ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুলিশকে ব্যবহার করে জোরপূর্বক অন্যের জমি দখল নীলফামারীতে জোরপূর্বক মসজিদের সভাপতি হওয়ার পায়তারা, মুসল্লীদের মানববন্ধন। ডিমলায় সরকারী সেবা জনগনের দোরগোড়ায় দিতে চান ইউএনও উম্মে সালমা নীলফামারীতে পবিত্র ঈদুল আযহায় জেলা পুলিশের উৎসব সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদ সম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি,
নীলফামারী সৈয়দপুরে সেতুর অভাবে কৃষকদের নানা ভোগান্তি

নীলফামারী সৈয়দপুরে সেতুর অভাবে কৃষকদের নানা ভোগান্তি

সৈয়দপুরে সেতুর অভাবে কৃষকদের নানা ভোগান্তি

নুর মোহাম্মদ ওয়ালীউর রহমান রতন, সৈয়দপুর ,নীলফামারী প্রতিনিধি,
সৈয়দপুর শহরের ঘেঁষা খড়খড়িয়া নদীর কুন্দল অংশে সেতু না থাকায় প্রায় শত একর জমির চাষাবাদ নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন সংলগ্ন এলাকার কৃষকরা। দীর্ঘদিন এ অবস্থা চলে আসলেও দেখার যেন কেউ কেই।
একাবাসী জানায়, সৈয়দপুর শহরের ১১ নং ওয়ার্ডের কুন্দল মহল্লা ঘেঁষে বয়ে গেছে খড়খড়িয়া নদী। শুষ্ক মৌসুমে নদীটি ক্ষিণ ধারায় বইলেও ভর বর্ষায় এটি ভয়াল রুপ ধারণ করে। নদীর পূর্ব তীরে রয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সৈয়দপুর শহর রক্ষা বাধ। কিন্তু পশ্চিম তীরে বাধ না থাকায় ওই অংশের চাষাবাদে বিড়ম্বনার মুখোমুখী হচ্ছেন কৃষকেরা।
প্রতি বর্ষায় প্লাবিত হয় খড়খড়িয়া সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকা। নদীর পূর্ব তীরের বাধ ঘেঁষে কুন্দল গ্রামের প্রায় তিন শতাধিক কৃষকের আবাদি জমি রয়েছে নদীর পশ্চিম তীরে। নদী পার হয়ে ওই জমি চাষাবাদ করতে এলাকার কৃষকদের বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। কারণ নদী পারাপারে কোন সেতু নেই। নদী সাঁতরে অপর পারে যাওয়া সম্ভব না হওয়ায় সেখানকার জমি পরিণত হয়েছে এক ফসলি জমিতে।
এ কারণে দীর্ঘ দিন থেকে ওই এলাকার মানুষ কুন্দল গ্রামের ওই অংশে সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছে।
কুন্দলের কৃষক মহসিন আলি বলেন, আমাদের বিশাল সেতুর দরকার নেই। একটি ছোট্ট সেতু হলে ওপারের জমিতে গিয়ে নিয়মিত চাষাবাদ করা সম্ভব হতো।সাম্প্রতিক সময়ে কৃষিতে আধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার বেড়েছে চাষাবাদে এসেছে আধুনিকতা। কিন্তু নদীতে সেতু না থাকায় সময় মত আবাদি জমিতে সারের ব্যবহার, কীটনাশক ও ওষুধ প্রয়োগ, জমির ফসল রোপন ও ফসল ঘরে তোলা এবং বাজারজাত করতে আমাদের ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। প্রতি বছর লোকসান গুনতে হচ্ছে আমাদের।
এলাকাবাসী আরও জানায়, বছর দুয়েক আগে এলাকাবাসী নিজেদের মধ্যে চাঁদা তুলে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেছিল।
কুন্দল পুর্বপাড়ার কৃষক মকবুল হোসেন (৭০) জানান, ২০১৮ সালের বন্যায় বাঁশের সাকোটি শ্রোতের তোড়ে ভেসে যায়। এ সময় সাকো রক্ষায় গ্রমবাসীরা এগিয়ে এলে শ্রোতের তোড়ে বাশেঁর আঘাতে এক গ্রামবাসীর একটি পা’ ভেঙ্গে যায়। পরে দেড় বছরের চিকিৎসায় প্রায় দু’লাখ টাকা ব্যয় করে সুস্থ্য হয়েছেন ওই কৃষকের পা। এরপর আর এখানে কোন বাঁশের সাঁকো নির্মাণ হয়নি।
কুন্দল এলাকায় খড়খড়িয়া নদীতে সেতু না থাকায় দুর্ভোগের কথা জানালেন ওই এলাকার , আব্দুল মান্নান, আফজাল হোসেন, শহিদুল ইসলাম, মোকছেদ আলী, গোলাম মর্তুজা, শফিকুল ইসলাম, আতাউর রহমান, আনিছুর রহমান ও জহুরুল হক।
তাদের দাবি বড় কোন সেতু নয়। শুধু নদী পারাপার ও কৃষি পণ্য বহনের জন্য নদীর ওই অংশে ছোট আকারের একটি সেতু নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের।
সৈয়দপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশলী মামুনুর রশিদ বলেন, এলাকার কৃষি উৎপাদনের স্বার্থে অবশ্যই ওই স্থানে একটি সেতু নির্মাণ জরুরী।
নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসনের এমপি আহসান আদেলুর রহমান আদেল বলেন, ফসল তুলতে এপারের কৃষকদের দুর্ভোগে কথা শুনেছি। তাই ওই স্থানে সেতু নির্মাণ অত্যন্ত জরুরী। এ ব্যপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের আশ্বাস দেন তিনি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST