ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুড়ে ছাই পাঁচটি দোকান তিস্তার চরে গম চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের নীলফামারীতে উগ্রবাদ, জঙ্গি বাদ দমনে পাঁচ দিন ব্যাপী সচেতনতামূলক সেমিনার শুরু সক্ষম সকলকে কর প্রদানের আহবান প্রধানমন্ত্রীর রংপুর বিভাগীয় গন সমাবেশে নীলফামারী উপজেলা বিএনপি স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ  নীলফামারীর জলঢাকায় স্কুল বন্ধে নিমিসেই নিয়োগ শেষ, সভাপতির বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ দেশ পাকিস্তান হবে নাকি মালয়েশিয়া- সিঙ্গাপুর, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
কিশোরগঞ্জে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্রে চিকিৎসক সংকটসহ নানা সমস্যায় জরজরিত।চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত দরিদ্র মানুষ।

কিশোরগঞ্জে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্রে চিকিৎসক সংকটসহ নানা সমস্যায় জরজরিত।চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত দরিদ্র মানুষ।

কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী)প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্রটিতে চিকিৎসক সংকটের কারণে স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারন রোগীরা। তিন লক্ষাধিক মানুষের স্বাস্থ্য সেবার ভরসাস্থল এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্র। ৫০ শয্যার এ হাসপাতালটিতে ২৯ টি ডাক্তারের পদ থাকলেও বর্তমানে কর্মরত আছেন মাত্র ৫জন।
কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্র সুত্রে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্য্রটিকে বর্তমান সরকারের আমলে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উর্ত্তীণ করা হয়। গত ২০১৩ সালের ২৯ জুন তৎকালিন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন ৫০ শয্যা বিশিষ্ট সম্প্রসারন ভবনটির উদ্ভোধন করেন। ৫০ শয্যার এ হাসপাতালটিতে মোট ২৯ টি ডাক্তারের পদ থাকলে কর্মরত আছেন মাত্র ৫ জন। কর্মরত ডাক্তাররা হলেন মেডিকেল অফিসার সুজাত শরীফ জেমস, বিপাশা রায়,নাফিসা সুলতানা, রেবেকা সুলতানা ও মাহফুজুর রহমান। হাসপাতালটিতে মেডিসিন কনসালটেন্ট , শিশু কনসালটেন্ট, সার্জারী,গাইনী, এনেসথেসিয়া, অর্থপেডিক্য্র, কার্ডিওলজি, চক্ষু, ইএনটি, চর্ম ও যৌন কনসালটেন্ট থাকার কথা থাকলে পদ গুলো শুন্য রয়েছে। সিনিয়র ষ্টাপ নার্স ১৯ জন থাকার কথা থাকলেও কর্মরত আছেন ১৪ জন। ১৪ জন সিনিয়র ষ্টাপ নার্সের মধ্যে ৪ জনকে সৈয়দপুর ও নীলফামারী সদর হাসপাতালে ডেপুটেশনে নেয়া হয়েছে। এছাড়াও হাসপাতালটিতে তৃতীয় শ্রেণীর ৪৩ টি কর্মচারীর পদ থাকলেও কর্মরত আছেন ৩৫ জন এবং চতুর্থ শ্রেণীর ৩০ টি পদের মধ্যে কর্মরত আছেন মাত্র ৭ জন।
কিশোরগঞ্জ স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ মেজবাহুল হাসান বলেন, কিশোরগঞ্জ হাসপাতালটিকে ডাক্তার, নার্স,আয়া, পরিচ্ছনাতাকর্মী ছাড়াও আরো অনেক সমস্য রয়েছে। এর মধ্যে একমাত্র এক্য্ররে মেশিনটি গত কয়ক বছর থেকে নষ্ঠ । আলট্রাসনোগ্রাম মেশিন নেই। ডেন্টাল সার্জন আছে কিন্তু ডেন্টাল ইউনিট নেই এবং ইর্মাজেন্সি মেডিকেল অফিসার নেই।
নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান আদেল বলেন, আমি সংসদ সদস্য হিসাবে শফত নেওয়ার পর কিশোরগঞ্জ হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্সসহ বিভিন্ন সমস্যার বিষয়ে জানতে পারি সে অনুযায়ী গত ১৮ ফেব্রয়ারী সংসদে কিশোরগঞ্জ হাসপাতালের জন্য একটি এ্যাম্বুলেন্সের জোড়ালো দাবি জানালে গত ৩ এপ্রিল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একটি এ্যাম্বুলেন্স দেয়।তারিখঃ





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST