ঘোষনা:
শিরোনাম :
ইরান রাশিয়াকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র দিয়েছে ইমরানের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা যাচ্ছেন সুন্নি ইত্তেহাদ কাউন্সিলে সমুদ্র সম্পদ অনুসন্ধান-আহরণ প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী নীলফামারীতে নদী এখন ফসলি জমি নীলফামারীতে গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত। নীলফামারী প্রেসক্লাবে সিয়াম সভাপতি, নুর আলম সাধারণ সম্পাদক ব্যাংক খাতে কমছে না খেলাপি ঋণ, এক বছরে বাড়ল ২৫ হাজার কোটি টাকা জলঢাকায় বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটির ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত ওরা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে, আমি তাদের ফাঁসি চাই নীলফামারীতে পিতার সম্পত্তি চাইতেই নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থী অন্তি ; প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
এক কেজি গরুর মাংসের দামে,এক মণ ধান ।

এক কেজি গরুর মাংসের দামে,এক মণ ধান ।

সিরাজগঞ্জ রায়গঞ্জ, প্রতিনিধি,

সিরাজগঞ্জ জেলাজুড়ে শুরু হয়েছে বোরো ধান কাটার উৎসব। ফলনও এবার মোটামুটি ভালো। তবে ধানের দাম নিয়ে অখুশি কৃষক। বর্তমানে জেলার বিভিন্ন হাটে বোরো ধান বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৬৫০ টাকা মণ দরে। অথচ এক কেজি গরুর মাংসের দাম ৫০০ টাকা।

 বৃহস্পতিবার জেলার রায়গঞ্জ, সদর, তাড়াশ ও কাজীপুর উপজেলার ২০ জন কৃষক ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে ধানের দাম কমে যাওয়ার বিষয়টি জানা যায়। জেলার নয়টি উপজেলায় চলতি মৌসুমে ১ লাখ ৪১ হাজার ৪০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়। ফলন ভালোই হয়েছে উল্লেখ করে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরের একটি সূত্র জানায়, আবহাওয়া এখন পর্যন্ত অনুকূলে রয়েছে। এ অবস্থা থাকলে কৃষক আশানুরূপ ফলন পাবেন।তবে রায়গঞ্জসহ কয়েকটি উপজেলায় ব্লাস্টে আক্রান্ত হয়ে ফসলের কিছু ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়। এ বিষয়ে কৃষি বিভাগের উপপরিচালক হাবিবুল হক বলেন, সারা জেলায় ব্লাস্টে প্রায় ৪০ হেক্টর জমির ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।রায়গঞ্জ উপজেলার ধানগড়া এলাকার কৃষক মিজানুর রহমান বলেন, ৪৮ শতক জমির ধান কাটতে শ্রমিককে দিতে হয়েছে ৩ হাজার ৫০০ টাকা। সঙ্গে দুপুরের খাবার। এর আগে ধান চাষ ও সার বাবদ প্রায় ১১ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। হাটে এ ধান বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৫৫০ টাকা মণ। তাতে ২৭ মণ ধান বিক্রি করে পাওয়া যাবে ১৬ হাজার ২০০ টাকা। যোগ-বিয়োগ করলে কিছুই লাভ হয় না জানিয়ে তিনি বলেন, লাভ একটাই, একসঙ্গে কিছু টাকা পাওয়া যায়।

আবদুল হালিম নামের একজন কৃষক বলেন, কৃষকেরা ধান বিক্রি করতে গেলে দাম পান না। কিন্তু কিনতে গেলে দাম চড়া। গরু বিক্রি করতে গেলে দাম কমে যায়। অথচ এখন এক মণ ধান বিক্রি করে পাওয়া যায় এক কেজি গরুর মাংস।একই ধরনের কথা বলেন আরও পাঁচজন কৃষক।ধানগড়া বাজারের মাংস ব্যবসায়ী জব্বার বলেন, ধান কাটার শ্রমিকদের দুপুরে খাওয়াতে হয় বলে এ সময়ে গরুর গোশতের চাহিদা বাড়ে। এ ছাড়া গরুর দাম বেশি,গরুর চামড়ার দাম নাই, তাই এখন মাংসও বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST