ঘোষনা:
শিরোনাম :
ইরান রাশিয়াকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র দিয়েছে ইমরানের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা যাচ্ছেন সুন্নি ইত্তেহাদ কাউন্সিলে সমুদ্র সম্পদ অনুসন্ধান-আহরণ প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী নীলফামারীতে নদী এখন ফসলি জমি নীলফামারীতে গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত। নীলফামারী প্রেসক্লাবে সিয়াম সভাপতি, নুর আলম সাধারণ সম্পাদক ব্যাংক খাতে কমছে না খেলাপি ঋণ, এক বছরে বাড়ল ২৫ হাজার কোটি টাকা জলঢাকায় বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটির ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত ওরা আমার স্বামীকে হত্যা করেছে, আমি তাদের ফাঁসি চাই নীলফামারীতে পিতার সম্পত্তি চাইতেই নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থী অন্তি ; প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সাফল্যের সাথে কাজ করছে ডোমার ভিত্তি বীজআলু উৎপাদন খামার।

প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সাফল্যের সাথে কাজ করছে ডোমার ভিত্তি বীজআলু উৎপাদন খামার।

মোঃ হারুন উর রশিদ,স্টাফ রিপোর্টার,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতি ইঞ্চি জমিকে উৎপাদনের আওতায় আনতে হবে। সেইসাথে বিশ্বায়নের এই যুগে কৃষিই হোক দেশের অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি। এরই ধারাবাহিকতায় কাজ করে যাচ্ছে ডোমার ভিত্তি বীজআলু উৎপাদন খামার এবং প্রতিবারেই খামারটি জাতীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

খামারটিতে দুইটি পটেটো টিস্যুকালচার ল্যাবরেটরীতে প্রতিবছর ১৫-১৮টি জাতের প্রায় ১২ লক্ষ ভাইরাসমুক্ত প্লান্টলেট উৎপাদন করা হয়। তা হতে পরবর্তীতে মিনিটিউবার, ব্রিডার ও ভিত্তি মানের বীজ উৎপাদন করে হিমাগারে সংরক্ষণ শেষে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিএডিসি’র ২৮টি হিমাগার জোনের চুক্তিবদ্ধ চাষী দ্বারা প্রত্যায়িত বীজ উৎপাদন করা হয়। এতে প্রতিবছর প্রায় ৪০,০০০ মে.টন বীজআলু চাষী পর্যায়ে বিপণন করা হয়।

তথ্যমতে, ১৯৫৭-৫৮ সালে সরকার ডোমার খামারটি প্রতিষ্ঠা করে। তৎকালীন কৃষি বিভাগের তত্ত¡াবধানে খামারের কার্যক্রম শুরু হয়। বীজআলু উৎপাদনে অধিক উপযোগী মনে করে ১৯৮৯-৯০ সনে খামারটি আলুবীজ বিভাগে অন্তর্ভুক্ত হয়। যার পরিধি বর্তমানে ৫১৪.৪৮ একর।

চলতি উৎপাদন মৌসুমে ২৫৫ একর জমিতে ব্রিধান ৯৮ জাতের আউশ ধানবীজ উৎপাদন কর্মসূচি গৃহিত হয়েছে যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ৩৩২ মে.টন। চলতি আমন মৌসুমে ১০ একর জমিতে ব্রিধান ৮৭ জাতের এবং ব্রিধান ৯০ জাতের ৭০ একর জমিসহ সর্বমোট ৮০ একর জমিতে আমন ধানবীজ উৎপাদন কর্মসূচি রয়েছে যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ৯৯ মে.টন। ধানবীজ উৎপাদন কার্যক্রম শতভাগ যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে চলমান রয়েছে, রাইস সিডিং মেশিন দ্বারা রেডিমেড সিডিং ট্রে ব্যবহার করে আউশ ও আমন ধানবীজ বপণ করা হয়েছে। চলতি বীজআলু উৎপাদন মৌসুমে প্লান্টলেট হতে মিনিটিউবার ২১ একর, মিনিটিউবার হতে প্রাকভিত্তি ১৭০.২৭ একর, প্রাকভিত্তি হতে ভিত্তি ২৫১.৫২ একর এবং অন্যান্য ১৩.০০ একরসহ সর্বমোট ৪৫৫.৭৯ একর জমিতে বীজআলু উৎপাদন কর্মসূচি রয়েছে। বর্তমানে জমি প্রস্তুত এবং রোপণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

২০২২-২৩ উৎপাদন মৌসুমে বিভিন্ন জাতের প্লান্টলেট হতে মিনিটিউবার ১৭.৫২ একর, মিনিটিউবার হতে প্রাকভিত্তি ১১৩.৮৮ একর, প্রাকভিত্তি হতে ভিত্তি ৬৫.৫০ একর, আমদানিকৃত বেসিক বীজ হতে ভিত্তি ১১৭.৪৫ একরসহ সর্বমোট ৩৮০.৩৫ একর জমিতে বীজআলু উৎপাদন কর্মসূচি ছিল। যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২১৫২.৮৯ মে.টন। কর্মসূচির বিপরীতে চলতি উৎপাদন মৌসুমে মিনিটউবার ৭০.৯২ মে.টন, প্রাকভিত্তি ৬৮১.৫০ মে.টন সহ সর্বমোট ২৩০১.৭২ মে.টন বীজআলু উৎপাদিত হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৪৮.৮৩ মে.টন বেশি।

ইতোপূর্বে ২০২১-২২ মৌসুমে বিএডিসি কর্তৃক ১০টি নতুন জাতের বীজআলু নিবন্ধন করা হয়েছে যেগুলো হলোঃ বিএডিসি আলু-১ (সানশাইন), বিএডিসি আলু-২ (প্রাডা), বিএডিসি আলু-৩ (সান্তানা), বিএডিসি আলু-৪ (ইনোভেটর), বিএডিসি আলু-৫ (এডিসন), বিএডিসি আলু-৬ (কুম্বিকা), বিএডিসি আলু-৭ (কুইনঅ্যানি), বিএডিসি আলু-৮ (ল্যাবেলা), বিএডিসি আলু-৯ (কেএসি-৮১), বিএডিসি আলু-১০ (অ্যালকেন্ডার)।

২০২২-২৩ মৌসুমে বিএডিসি কর্তৃক আরও ৪টি জাতের বীজআলু নিবন্ধন করা হয়েছে যেগুলো হলোঃ বিএডিসি আলু-১১ (ডেলিয়ারেড), বিএডিসি আলু-১২ (রাশিদা), বিএডিসি আলু-১৩ (জিনারেড), বিএডিসি আলু-১৪ (এসএইচসি ১০১০)। বিগত ৩ বছর যাবত ৮টি ( প্রাডা, সানশাইন, সানতানা, কুইন অ্যানি, ৭ ফোর ৭, প্রিমাভেরা, হার্মোসা, টুইনার) আগাম জাতের গবেষণামুলক কার্যক্রমের ফলাফলের ভিত্তিতে ৭ ফোর ৭, সানশাইন, কুইন অ্যানি এবং প্রাডা এই ৪টি জাত কৃষক পর্যায়ে আগাম আলু হিসেবে চাষাবাদ করার জন্য সুপারিশ করা হয়। এছাড়াও শিল্পে ব্যবহার, রপ্তানি উপযোগী এবং উচ্চফলনশীল জাতের পরীক্ষামূলক কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

২০২২-২৩ উৎপাদন মৌসুমে আমদানিকৃত উৎসের আলুর জাত উপযোগীতা ও নতুন জাত অবমুক্তর জন্য ৬টি জাতের পরীক্ষামূলক প্লট স্থাপন করা হয় । পরীক্ষামুলক জাতগুলো হলোঃ ১. ভি আর-৮০৮ ২. এস টিটি-১২-৮৭৩ ৩. এসএইচসি-১০১০ ৪. ব্রিয়ান্না ৫. লুগানো ৬. লিওনাটা। সেইসাথে আগাম জাতের আলুর উপযোগীতা যাচাইয়ের জন্য পরীক্ষামূলক প্লট স্থাপন করা হয়।

পরীক্ষামুলক জাতগুলো হলোঃ ১. ভোগ, ২ বেয়ন্স ৩.নাবিলা ৪. ৭ কিশোরগঞ্জ ৫. সানশাইন ৬. গ্রানোলা ৭. অ্যালুয়েট ৮. রানোমি। এছাড়াও চলতি উৎপাদন মৌসুমে ৪৪টি জাতের জাত উপযোগীতা যাচাইয়ের জন্য প্লট স্থাপন করা হয়েছে।
বীজআলুর নতুন নতুন সম্ভাবনাময় জাতগুলোর অভিযোজন ক্ষমতা ও গবেষণার মাত্রা সম্প্রসারণ এবং জার্মপ্লাজম সংরক্ষণের জন্য প্রায় ১.০০ একর জমিতে ৮০টি জাতের একটি জীবন্ত জাদুঘর প্রতি বছর স্থাপন করা হয়।

বীজআলু উৎপাদনের পর অবশিষ্ট কম উর্বর জমিতে ২০২২-২৩ উৎপাদন মৌসুমে ২০ একর জমিতে গমবীজ উৎপাদন করা হয়েছে। সেখানে ২৪ মে.টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে অর্জন হয় ২৬.২ মে.টন। এছাড়াও বোরো মৌসুমে ব্রিধান ৯২ জাতের ৪০ একর এবং ব্রিধান ৮৮ জাতের ২০ একরসহ সর্বমোট ৬০.০০ একর জমিতে ভিত্তি মানের বোরো ধানবীজ উৎপাদন করা হয়েছে। উচু জমিতে আমন মৌসুমে আমন বীজ উৎপাদন করা হয়।

ডোমার ভিত্তি বীজআলু উৎপাদন খামারের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ আবু তালেব মিঞা বলেন, ২০২০-২১ হতে প্রতি উৎপাদন মৌসুমে বীজ আলু উত্তোলনের পর জমির উর্বরতা বৃদ্ধি,সুষম পুষ্টি যোগান,ভূমি ক্ষয়রোধ এবং আবাদী জমির উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষে ৪৫০ একর জমিতে সবুজ সার হিসেবে ধৈঞ্চাচাষ করা হচ্ছে। এছাড়া খামারের নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভার্মিকম্পোষ্ট প্লান্ট তৈরি করা হয়েছে। যা থেকে প্রতিবছর প্রায় ৩০ মে.টন ভার্মিকম্পোষ্ট উৎপাদন করা হয়।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST