ঘোষনা:
আলোর ঝরনাধারা আর সুরে ভাসানোর আনুষ্ঠানিকতা দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু।

আলোর ঝরনাধারা আর সুরে ভাসানোর আনুষ্ঠানিকতা দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু।

ক্রীড়া প্রতিবেদক,

আইসিসি প্রথমে বলেছে এটা হবে ‘সারপ্রাইজ শো’। আরেকটু জোর দিতেই কিনা পরে আবার জুড়ে দেওয়া হলো, ‘এটিই হবে বিশ্বকাপের সর্বকালের সবচেয়ে আড়ম্বরপূর্ণ শুরু।’ সেই শুরুতে কী কী চমক থাকল, অনুষ্ঠান শেষ হওয়া পর্যন্ত সে তালিকা দেওয়া কঠিন ছিল। বিশ্বকাপের ‘ওপেনিং পার্টি’র শুরুটাই হয়েছে বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায়।

ওভালে স্বাগতিক ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মাঠে গড়াচ্ছে আজ। কিন্তু শুরুর আগে যে রং ছিটানো, আলোর ঝরনাধারা আর সুরে ভাসানোর আনুষ্ঠানিকতা, সেসব ওই সারপ্রাইজ শোর মোড়কে ঢাকা ‘ওপেনিং পার্টি’তেই হয়ে গেছে। বাকিংহাম প্যালেসকে প্রেক্ষাপটে রেখে অনুষ্ঠানটি হয়েছে লন্ডনের বিখ্যাত ‘দ্য মলে’। রানির বাড়ি থেকে ট্রাফালগার স্কয়ারের দিকে সোজা চলে যাওয়া এই সড়ক অতীতেও সেজেছে অনেক বড় উপলক্ষে। এবার সাজল বিশ্বকাপের রঙে।

অনুষ্ঠানে চার হাজার দর্শক ছিলেন। সংখ্যাটা জেনে নিশ্চয়ই ভেবে কূল পান না, তবে কি ওপেনিং পার্টি সবার জন্য উন্মুক্ত ছিল! ব্যাপার আসলে উল্টো। এই চার হাজার দর্শককে বলা হচ্ছে ‘সৌভাগ্যবান’, যাঁদের সারা বিশ্ব থেকে ব্যালটের মাধ্যমে বেছে নিয়েছে আইসিসি। এর বাইরে আর কোনো দর্শক তো নয়ই, এমনকি সংবাদমাধ্যমের জন্যও অনুষ্ঠানে যাওয়ার সুযোগ ছিল সীমিত। ক্রিকেট–বিশ্বকে চমকে দিতে অনুষ্ঠানটি ছিল আইসিসির গোপনীয়তার চাদরে ঢাকা। বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের মুকুটধারীরা থাকবেন এবং এটি হবে ক্রিকেট, সংগীত ও বিনোদনের অভূতপূর্ব মঞ্চায়ন—এর বাইরে ওপেনিং পার্টি নিয়ে আগে থেকে তারা আর কিছুই বলেনি।

ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ হলে তাতে বিশেষ কিছু থাকবে না, সেটি হয়ও না। ক্রিকেটের নাড়ির টান এই দেশের সঙ্গে। ১৯৭৫ সালে প্রথম বিশ্বকাপ হয় এখানে, সেই থেকে এ নিয়ে সর্বোচ্চ পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপের স্বাগতিক ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপের ওপর তাদের যেমন একটা অধিকার আছে, তেমনি ক্রিকেট–বাণিজ্য আর বিশ্বায়নের এই দূরন্ত সময়ে বিশ্বকাপকে আরও বেশি রাঙিয়ে তোলার দায়িত্বটাও ব্রিটিশদেরই বেশি।

বহু জাতি, বহু বর্ণ আর বহু ভাষার দেশটি দ্বিতীয় উদ্দেশ্য কিছুটা হলেও পূরণ করতে পারবে আশা করা যায়। ক্রিকেটকে বিশ্বের সরু থেকে সরুতম অলিতে-গলিতে ছড়িয়ে দিতে কালকের ওপেনিং পার্টিটাকেও তারা উৎসর্গ করেছে খেলাটির প্রতি আসক্ত-নিরাসক্ত ‘ফ্যান’দের উদ্দেশে। কিন্তু প্রথম যে কথাটি বলা হলো, বিশ্বকাপের প্রতি অধিকার, তা কি আজ পর্যন্ত প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে ইংল্যান্ড?

এ পর্যন্ত হওয়া ১১টি বিশ্বকাপের ৩টিতে ফাইনালে উঠলেও চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি একবারও। বিশ্বকাপের ওপর তাদের অধিকারের প্রশ্নটার বোধ হয় এখানেই নিষ্পত্তি হয়ে যাওয়া উচিত। তবে ঘরের মাঠে ফিরে আসা বিশ্বকাপে এবার দলটা একটু অন্য চেহারায়। হাবভাবে যেন বোঝাতে চাইছে, বিশ্বকাপ ট্রফির সুবাস নিয়ে সন্তুষ্ট থাকার দিন শেষ। ইংল্যান্ড এবার ওয়ানডের এক নম্বর দল হওয়ার উদ্‌যাপন করতে চায় ট্রফিটাকে আলিঙ্গন করে।

তা সেটি চাচ্ছে না কোন দল! ২০১৯ বিশ্বকাপের ফেবারিটদের যে সংক্ষিপ্ত তালিকা, তাতে ইংল্যান্ডের সমান ডেসিবলেই উচ্চারিত হচ্ছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার নাম। এখানেই শেষ নয়। ১৯৯২ সালে যেমন পাকিস্তান, ১৯৯৬ সালে যেমন শ্রীলঙ্কা; এবারও তেমন চমকে দেওয়া কোনো চ্যাম্পিয়নের আবির্ভাবের সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিচ্ছেন না অনেকে। গত আসরের কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়া বাংলাদেশ ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ খেলতে এসেছে সেমিফাইনালের লক্ষ্য নিয়ে। ৯ ম্যাচের লিগ পর্বের ফরম্যাটে সহজ নয় তারাও। তবে লক্ষ্যটা পূরণ হয়ে গেলে মাশরাফি বিন মুর্তজার দলইবা কেন সম্ভাবনার দিগন্তে শিরোপার উঁকিঝুঁকি দেখবে না!

এমন স্বপ্নময় সমাপ্তির কল্পনার জন্য শুরুটা যেমন হতে হয়, তেমন অবশ্য হয়নি বাংলাদেশ দলের ওপেনিং পার্টি, মানে বিশ্বকাপ শুরুর শুরু। পরশু কার্ডিফের প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতকে দুটি সেঞ্চুরি এবং ৩৫৯ রানের সম্ভার ‘উপহার’ দিয়ে ৯৫ রানের হার ব্যাটসম্যানদের স্পিন খেলার সামর্থ্যের সঙ্গে অস্বস্তির কাঁটা পুঁতে দিয়েছে নিজেদের স্পিনারদের বোলিং সামর্থ্যও।

অস্বস্তি, তবে অনাস্থা নয়। বিশ্বকাপ-অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে বরং এবারের বাংলাদেশ দলের ওপরই সর্বোচ্চ আস্থা সবার। মাশরাফি তাঁর শেষ বিশ্বকাপে পাচ্ছেন সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর মতো পরীক্ষিত সহযোদ্ধাদের। দলে তরুণ প্রাণও অফুরান। মেহেদী হাসান মিরাজ গত কয়েক বছরের মধ্যেই সম্ভাবনার দীপ্তিতে সবচেয়ে উজ্জ্বল মুখ। সৌম্য সরকার, লিটন দাসের ব্যাট প্রাক্‌-বিশ্বকাপ সময়ে রানের স্পন্দনে স্পন্দিত। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ রান-বন্যায় ভেসে যাবে বলে যে পূর্বানুমান, সেটি সত্যি হলে বাংলাদেশের নৌকায় তামিম-সাকিব-মুশফিক-মাহমুদউল্লার সঙ্গে পাল তুলতে পারেন তাঁরাও।

দুশ্চিন্তার চোরাস্রোত আছে বোলিংয়ের শিরা-উপশিরায়। বিশ্বকাপের ব্যাটিং উইকেটে নিজেদের কতটা বাঁচিয়ে রাখতে পারবে মোস্তাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনদের নিয়ে গড়া পেস আক্রমণ? ভারতের সামনে স্পিনটাও মার খেয়ে যাওয়ায় প্রস্তুতি ম্যাচ বোলিং নিয়ে শঙ্কা আরেকটু বাড়িয়েছে।

তবে একটা ভালো দিক, বিশ্বকাপের আগে দলে বড় কোনো চোট-আঘাতের সমস্যা নেই। অন্য অনেক দলেরই তা আছে। দক্ষিণ আফ্রিকা যেমন বিশ্বকাপের মাত্র দুই দিন আগে শুনল সবচেয়ে বড় দুঃসংবাদ। কাঁধের চোটের কারণে আজ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচে তারা পাচ্ছে না ডেল স্টেইনকে। ইংল্যান্ডের পেসার মার্ক উডের সমস্যা পায়ে, আঙুলে চোট পেয়েছিলেন অধিনায়ক এউইন মরগানও। তবে তিনি হয়তো আজ খেলবেন। কাঁধের চোটের কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতীয় দলে ছিলেন না মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান কেদার যাদব। অস্ট্রেলিয়াকেও চিন্তায় ফেলে দিয়েছিল উসমান খাজার হাঁটুর চোট।

বিশ্বকাপের নতুন সকালকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত ওভাল। এ রকম ১১টি ভেন্যুতে ১০ দলের ৪৬ দিনের টুর্নামেন্টটি ১৪ জুলাইয়ের ফাইনাল দিয়ে শেষ হবে লর্ডসে। সেদিন কারা হাসবে শেষ হাসি? উঁচু ভলিউমে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে, তাদের কেউই? নাকি ‘ওপেনিং পার্টি’র মতো রানির দেশে ক্রিকেট মহোৎসবের ফাইনালটাও অপেক্ষা করছে কোনো ‘সারপ্রাইজ প্যাকেজ’ নিয়ে!’





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST