ঘোষনা:
শিরোনাম :
জলঢাকায় অসুস্থ ব্যক্তিদের হাতে চিকিৎসা সহায়তা চেক চট্টগ্রামে সড়কের দু’পাশে ঝুঁকিপূর্ণ ৩ শতাধিক ঘর উচ্ছেদ করেছে প্রশাসন । ডোমারে ট্রাক্টরের চাপায় বৃদ্ধার মৃত্যু ভোলায় ৩ সন্তানের জননীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ ঢালিউডের জনপ্রিয় নায়িকাকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার প্রধান আসামিসহ ৫ জন গ্রেফতার মানিকগঞ্জে বিদেশগামী প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরন। টেকনাফের নাফ নদীর তীর থেকে আরো দুই রোহিঙ্গার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ ডোমার গোমনাতী সঃ প্রাঃ বিদ্যাঃ প্রধান শিক্ষক দুলু আর নেই নীলফামারীর ডোমারে পুকুর খননকালে পাওয়া গেল কৃষ্ণ মূর্তি। পঞ্চগড় পৌর মার্কেট নির্মাণ কাজের উদ্বোধন
ফণী” ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় বরিশালে প্রস্তুত , ২৫ হাজার স্বেচ্ছাসেবক।

ফণী” ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় বরিশালে প্রস্তুত , ২৫ হাজার স্বেচ্ছাসেবক।

বরিশাল প্রতিনিধি ॥
ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে আজ শুক্রবার সকাল থেকে বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলের সর্বত্র মেঘলা ও গুমোট আবহাওয়া বিরাজ করেছে। নদ–নদীগুলো ছিল উত্তাল। বিভাগের ছয় জেলায় ১ হাজার ৬৮০টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কেন্দ্রের ২৫ হাজার স্বেচ্ছাসেবকও প্রস্তুত। উপকূলে চলছে মাইকিং।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ ক্রমেই শক্তি বাড়াচ্ছে। এর গতিপথ ভারতের ওডিশার দিকে হলেও তা বড় ধরনের ছোবল মারতে পারে বরিশালসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোর ওপর। এতে বরিশালসহ বিভাগের সব জেলাজুড়ে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
বরিশাল আবহাওয়া অধিদপ্তরের বরিশাল কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক প্রণব কুমার রায় বলেন, ফণীর অগ্রবর্তী অংশের প্রভাব আজ সকাল থেকেই দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলে শুরু হতে পারে। ঘূর্ণিঝড়টি খুব শ্লথগতিতে তার লক্ষ্যের দিকে এগোচ্ছে।

স্থানীয় প্রশাসন সূত্র জানায়, বরিশালের ছয় জেলার ৪২টি উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। খোলা হয়েছে নিয়ন্ত্রণকক্ষ। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে চিকিৎসক দল। প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে। শুকনো খাবার, চাল ও অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী মজুত রাখা হয়েছে। উপকূলের জেলাগুলোতে মাইকিং করে ঝড়ের সংকেত প্রচার করা হচ্ছে। প্রশাসনের সব কর্মকর্তার ছুটি বাতিল করা হয়েছে।

বরিশাল জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আবদুল লতিফ বলেন, বরিশালে ২৩২টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এ ছাড়া ৪০০ মেট্রিক টন চাল, দুই হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, নগদ সাত লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি উপজেলায় চার লাখ টাকা করে বরাদ্দ রাখা হয়েছে। জেলা ও উপজেলাগুলোতে খোলা হয়েছে নিয়ন্ত্রণকক্ষ।

ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কেন্দ্রের বরিশাল জেলা কার্যালয় সূত্র জানায়, উপকূলে ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কেন্দ্রের ৫৫ হাজার ৫০০ স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তুত আছেন যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য। এর মধ্যে বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় ২৫ হাজার স্বেচ্ছাসেবক রয়েছেন।

প্রস্তুতি কেন্দ্রের জেলা উপপরিচালক মো. আবদুর রশিদ বলেন, তাঁদের স্বেচ্ছাসেবকেরা মাঠে মাইকিং করে স্থানীয় লোকজনকে সতর্ক করছেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST