ঘোষনা:
শিরোনাম :
প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সাফল্যের সাথে কাজ করছে ডোমার ভিত্তি বীজআলু উৎপাদন খামার। সৈয়দপুরে সরকার নির্ধারিত দামের দ্বিগুণ দরে বিক্রি হচ্ছে আলু পেঁয়াজ সৈয়দপুরে পুলিশের ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিত নীলফামারীতে জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের মানববন্ধন অভিযোগ সত্ত্বেও নির্বাচনী ফল মেনে নিলেন প্রার্থীরা নীলফামারীতে শিক্ষার্থীদের শব্দ সচেতনতামুলক প্রশিক্ষণ হলুদ সাংবাদিকতা রোধে তালিকা করা হচ্ছে; প্রেস কাউন্সিল চেয়ারম্যান নীলফামারীতে সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা ডিউটি পরিদর্শন করেন পুলিশ সুপার নীলফামারীতে ধর্ষণ মামলায় একজনের যাবজ্জীবন ও অর্থদন্ড অবরোধকালে চট্টগ্রাম সিটি গেট এলাকায় গাড়ি ভাংচুর, সড়কে টায়ার পুড়িয়ে বিক্ষোভ, আটক ১০
কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পুলিশের সঙ্গে নিহত ১ ।

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পুলিশের সঙ্গে নিহত ১ ।

 

টেকনাফ প্রতিনিধি ,
কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে একজন নিহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার রাত ১২টার দিকে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের আলীখালীর সোলার প্ল্যান্ট-সংলগ্ন এলাকায় টেকনাফ-কক্সবাজার আঞ্চলিক সড়কে বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ হানিফ (৩৮)। তিনি উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের নাটমোরাপাড়ার গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশের দাবি, নিহত ব্যক্তি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি ইয়াবা ব্যবসা, অস্ত্র বহন, হত্যার অভিযোগে করা মামলাসহ ছয়টি মামলার পলাতক আসামি। ঘটনাস্থল থেকে দেশে তৈরি তিনটি অস্ত্র (এলজি), নয়টি তাজা কার্তুজ ও চার হাজার ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।এ ঘটনায় তিনজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাস বলেন, গতকাল সকাল আটটার দিকে হ্নীলার নাটমোরাপাড়া এলাকা থেকে ছয়টি মামলার পলাতক আসামি মোহাম্মদ হানিফকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী।হানিফের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী তাঁকে নিয়ে ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারে অভিযানে গেলে তাঁর সহযোগীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়ে। এতে তিন পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় পালাতে গেলে উভয় পক্ষের গোলাগুলির মাঝখানে পড়ে হানিফ গুলিবিদ্ধ হন। পরে আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক হানিফকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।এ বিষয়ে জানতে চাইলে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক শোভন দাস গ্রাম পোষ্টকে বলেন, হাসপাতালে আনার আগে হানিফ নামের একজন মারা গেছেন। তাঁর শরীরের তিনটি গুলির চিহ্ন রয়েছে। পুলিশের তিনজন সদস্যকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।গত বছরের ৪ মে থেকে দেশব্যাপী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিশেষ মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয়। এ নিয়ে র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধ ও এলাকায় মাদকের প্রভাব বিস্তারের ঘটনায় কক্সবাজার জেলায় ১০৪ ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এক রোহিঙ্গা নারীসহ ২১ রোহিঙ্গা নাগরিক রয়েছেন। এর মধ্যে টেকনাফে ৬৩ ও উখিয়ায় দুজন নিহত হন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST