ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেডিকেল হাসপাতালে নারীসহ দুই জনের মৃত্যু। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উপজেলা শাখা গঠনের আলোচনা সভা । নীলফামারীতে চাঁদা দিতে না পারায়,ঘরে অগ্নিসংযোগ জোড়পূর্বক মাছ চুরি। সৈয়দপুরের তিন শিক্ষার্থীর ভর্তি অনিশ্চিত মেডিকেল কলেজে । করোনা আক্রান্ত জননেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন অনেকটা সুস্থ্য বোধ করছেন। লকডাউনে ১০টা -০১ টা পর্যস্ত খোলা থাকবে ব্যাংক সেবা। চাঁদ দেখা গেছে, বুধবার থেকে পবিত্র রমজান শুরু। শঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই, সরকার সবসময় পাশে থাকবে;প্রধানমন্ত্রী। সিলেটে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী ক্রিকেট দলের ৫ ক্রিকেটার করোনা শনাক্ত। চাঁপাইনবাবগঞ্জ আতাহার বাজার হতে গাঁজাসহ এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৫।
পঞ্চগড়ের ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদা’র ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাবান্দায় অপরাধমূলক কর্মকান্ড বিলুপ্তপ্রায়

পঞ্চগড়ের ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদা’র ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাবান্দায় অপরাধমূলক কর্মকান্ড বিলুপ্তপ্রায়

হামিদা আক্তার স্মৃতি, নীলফামারী :

পঞ্চগড়ের বাংলাবান্দা সীমান্তে চোরাচালান ও মাদক ব্যাবসাসহ নানাবিধ অপরাধমূলক কর্মকান্ড লেগেই থাকতো একসময়। কিছুই প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়নি তখন। শত চেষ্টা করেও যেন বিফল হয়ে পড়ে দেশের উত্তরাঞ্চলের সীমান্তবর্তী এ জনপদের মানুষজন। অপরাধীরা অপরাধের সর্গরাজ্যে মনে করতো তৎকালীণ সময়ে। প্রতিবেশী দেশ ভারতের সীমান্ত ঘেষা বাংলাবান্দার গ্রামগুলিতে হরহামেশাই ঘটতো চোরাচালান, বাল্যবিবাহ, খুন, ধর্ষণ এমনকি রেহাই পেত না যুব সমাজের তুরুণ যুবকেরাও মাদকের ছোবল থেকে। কিন্তু এখন আর এসব অপরাধ চোখেই পড়বে না পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার একেবারেই ভারতীয় সীমান্তে অবস্থানরত ১নং বাংলাবান্দা ইউনিয়নের কোথাও। ইউনিয়ন পরিষদের অফিস কক্ষে বসেই সম্প্রতি একান্ত আলাপচারিতায় উল্লেখিত কথাগুলি বলছিলেন তারুন্যের প্রতীক টানা দু’বারের নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কুদরত-ই-খুদা মিলন। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যবৃন্দের উদ্যোগে স্থানীয় সর্বসাধারণের সার্বিক সহযোগীতায় সর্বোপরি আমার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এ ইউনিয়নে এসব অপরাধমূলক কর্মকান্ড নিমূর্ল করা সম্ভব না হলেও এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। বাংলাবান্দা ইউনিয়ন পরিষদের নানা উদ্যোগের ফলে এবং বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সামগ্রিক উন্নয়নে এই ইউনিয়ন পরিষদটি দেশের মধ্যে রোল মডেলের দিকে ধাপিত হয়ে সাফল্যের দ্বার প্রান্তে রয়েছে। এখানে এখন আর বাল্যবিবাহ চোখে পড়বে না। ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রাম-গঞ্জে উঠান বৈঠক, জন সচেতনতায় ও সভা সেমিনারসহ নানা উদ্যোগের ফলে সমাজের ব্যাধি নামে পরিচিত শিশু বিবাহ বা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়েছে। কঠোর হস্তে দমন করা হয়েছে মাদক চোরাচালানসহ চোরাচালানকারী ব্যাবসায়ীদের। সমাজের মানুষ সচেতন হওয়ায় এখন আর এই জনপদে ঘটে না খুন ও ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ। এখানকার আইন শৃখংলা বাহিনীর তৎপরতায় প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে অপরাধমূলক কর্মকান্ড। তিনি আরো বলেন, সরকারের নানা উন্নয়ন এখানে যথাযথ ভাবে প্রতিপালন হওয়ায় সারা দেশের ন্যায় উত্তরের একেবারেই শেষ প্রান্তে এই বাংলাবান্দায় উন্নয়ন হয়েছে সমান তালে। চার লেনের বিশ্ব রোড় রংপুর-দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় হয়ে বাংলাবান্দা জিরো পয়েন্ট স্থলবন্দর পর্যন্ত এসেছে। ফলে এ অঞ্চলের সাথে সারা দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ঘটেছে অকল্পনীয়। এ কারনে বাংলাবান্দা স্থলবন্দর দিয়ে প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে আসা পাথরসহ নানা মালামাল খুব সহজেই পৌঁছে যাচ্ছে দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত। আর এসব সবেই সম্ভব হচ্ছে এ অঞ্চলে অপরাধ মূলক কর্মকান্ড বন্ধ হয়ে যাওয়ায়। দেশে-বিদেশের ব্যবসায়ীরা এখন নির্বিঘেœ সাধছন্দে ব্যাবসা বানিজ্যে চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলে দেশের রাজস্ব রেড়েছে অনেকগুন। সহজ সরল কমল হৃদয়ের কর্মচাঞ্চল্য বিনয়ী মোঃ কুতরাদ-ই-খুদা মিলন ছোট বেলা থেকেই বাংলাবান্দা গ্রামে তিল তিল করে নিজেকে গড়ে তুলেছেন এলাকাবাসীর ভরসা স্থল হিসেবে। ছোট বেলা থেকেই তিনি ছিলেন পরোপকারী ও সাহসী প্রকৃতির। এলাকায় কারও দু:খে নিজেকে ঠিক রাখতে পারতেন না। সহায় স্ববলহীন অসহায়দের পাশে দাড়াঁনোই যেন টকবকে যুবক মিলন’র নেশা। একান্তে আলাপকালে জানা যায়, গ্রামের সভ্রান্ত পরিবারে বাবা মোঃ সামশুদ্দোহা ও মা মোছাঃ কাদিরা বেগমের কোল জুড়ে আসেন ফুটফুটে শিশু মিলন। শিশুকাল থেকেই তিনি ছিলেন চঞ্চল প্রকৃতির। গ্রামেই একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালেয় হাতেখড়ি তার। এরপর প্রাথমিকের গন্ডি পেড়িয়ে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১৯৯৭ সালে এসএসসি পাশ করেন। উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হয়ে তিনি এইচএসসি ও বিএ পাশ করেন। কলেজ জীবনে প্রথমে ছাত্রলীগ পরে যুবলীগ বর্তমানে তিনি আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী হয়ে কাজ করে চলেছেন নিষ্ঠার সাথে। বর্তমানে তিনি এলএলবিতে অধ্যায়নরত। তিনি নিজেকে আইনজীবি পেশায় নিয়োজিত করতেই অধ্যয়ন করছেন আইন বিষয়ে। জনশ্রুতি আছে, মাধ্যমিকে অধ্যায়নরত অবস্থায় তিনি এলাকার সাধারণ মানুষের শিরোমনিতে পরিনত হয়েছিলেন। ফলে অনিচ্ছা সত্বেও স্থানীয়দের চাপের মুখেই তিনি দাঁড়িয়ে যান ইউপি নির্বাচনে। ভোট যুদ্ধে ৬ জনকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যান ভোট যুদ্ধে। প্রথম বারেই জয়ী হয়ে ১নং বাংলাবান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের চেয়ারে বসেন ২৭ জুলাই/১১ সালে। এরপর থেকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। এগিয়ে চলেছেন দুর্বার গতিতে। এলাকায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেও পড়াশুনা চালিয়ে গেছেন সমান তালে। জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেও উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতেই চালিয়ে যান পাশাপাশি লেখাপড়া। এদিকে এলাকায় চেয়ারম্যান হিসেবে আরো বেশী আত্বপ্রত্যয়ী হয়ে ওঠেন তিনি। সৎ, চরিত্রবান, ন্যায় বিচাররক ও দুষ্টের দমনে অকুতোভয় তিনি নানা অপরাধ মূলক কর্মকান্ডের মুলৎপাটন করেন। ফলে সর্বসাধারনের কাছে আরো বেশী জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। তিনি দ্বিতীয় বারের মতো আবারও ভোট যুদ্ধে অংশগ্রহন করেন। একইভাবে আবারও ৫ জন প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীকে পিছনে ফেলে আবারও বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে ২৭ জুলাই/১৬ সালে একই চেয়ারে অধিষ্ঠ হন। একটি কার্যকর ইউনিয়ন পরিষদে পরিণত করেছেন। পরিশেষে তিনি ব্যক্ত করেন, মানুষের জন্য আমার মন কাঁেদ তাই মানুষের পাশেই থাকা আমার নেশায় পরিণত হয়েছে। মানুষের কল্যাণে কাজ করা কতটা প্রাশান্তি তা বলে কাউকে বুঝানো সম্ভব নয়। একারনেই বাকীটা জীবন এভাবেই মানুষের সুখে-দুখে পাশে থেকেই মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রেখেই চিরনিন্দ্রায় শায়িত হতে চাই।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST