ঘোষনা:
শিরোনাম :
মানিকগঞ্জে দুই মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২ চট্টগ্রামে মা, মেয়ে ও ছেলের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, বাবা আটক কুমিল্লার ঘটনার সাতক্ষীরায় গণ সাংস্কৃতিক মৈত্রীর ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ মিছিলে মিছিলে প্রকম্পিত মোংলা বন্দর ডিমলায় আইন-শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত। মোংলার বিভিন্ন পূজা মন্দির ও মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন জেলা পুলিশ সুপার নীলফামারীতে ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিল । গানের জন্য শ্রোতারের অসামান্য ভালোবাসার পাশাপাশি হাবিব ওয়াহিদ পেয়েছে পুরস্কার এবং সম্মাননা আওয়ামীলীগ ও সরকারের অবৈধ বাহিনীর মদদে দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করা হচ্ছে বললেন,ফখরুল ডিমলায় উপজেলা পুষ্টি বিষয়ে সভা
সেনাবাহিনীকে সব সময় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সেনাবাহিনীকে সব সময় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সেনাবাহিনীকে সব সময় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস

ঢাকা বাসস,
সেনাবাহিনীকে সব সময় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য যোগ্য নেতৃত্ব  এবং দেশপ্রেমিক অফিসারদের হাতে ন্যস্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ রোববার সকালে ঢাকা সেনানিবাসে সেনাসদর নির্বাচনী পর্ষদ-২০১৯-এর সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। বৈঠকের পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সেনাবাহিনীকে সব সময় জনগণের পাশে দাঁড়াতে হবে। এ জন্য এর নেতৃত্ব যোগ্য, দক্ষ, কর্মক্ষম এবং দেশপ্রেমিক অফিসারদের হাতে ন্যস্ত করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, নির্বাচনী পর্ষদ পদোন্নতির জন্য এমন সব সেনা কর্মকর্তাকে সুপারিশ করবে যাদের দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস, নেতৃত্বের যোগ্যতা, পেশাগত দক্ষতা, শৃঙ্খলা, সততা, বিশ্বস্ততা এবং আনুগত্য রয়েছে। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা উন্নত ও পেশাদার সেনাবাহিনীর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে ১৯৭৪ সালেই প্রতিরক্ষা নীতি প্রণয়ন করেন। সেই আলোকেই বর্তমান সরকার একটি শক্তিশালী সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলার জন্য আর্ম ফোর্সেস গোল ২০৩০ প্রণয়ন করেছে।’ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুই প্রথম ব্যক্তি, যিনি এই মাটিতে জন্মগ্রহণ করেই এ দেশ শাসন করেছেন। এর আগে যাঁরা শাসন করেন, তাঁদের কারোই জন্ম এ দেশে নয়।’

প্রধানমন্ত্রী এবং জাতির জনকের বড় মেয়ে শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ শেষ করার লক্ষ্য নিয়েই পরিচালিত হচ্ছে। জাতির জনকের স্বপ্নের ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়ার জন্যই তাঁর সরকার নিরন্তর সংগ্রাম করে যাচ্ছে। যেখানে কেউ আর ক্ষুধার্ত থাকবে না।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছালে সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ তাঁকে স্বাগত জানান। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, প্রতিরক্ষা সচিব আখতার হুসেইন ভূঁইয়া এবং সশস্ত্র বাহিনীর প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার লেফটেন্যান্ট জেনারেল মো. মাহফুজুর রহমান অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST