ঘোষনা:
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু। ডিমলায় তিস্তার চরে ভুট্টার বাম্পার ফলন। সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী।
পটুয়াখালীর বিভিন্ন এলাকায় জোয়ারের পানি প্রবেশ করে প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল।

পটুয়াখালীর বিভিন্ন এলাকায় জোয়ারের পানি প্রবেশ করে প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল।

 

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ॥

ভারতের উড়িষ্যায় আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’র প্রভাবে পটুয়াখালীতে দুপুরে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি শুরু হয়েছে। সাগর উত্তাল থাকায় বাতাসের গতিবেগ আগের থেকে বাড়তে শুরু করেছে। জেলার উপকূলীয়গুলো বাঁধ অরক্ষিত হওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় জোয়ারের পানি প্রবেশ করে প্লাবিত হচ্ছে।

শুক্রবার (০৩ মে) প্রবল ঘূর্ণিঝড় ফণি কারণে উপকূলের জেলাগুলোতে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত ও বরিশাল অঞ্চলে ভারী বৃষ্টিপাতের সর্তকতা জারি করেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

এদিকে সংকেত চলাকালীন পটুয়াখালীর নদী ও খালগুলোতে জোয়ারে পানি স্বাভাবিকের তুলনায় একটু বেশি হয়েছে। এসব এলাকায় অরক্ষিত বাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশ করে অন্তত ১০টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

মির্জাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল আল জাকির জানান, উপজেলার ৪নং দেউলি সুবিধা ইউনিয়নের মিন্দিয়াবাদ এলাকায় অরক্ষিত বাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশ করেছে। এতে কোনো গ্রাম বা বসতবাড়ি প্লাবিত হয়নি। শুধুমাত্র নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

কলাপাড়ার ইউএনও তানভীর আহম্মদ বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ থাকার কারণে লালুয়া ইউনিয়নে চারিপারা ও মহিপুরের নিজামপুর এলাকায় কিছু পানি প্রবেশ করেছে। যেটা অন্যান্য জোয়ারেও হয়ে থাকে।

এদিকে রাঙ্গাবালী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাশফাকুর রহমান জানিয়েছেন, মধ্য চালিতাবুনিয়া, চিনাবুনিয়া, গরুভাংগা এলাকায় পানি প্রবেশ করেছে। তবে এ এলাকার বাসিন্দাদের আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও এ এলাকার লোকজন গলাচিপা ও রাঙ্গাবালী এলাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে। অনেকে শহরে তাদের আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে।ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে সকাল থেকে কলাপাড়া, রাঙ্গাবালী ও গলাচিপা উপজেলার বিভিন্ন দীপ ও চরে এ পর্যন্ত ৪০ হাজার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছে প্রশাসন।গ্রামপোষ্টকে এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হেমায়ত উদ্দিন।তিনি আরও বলেন, আমরা ঝুঁকিপূর্ণ ৬টি উপজেলার সব জনগণকে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে আসতে সক্ষম হবো। জেলা প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী, বিমান বাহিনী, নৌ বাহিনী, কোস্টগার্ড, ফায়ার সার্ভিস ও কমিউনিটি ভলান্টিয়ার এবং রেড ক্রিসেন্টসহ সব দফতর বা সংস্থা প্রস্তুত রয়েছে।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST