ঘোষনা:
শিরোনাম :
নীলফামারী চৌরঙ্গীতে আগুন, দোকান ভস্মীভূত নীলফামারী উত্তরণ নার্সিং এন্ড মিডওয়াইফারি ইনস্টিটিউটের আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস পালিত সাতক্ষীরায় ২০ মেট্রিক টন অপরিপক্ক আম জব্দের পর তা বিনষ্ট নীলফামারী সদর উপজলোর মনোনয়ন যাচাই শেষ, এক চেয়ারম্যান প্রার্থির মনোনয়ন অবৈধ নীলফামারীতে মহান মে দিবস পালিত নীলফামারীতে গচ্ছিত জামানত ও পি.এফ এর টাকা উদ্ধারের দাবীতে প্রোণ অফিস ঘেরাও। নীলফামারীতে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ। নীলফামারী জলঢাকার পৌরসভায় নোভা বিজয়ী নীলফামারীর জলঢাকা উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থির পক্ষে প্রচারণা, এমপির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন। নীলফামারীতে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সাংবািদকের নামে থানায় মিথ্যা চাঁদাবাজি মামলা
নীলফামারীতে ঘোড়ার প্রতি পাকে,পরিবারে জীবনের গল্পটা কস্টের

নীলফামারীতে ঘোড়ার প্রতি পাকে,পরিবারে জীবনের গল্পটা কস্টের

মো:রেজাউল করিম রঞ্জু,স্টাফ রিপোর্টার,

নীলফামারী কিশোরগঞ্জে ঘোড়ার ঘানিতে পরিবারের হাল ধরেছেন ফজলে মামুদ নামে এক বৃদ্ধ। এক সময় খাঁটি ভোজ্যতেল উৎপাদনে একমাত্র অবলম্বন ছিল ঘানি।ঘানি টানার কাজে ব্যবহার করা হত গরু। গরুর দাম বৃদ্ধির কারনে প্রাচীন বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘানি শিল্প প্রায় বিলুপ্তির পথে। ফজলে মামুদ(৭৫)নামের এক বৃদ্ধ স্বল্পমূল্যের ঘোড়াকে বেছে নিয়ে টিকে রেখেছেন বাপ-দাদার ঐতিহ্যের তেলিপেশা। তিনি উপজেলার বাহাগিলী ইউপির উত্তর দুরাকুটি তাঁতি পাড়া গ্রামের বাসিন্দা।জানা যায়,ঘোড়ার কদর ও চাহিদা না থাকায় বাজার মূল্যে খুবেই কম। আর গরুর সমকক্ষে ঘোড়া দিয়ে নানাবিধ কাজে ব্যবহার করা যায়,এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে তিনি কয়েক বছর ধরে গরুর পরিবর্তে ঘোড়া দিয়ে ঘানি টেনে তেল বিক্রি করে ৫ সদস্যর সংসার চালান। সরেজমিনে  তার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়,ঘানির ক্যাঁচ ক্যাঁচ শব্দে খাঁটি সরিষা তেলের সুগন্ধে আশপাশ ছরিয়ে গেছে। নরেবড়ে একটি ঘরে,কাতারের উপর বসে ভর দিচ্ছেন নিজে। এ সময় ঘোড়ার ঘর ঘর পাকে পাতিলে চুয়ে চুয়ে পড়ছে তেল। স্থানীয়দের মাঝে ঘানির তেলের অনেক চাহিদা।ফজলে মামুদের সাথে কথা হলে তিনি বলেন,বাপ-দাদার পেশা ধরে রাখতে আমি ৬০বছর ধরে ঘানিতে তেল মাড়াই ও বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। আগে গরু দিয়ে সরিষা মাড়াই করতাম,কিন্তু ঘানি টানার জন্য বর্তমান বাজারে গরুর দাম প্রায় লক্ষাধীক টাকা। এতো টাকা নাথাকায়,কয়েক বছর আগে ৮ হাজার টাকা দিয়ে একটি ঘোড়া ক্রয় করি।দৈনন্দিন এ ঘোড়া দিয়ে ১২কেজি সরিষা মাড়াই করে ৪ কেজি তেল ৪৮০ টাকা দরে বিক্রিকরি।যাবতীয় ব্যয় বাদে প্রতিদিন ৫০০টাকার মত আয়হয়,তা দিয়ে কোন রকমে ৫ সদস্যের সংসার চালাই।স্থানীয় ব্যক্তি সামসুল ইসলাম বলেন,আমরা ফজলে মামুদেরতেল বাড়ীতে সব কাজে ব্যবহার করি।এই তেলের স্বাদ ঘ্রাণঅতুলনীয়। ঘানির তেল বিক্রি করে তার অভাবের সংসার আজভালো চলছে।এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লোকমান আলম বলেন,প্রযুক্তির যুগের মানুষ অধিক উৎপাদনশীল যন্ত্রেরদিকে ঝুঁকছে। এতে স্বল্প উৎপাদন যোগ্য ঘানি শিল্পহারিয়ে যাচ্ছে। যান্ত্রিকতার ছোঁয়ায় ঘোড়ার ব্যবহারওহারিয়ে যাচ্ছে।তবে দামি গরুর পরিবর্তে ফজলে মামুদকম দামের ঘোড়া দিয়ে খাঁটি সরিষার তেল উৎপাদন করেভোক্তাদের মাঝে সরবরাহের পাশাপাশি গ্রামীণ ঐতিহ্য ধরেরেখেছে। আমরা সরেজমিনে গিয়ে তার ঘানিটি পরিদর্শন করবো।





@২০১৯ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । গ্রামপোস্ট২৪.কম, জিপি টোয়েন্টিফোর মিডিয়া লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান।
Design BY MIM HOST