ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারী চৌরঙ্গীতে আগুন, দোকান ভস্মীভূত নীলফামারী উত্তরণ নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারি ইনস্টিটিউটের আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত সাতক্ষীরায় ২০ মেট্রিক টন অপরিপক্ক আম জব্দের পর তা বিনষ্ট নীলফামারী সদর উপজলোর মনোনয়ন যাচাই শেষ, এক চেয়ারম্যান প্রার্থির মনোনয়ন অবৈধ নীলফামারীতে মহান মে দিবস পালিত নীলফামারীতে গচ্ছিত জামানত ও পি.এফ এর টাকা উদ্ধারের দাবীতে প্রোণ অফিস ঘেরাও। নীলফামারীতে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ। নীলফামারী জলঢাকার পৌরসভায় নোভা বিজয়ী নীলফামারীর জলঢাকা উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থির পক্ষে প্রচারণা, এমপির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন। নীলফামারীতে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সাংবািদকের নামে থানায় মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা
তেঁতুলিয়ায় সৎ মাকে ধর্ষণ চেষ্টা, শাস্তি কানে ধরে উঠবস ।

তেঁতুলিয়ায় সৎ মাকে ধর্ষণ চেষ্টা, শাস্তি কানে ধরে উঠবস ।

পঞ্চগড় প্রতিনিধি
পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার তিরনইহাট এলাকায় সৎ মাকে (৫০) ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে ইমান আলী (৩২) নামে এক যুবককে শালিসের মাধ্যমে শাস্তি স্বরূপ বেত্রাঘাত ও কানে ধরে উঠবস করেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে। সোমবার গভীর রাতে এই শালিস করেন তেঁতুলিয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুলতানা রাজিয়া ও তিরনইহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা।
স্থানীয়রা জানায়, ১৭ মে শুক্রবার ইমান আলীর মেয়ে রেনু আক্তারের প্রসব বেদনা উঠলে তাকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্ত্রী রাশেদা খাতুন। ওই দিনই বাড়িতে গৃহস্থলির কাজ করার জন্য ইমান আলী শালবাহান এলাকায় থাকা তার ওই সৎ মাকে নিয়ে আসে। ১৮ মে শনিবার রাতে বাড়িতে কেও না থাকার সুযোগে ইমান আলী তার সৎ মাকে জোর করে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। পরদিন বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ইমান আলীর বাড়িতে গিয়ে ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেন। এ সময় ইমান আলী পালিয়ে যায়। ওই সৎ মাকে ওই এলাকার মুসলিম উদ্দিনের জিম্মায় রাখা হয়। পরদিন সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য মহসিনুল হক রুবেল ওই নারীকে তার বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। এ সময় বিষয়টি ধাপা চাপা দেয়ার চেষ্টা করা হয়। গত রোববার বাড়ি ফিরে ইমান আলী। পরে স্থানীয়দের চাপে সোমবার রাতে ওই এলাকার হাসমত আলী মাস্টারের বাড়িতে শালিস বসে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুলতানা রাজিয়া ও তিরনইহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, ইউপি সদস্য মহসিনুল হক রুবেলসহ স্থানীয় উপস্থিত ছিলেন। ওই সৎ মাকে ছাড়াই শালিসের মাধ্যমে ইমান আলীকে সামান্য বেত্রাঘাত ও কানে ধরে উঠবস করিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।
তিরনইহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম জানান, শালিসে সর্বসম্মতিক্রমেই ইমান আলীকে এই শাস্তি দেয়া হয়েছে। সবাই সেখানে উপস্থিত ছিলেন। আমরা যা করেছি সবার ভালোর জন্যই করেছি।
তেঁতুলিয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুলতানা রাজিয়া বলেন, এ বিষয়ে আমি কোন কথা বলতে চাচ্ছি না। তেঁতুলিয়া মডেল থানার ওসি জহুরুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় থানায় কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আমরা প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST