ঘোষনা:
শিরোনাম :
সাতক্ষীরায় প্রেমিকার বাড়ীতে নির্মম নির্যাতনের শিকার টেক্সটাইলস ইঞ্জিনিয়ার রংপুরে ক্যামেরায় কথা বলছে, গ্রামীন জনপদের ফরিদপুরে বাস পিক-আপ মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১২, আশঙ্কাজনক ৩ পহেলা বৈশাখে বর্ণিল উৎসবে মেতেছে নীলফামারী সাতক্ষীরায় ভিডিও কলে রেখে ঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে বিউটিশিয়ানের আত্মহত্যা নীলফামারীতে ঘোড়ার প্রতি পাকে,পরিবারে জীবনের গল্পটা কস্টের নীলফামারীতে কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন ঈদে বাড়ি ফেরা হলো না, শিশু সন্তান সহ পরিবারের  ঈদে ৫ দিন বন্ধের পরে, সাতক্ষীরা স্থলবন্দরে আমদানী-রপ্তানী শুরু, কর্মচাঞ্চল্য বাগেরহাটে পুকুরে স্যাটেলাইট কুমির উদ্ধার, অবমুক্ত সুন্দরবনে
সৈয়দপুরে রেলওয়ের জমিতে, বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক

সৈয়দপুরে রেলওয়ের জমিতে, বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক

সৈয়দপুরে রেলওয়ের জমিতে অনুমোদনহীন বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক, কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

নুর মোহাম্মদ ওয়ালিউর রহমান রতন,সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি,
রেলওয়ে শহর সৈয়দপুরে রেলওয়ের জমিতে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক পড়েছে। একইসাথে একাধিক বিল্ডিং তৈরীর কাজ চলছে মহাসমারোহে। শহরের প্রধান সড়কে প্রকাশ্যেই করা হচ্ছে এসব নির্মাণ কাজ। কোন রকম অনুমোদন ছাড়াই এই কর্মযজ্ঞ চললেও নির্বিকার রেলওয়ে প্রশাসন সহ পৌর কর্তৃপক্ষ।
শহরের প্রাণকেন্দ্র শহীদ ডা. জিকরুল হক সড়কেই চলছে চার ভবনের কাজ। এর মধ্যে ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান নিরিবিলি হোটেল। যা পাকিস্তান আমল থেকেই টিনসেড ছিল। এখন সেখানে করা হচ্ছে ৬ তলা বিল্ডিং। প্রায় ১০ শতক জায়গায় এই স্থাপনা করা হচ্ছে। এর পাশেই আরেকটি ৫ তলা ভবন করছে ইউসুফ ব্রাদার্স গং। এটিও টিনসেড থেকে বিল্ডিংয়ে রুপান্তরিত হচ্ছে। এর আয়তনও প্রায় ৮ শতক। এই সড়কেই মুক্তিযোদ্ধা অফিস সংলগ্ন আরেকটি স্থাপনা সংষ্কারের নামে বহুতল ভবন নির্মান করা হচ্ছে। এটি করছেন রেলওয়ের সাবেক ঠিকাদার মৃত নয়মুল চৌধুরীর ছেলে রেজওয়ান। এর সামান্য উত্তরে আল আরাফা ব্যাংকের পাশে আরেকটি বিল্ডিং করছে শাওন নামে একজন। প্রায় ৮ শতক জায়গায় করা হচ্ছে ৮ তলা ভবন।
এদিকে শহীদ জহুরুল হক সড়কে বহুতল ভবন করছে ঔষধ ব্যবসায়ী। এখানে প্রায় ৬ শতক জমির ৫ টি দোকান ছিল। গতমাসে ভোররাতে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটিয়ে সেখানে এখন ৬ তলা বিল্ডিং তৈরীর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এই জায়গায় থাকা ২টি বিশালাকৃতির গাছ কেটে বিক্রি করেছে। এই সড়কে তোফাজ্জল প্রিন্টিং প্রেস সংলগ্ন আরেকটি বহুতল ভবন করা হচ্ছে। এখানেও প্রায় ৪ শতক জায়গাজুড়ে চলছে কাজ। এছাড়াও রেলওয়ে বাজার এলাকাসহ শহরের বিভিন্ন জায়গায় রেলওয়ের জমিতে করা হচ্ছে একাধিক ভবনসহ বাড়ি তৈরী। যেন হিড়িক পড়েছে অবৈধ স্থাপনা নির্মানের। এসব কাজ চলছে সম্পূর্ণ অনুমোদনহীনভাবে। রেলওয়ে বা পৌরসভা কর্তৃপক্ষের কোন বৈধতা ছাড়াই এই কর্মযজ্ঞ চললেও তারা নির্বিকার। অভিযোগ রয়েছে রেলওয়ে ও পৌর কর্মকর্তাদের অর্থের বিনিময়ে ম্যানেজ করে মৌখিক অনুমোদনের নামে কাজ করছে বিল্ডিং নির্মানকারীরা। রেলওয়ের ও পৌরসভার মধ্যে মামলা চলমান থাকায় কেউই লিখিত অনুমোদন দিচ্ছেনা। তবে কেউ কাজ করলেও বাধাও দেয়া হচ্ছেনা। একারণেই সবাই এই সুযোগটাকে কাজে লাগাচ্ছে। আর টাকা দিলেই স্থানীয় রেলওয়ে বিভাগ নিরব থাকছে। একইভাবে পৌরসভাও নিরবতা পালন করছে। কারণ পৌর কর্তৃপক্ষ চায় ব্যবসায়ীরা উন্নয়ন করুক।
এব্যাপারে রেলওয়ে ভূসম্পত্তি ও স্থাপনা রক্ষণাবেক্ষণ কর্তৃপক্ষের উপ সহকারী প্রকৌশলী (আইওডাবøু) শরিফুল ইসলাম বলেন, মূলতঃ রেলওয়ে ২.৭৫ একর জমি যা সৈয়দপুর পৌরসভার অধীন। তাই এবিষয়ে আমাদের কিছুই করার নাই। এটি দেখবে রেলওয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্ট। কিন্তু ওই জমি নিয়ে মামলা আদালতে চলমান। সেকারণে সেখানে হস্তক্ষেপ করা যাচ্ছেনা। তিনি এর দায় পৌর কর্তৃপক্ষের বলে জানান।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST