ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারীতে পুলিশকে ব্যবহার করে জোরপূর্বক অন্যের জমি দখল নীলফামারীতে জোরপূর্বক মসজিদের সভাপতি হওয়ার পায়তারা, মুসল্লীদের মানববন্ধন। ডিমলায় সরকারী সেবা জনগনের দোরগোড়ায় দিতে চান ইউএনও উম্মে সালমা নীলফামারীতে পবিত্র ঈদুল আযহায় জেলা পুলিশের উৎসব সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আত্মসমর্পনকারী বনদস্যুর মাঝে ঈদ উপহার সাতক্ষীরার দুটি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের চাবী ও দলিল দিয়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা নীলফামারীতে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও জমির মালিকানা বহালে সংবাদ সম্মেলন মিথ্যা প্রলোভনে পাহাড়ের নারীদের পাচার করছে একটি সংবদ্ধ চক্র সাতক্ষীরায় ভাঙান মাছ চাষ পদ্ধতি ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক কর্মশালা গ্রামীণব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি,
নীলফামারীতে পূর্ব শত্রুতার জেরে সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত যুবক

নীলফামারীতে পূর্ব শত্রুতার জেরে সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত যুবক

মোঃ হারুন উর রশিদ, স্টাফ রিপোর্টার,

নীলফামারীতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মোঃ জুয়েল রানা (৩৫) নামে এক যুবকের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে।

বর্তমানে জুয়েল রানা গুরুতর আহত অবস্থায় নিরাপত্তাহিনতায় পরিবার পরিজন দিয়ে দিনাতিপাত করছেন। তাই সন্ত্রাসী বাহিনীদের উপর্যুক্ত শাস্তি দাবী করেন তিনি।

ঘটনাটি গত বৃহস্পতিবার (০১ জুন/২৩) দুপুর আনুমানিক ১২.৩০ ঘটিকায় সদর উপজেলার ইটাখোলা ইউনিয়নের কানিয়াল খাতা (মুন্সিপাড়া) এলাকার জামিয়ার রহমানের বাড়ির সামনে ঘটেছে। জুয়েল রানা এলাকার মোঃ আকরাম আলীর ছেলে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদী হয়ে সন্ত্রাসী বাহিনীদের নাম উল্লেখ করে নীলফামারী সদর বিজ্ঞ আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার পিটিশন নং-২৩(সদর)।

অভিযুক্ত সন্ত্রাসীরা হলেন, একই এলাকার মৃত আলহাজ¦ ওসমান গনীর তিন ছেলে মোঃ জাহেদুল ইসলাম (৪৫), মোঃ জসিম উদ্দিন (৪৮), মোঃ আবুল কাসেম (৫০), মোঃ আকরাম আলীর ছেলে মোঃ হাসান আলী (৩৫), মোঃ আবুল কাসেমের ছেলে কালাম আহমেদ (৩০) এবং মৃত কছো মামুদের ছেলে মোঃ সাইদুল ইসলাম (৩৬)।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সন্ত্রাসী বাহিনীদের সাথে ভুক্তভোগী যুবকের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিলো। এরই মধ্যে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২.৩০ ঘটিকার সময় সন্ত্রাসী বাহিনীর ৬ সদস্য সহ আরো অজ্ঞাত ৫ থেকে ৭ জন হাতে ধারালো ছোরা লোহার রড,সাবল, খন্তি,বাঁশের লাঠিসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ভুক্তভোগী মোঃ জুয়েল রানার পথরোধ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। ভুক্তভোগী তাদের গালিগালাজের কারণ জিজ্ঞাসা করলে সন্ত্রাসী বাহিনীর প্রধান মোঃ জাহেদুল ইসলামের হুকুমে ওই যুবকের উপর এলোপাথারি ডাং মার শুরু করে অন্যান্য সদস্যরা। সন্ত্রাসী মোঃ জাহেদুল ইসলাম তাকে প্রাণে মারার উদ্দ্যেশে তার মাথার মাঝ বরাবর লোহার সাবল দিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম এবং মাথার খুলি ভেঙ্গে দেয়। এরপর তার চোখের দৃষ্টি নষ্ট করার উদ্দেশ্যে চোখ বরাবর সাবল ও লোহার রড দিয়ে এলাপাথারি কোপ মারতে থাকলে উক্ত কোপগুলি জুয়েলের ডান চোখ ও মনিতে গুরুতর জখম হয় এবং তার বাম হাতের কাঁধের হাড় ভেঙ্গে ও জয়েন্ট খুলে যায়। সে মাটিতে পড়ে গিয়ে চিৎকার করলে তার স্ত্রী মোছাঃ নুরানী বেগম এগিয়ে আসে। তাকে বিবস্ত্র করে তার গলায় থাকা ৮ আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিড়ে নেয় বাহিনীরা। যার আনুমানিক মূল্য ৪৫ হাজার টাকা। ওই যুবককে এলোপাতাড়ি মারধর করে সন্ত্রাসীরা তার সাথে থাকা নগদ ২৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। পরবর্তীতে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে তারা অস্ত্র উঠিয়ে প্রাণ সাশের হুমকী সহ ভয়ভিতি প্রদর্শণ করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

এরপর আহত ওই যুবককে উদ্ধার করে নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠায় এলাকাবাসী। হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থা আশংকা জনক দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুরে রেফার্ড করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই এলাকার স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, জাহেদুল ইসলামসহ তার দলবল অনেক শক্তিশালী। এলাকায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে পারে না। তারা জুয়েলের মতো নিরিহ ব্যক্তির উপর অনেকবার হামলা করেছে। আমরা এলাকাবাসী হিসেবে অন্যায় ভাবে জুয়েলকে গুরুতর আহত করার জন্য তাদের উপর্যুক্ত শাস্তি কামনা করি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST