরামত করতে ট্রান্সফরমারের আওতায় সেচ গ্রাহক আছে সবাইকে সমান অংশে মেরামত খরচ বহন করতে হয়।আর এভাবেই সাধারণ গ্রাহকেরা হয়রানি ও অর্থ ক্ষতির স্বীকার হন। এমনি এক ঘটনার স্বীকার হয়েছেন মশিয়ার রহমান নামের গ্রাহক। তিনি জানান, ডিম- ১৯৩ নং পিলারে (১০+৫)=১৫ কেভি ট্রান্সফরমার এবং এর আওতাভুক্ত ৬টি এলটি বি সেচ গ্রাহক আছে। তার মধ্যে ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের শোভানগঞ্জ বালাপাড়া গ্রামের মৃত অলিয়ার রহমানের ছেলে রুবেল ইসলাম তার পল্লী বিদ্যুতের হিসাব বই নং- ৪৪৮/৮৭০০, মিটার নং ১০২৯৩৮ সেচ সংযোগ থেকে পার্শ্ব সংযোগ দিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ অটো বাইক চার্জ দিয়ে আসিতেছে । বিষয়টি প্রথমে তাকে জানানো হয়, কেন সে তার সেচ সংযোগ থেকে অবৈধভাবে অটো বাইক চার্জ দিচ্ছেন । উক্ত গ্রাহক মশিয়ারকে বলেন, আমি মটর চালাই না। এইজন্য আমি অটো বাইক চার্জ দেই। এটা যে অবৈধ, একথা বললে সে জানায়, আপনার কিছু করনীয় থাকলে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে জানান। অফিস বুঝবে। উক্ত গ্রাহক গত সেপ্টেম্বর/১৮ ইং এ অটো চার্জ দিতে গিয়ে ট্রান্সফরমার নষ্ট করেন। তখনও সে একই কথা বলেছেন । এছাড়াও সে ইতিপূর্বে সেচের লাইন দিয়ে ব্রয়লার মুরগির বাণিজ্যিক ব্যবসা করতো । এরই প্রেক্ষিতে গত ২০ মার্চ গ্রাহক মশিয়ারসহ বেশ কয়েকজন গ্রাহক ডোমার পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডেপুটি জোনাল ম্যানেজার বরাবর অভিযোগ করেন। কিন্তু ডোমার জোনাল অফিসে বার বার অভিযোগ করে কোন লাভ হয় নাই। এরপরে ২ এপ্রিল ডিমলা পল্লী বিদ্যুৎতের লোক দ্বারা লোক দেখানো ও দায়সারা তদন্ত করে চলে যান।
এদিকে গতবছর সেই গ্রাহকের অনিয়ন্ত্রিত বিদ্যুৎ ব্যবহারে ট্রান্সফরমার নষ্ট হলে ঝামেলায় পরতে হয়েছে সাধারন গ্রাহকদের এবং এক জনের জন্য সকলকে টাকা গচ্ছা দিতে হয়েছে।নীলফামারী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মোঃ হাসনাত হাসান বলেন,আমি লোক পাঠাবো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST