ঘোষনা:
নীলফামারীতে রের্কডীয় রাস্তায় দোকান নির্মাণ, চলাচলের চরম ভোগান্তিতে ৬টি পরিবার

নীলফামারীতে রের্কডীয় রাস্তায় দোকান নির্মাণ, চলাচলের চরম ভোগান্তিতে ৬টি পরিবার

মোঃ হারুন উর রশিদ, স্টাফ রিপোর্টার,
নীলফামারী সদর চোড়াইখোলা ইউনিয়নের জামাতির বাজারে রেকর্ডিয় রাস্তার উপর দোকান নির্মান করে প্রতি মাসে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বেংমারী খেতুয়াপাড়ার আব্দুল বারী ছেলে জাহাঙ্গীর আলম(৩০), আলমগীর আলম(৩৮), হবিবর রহমান(৫০), সামসুদ্দিনের ছেলে মিজানুর রহমান(৪৫) বাবর আলী ছেলে আজিদ ।অপরদিকে রাস্তা বন্ধ হওয়ায় চলাচলের চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন এলাকার ছয়টি পরিবার।

এবিষয়ে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা ভূমি অফিস ও ইউনিয়ন পরিষদ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিলেও কোন প্রতিকার পাননি ভুক্তভোগীরা।তারা হলেন, মোঃ আজগর আলী, আমিনুর রহমান, আব্দুস সামাদ, মমিনুর ইসলাম, ওহিদুল ইসলাম, আমিনা বেগমসহ আরো অনেকে।

অভিযোগের সংক্ষিপ্ত বিবরণ জানা যায়, নীলফামারী টেক্সটাইল মোড় হতে চড়াইখোলা রাস্তার জামাতির মোড় নামক এলাকায় ৩৬৪৪ এবং ৩৬৪৫ দাগে ভুক্তভোগীদের বাড়ী এবং ৩৬৪২ ও ৩৬৪৫,৩৬৪৬ দাগের সম্মুখ ভাগ দিয়া একটি রাস্তা জামাতির মোড় হইতে দালালের বাজার পর্যন্ত কাঁচা রাস্তা আছে। যাহার এস, এ রেকর্ড আমলে চলাচলের রাস্তা হিসাবে লিপিবদ্ধ ও প্রচারিত আছে। রাস্তাটি চলাচলের জন্য দীর্ঘ ৬০ বৎসরের উর্দ্ধকাল যাবত ব্যবহার করে আসতেছে ভুক্তভোগীরা।কিন্তু হটাৎ করেই দোকান ঘর নির্মাণ করে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করেন প্রভাবশালীরা।

ভুক্তভোগী আজগর আলী বলেন, তারা যখন রাস্তায় দোকান নির্মান করে আমরা বাঁধা নিষেধ করি। তারা বাধা না মেনে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদন করেন। এখন তারা রেকর্ডীয় রাস্তায় দোকান ঘর নির্মান করে ব্যবসার জন্য ভাড়া দিয়েছে। তার ফলে আমাদের যাতায়াতের দারুন অসুবিধার সৃষ্টি হয়েছে। আমরা চাই রাস্তার থেকে দোকানঘর অপসারন করে চলাচলের ব্যবস্থা করে দেয়া হোক।

ভুক্তভোগী আমিনুর রহমান বলেন, আমার বাড়ি যাতয়াতের জন্য কোন রাস্তা নাই। আমি বাঁশ ঝাড়ের ভিতর দিয়ে চলাচল করি। প্রধামন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন আমাদের যেন যাতয়াতের রাস্তার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়।

রের্কডী রাস্তার উপরে দোকান নির্মানের বিষয়টি আলমগীর আলম স্বীকার করলেও ছয় পরিবারের রাস্তা বন্ধের বিষয় শুকৌশলে এড়িয়ে যান।

নীলফামারী সদর উপজেলা সহকারি ভূমি কমিশনার মোঃ ইবনুল আবেদীন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেসমিন নাহারকে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় কোন মন্তব্য জানা যায়নি।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST