ঘোষনা:
মধুমাসকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত গাইবান্ধার খাঁচা’র গ্রাম ।

মধুমাসকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত গাইবান্ধার খাঁচা’র গ্রাম ।

গাইবান্ধা প্রতিনিধি ,
গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলার হরিনাথপুর গ্রাম। আশেপাশের এলাকার লোকজনের কাছে খাঁচার গ্রাম নামে পরিচিত। এই গ্রামের প্রায় ১০০ পরিবার বাঁশ শিল্পের সাথে জড়িত। সারা বছর তারা বাঁশ দিয়ে নানা জিনিসপত্র তৈরী করেন। কিন্তু মূলত ফালগুণ চৈত্র মাস থেকে শুরু হয় তাদের খাঁচা বানাবার কাজ। চলে মধুমাস জৈষ্ঠ্যের শেষ ভাগ পর্যন্ত। তাদের জন্য লাভজনক সময়ও এটাই।
সারা বছর ডালি, কূলা ,চালন, ঘরের নক্সী ছাদ, মাছ ধরার ফাঁদ আরও কত কি বানান ওই গ্রামের বাঁশের কারিগররা। কিন্তু অপেক্ষায় থাকেন মধুমাসের। কারণ এসময় তাদের তৈরী খাঁচা বা কথ্য ভাষায় খাচারী নিতে দিনাজপুর, রংপুর, রাজশাহী, ঠাকুরগাওঁ, যশোর থেকে চলে আসেন পাইকাররা। আম, লিচু, জাম এবং টমেটোর মত সবজী বিভিন্ন জায়গায় পাঠানোর জন্য প্রয়োজন হয় এ সব খাঁচার। দামটাও মেলে অন্য সময়ের চাইতে বেশি। তাই ওই খাঁচার গ্রামের নারী, পুরুষ, স্কুল কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থী সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়েন বাঁশ কেটে খাঁচা বুনতে। একটা বাঁশ থেকে অন্তত: ১৫টা থেকে ২০টা খাঁচা বানানো সম্ভব। ১০০টাকার বাঁশ কিনলে প্রায় ৪০০টাকা আয়। শারিরীক পরিশ্রম আর শিল্প নৈপুন্য মূল পুঁজি। আবার অন্য কাজের পাশাপাশি কিংবা ঘরকন্যার কাজের ফাঁকে চলে খাঁচা বানাবার কাজ। তাই খুশির ছোঁয়া কারিগরদের কন্ঠে। তবে এই কাজের জন্য তাদের নির্ভর করতে হয় বেসরকারী সংগঠনের ঋনের ওপর। তারা সরকারী সহায়তা চান। খাঁচার গ্রামের এই মানুষগুলোর জন্য বিশাল অংকের পুঁজির প্রয়োজন হয় না। যতটুকু দরকার তা দেওয়া কর্তৃপক্ষের জন্য জটিল কোন কাজ নয় বলে সংশ্লিষ্টদের অভিমত। গাইবান্ধা বিসিকের সহকারী মহা-ব্যবস্থাপক শাহ মোহাম্মদ জোনায়েদ খাঁচার তৈরির কারিগরদের প্রশিক্ষণ ও প্রয়োজনে শর্ত সাপেক্ষে ঋণ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST