ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুড়ে ছাই পাঁচটি দোকান তিস্তার চরে গম চাষে আগ্রহ বেড়েছে কৃষকদের নীলফামারীতে উগ্রবাদ, জঙ্গি বাদ দমনে পাঁচ দিন ব্যাপী সচেতনতামূলক সেমিনার শুরু সক্ষম সকলকে কর প্রদানের আহবান প্রধানমন্ত্রীর রংপুর বিভাগীয় গন সমাবেশে নীলফামারী উপজেলা বিএনপি স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ  নীলফামারীর জলঢাকায় স্কুল বন্ধে নিমিসেই নিয়োগ শেষ, সভাপতির বিরুদ্ধে বাণিজ্যের অভিযোগ দেশ পাকিস্তান হবে নাকি মালয়েশিয়া- সিঙ্গাপুর, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী সত্য বলার সৎ সাহসেই গঠিত হবে স্মার্ট বাংলাদেশ: অ্যাড. মমতাজুল শঙ্কামুক্ত নন অভিনেত্রী শারমিন আওয়ামী লীগ শাসনামলে দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
পঞ্চগড়ে রেলের ফিরতি টিকিট কালোবাজারি চক্রের দখলে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও টিকেট পাচ্ছেন না যাত্রীরা

পঞ্চগড়ে রেলের ফিরতি টিকিট কালোবাজারি চক্রের দখলে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও টিকেট পাচ্ছেন না যাত্রীরা

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ,
পঞ্চগড়ে রেলের আগাম ফিরতি টিকিট পেতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ যাত্রীরা। রেল ষ্টেশনে টিকেট পাচ্ছেন না আবার রেলের অ্যাপসেও টিকেট কাটতে পারছেন না যাত্রীরা। অধিকাংশ যাত্রী দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়েও টিকেট পাচ্ছেন না। একটি সংঘবদ্ধ চক্র টিকেট কেটে রাখছে। পরে এসব টিকেট কালোবাজারিরা অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি করছে। দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে টিকিট না পেয়ে ক্ষুব্ধ যাত্রীরা। ভুক্তভোগীরা বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। পঞ্চগড় বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম রেলওয়ে স্টেশন থেকে ঢাকা নিয়মিত চলাচল করে তিনটি ট্রেন। সকাল ৭ টা ২০ মিনিটে দ্রুতযান এক্সপ্রেস, দুপুর ১ টা ১৫ মিনিটে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস এবং রাত ৯ টায় একতা এক্সপ্রেস পঞ্চগড় থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ঈদ শেষে কর্মএলাকায় ফিরে যেতে অগ্রীম টিকেট করতে এসে মারত্মক বিড়ম্বনায় পড়েছেন যাত্রীরা। টিকেটের জন্য স্টেশনে প্রতিদিন লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কিনতে হয়। গত ৩০ মে থেকে ধারাবাহিকভাবে ৮ জুন থেকে ১১ জুন পর্যন্ত ঈদের ফিরতি টিকিট বিক্রি শুরু করে রেল কর্তৃপক্ষ। সকাল ৯ টা থেকে টিকিট বিক্রি শুরু হলেও ভোর থেকেই লম্বা লাইন পড়ে যায়। মাত্র এক ঘন্টার মধ্যেই তিনটি ট্রেনের সব টিকিট বিক্রি শেষ হয়ে যায়। কিন্তু সে টিকিট সাধারণ মানুষের কাছে পৌছে না। একটি সংঘবন্ধ কালোবাজারিরা ভাড়া করা লোকজন লাইনে দাঁড়িয়ে থাকে। প্রতিদিন এরাই লাইনে দাঁড়িয়ে টিকেট সংগ্রহ করায় সাধারণ মানুষ টিকিট পাচ্ছে না। পরে কালোবাজারিরা এসব টিকেট তিনগুণ মূল্য যোগ করে টিকিট বিক্রি করছে। শোভন নন এসি চেয়ারের মূল্য ৫৫০ টাকা তা বিক্রি করছে দেড় হাজার টাকা। শোভন এসি চেয়ারের মূল্য ১ হাজার ৩৫ টাকা আর বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার টাকা। লাইনে দাঁড়িয়ে সিরিয়াল নেয়া লোকজনদের দেয়া হচ্ছে ৫’শ টাকা থেকে ১ হাজার টাকা। ক্ষমতাসীন প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের ছত্রছায়ায় স্টেশনের আশপাশের কালোবাজারি এই চক্রটি ৩০ মে থেকে টিকেট ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। #





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST